নগরে একদিনে চার মৃত্যু

আগুনে পুড়ল মা-মেয়ে, সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল ২ জনের

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ২৪ জুলাই, ২০১৯ at ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ
1651

চট্টগ্রাম নগরীতে একদিনে চারটি মৃত্যু হয়েছে। হালিশহরে গতকাল সন্ধ্যায় আগুনে পুড়ে মারা গেছেন মা ও মেয়ে। আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারে গত রাতে দুর্ঘটনায় মারা গেছেন দুই মোটর সাইকেল আরোহী।
ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে মারা গেছেন নাছিমা আকতার শিউলি (৩৫) ও তার সাড়ে ছয় বছরের মেয়ে লামিয়া। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বন্দর থানার দক্ষিণ-মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডের বাকের আলী ফকিরের টেক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় নিহত শিউলির স্বামী কালু ড্রাইভারও আহত হয়েছেন।
ফায়ার সার্ভিস ও বন্দর থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাকের আলী ফকিরের টেক এলাকায় মাহবুব ও হায়দারের মালিকানাধীন বস্তির একটি ঘরে আগুন লাগে। আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে পুড়ে যায় নয়টি ঘর। এসময় প্রতিবেশীরা নিরাপদ স্থানে সরে গেলেও আটকা পড়েন শিউলি ও তার মেয়ে। খবর পেয়ে আগ্রাবাদ, বন্দর ও ইপিজেড ফায়ার স্টেশন থেকে ৯টি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছে রাত ৯টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার পর উদ্ধার করা হয় পুড়ে যাওয়া মা-মেয়ের মরদেহ। আগ্রাবাদ ফায়ার স্টেশনের উপ-সহকারী পরিচালক ফরিদ আহমেদ চৌধুরী দৈনিক আজাদীকে বলেন, ৭টা ৩৫ মিনিটে আগুন লাগার খবর পাই। তিনটি ইউনিটের নয়টি গাড়ি আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। আগুন লাগার কারণ জানা যায়নি। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তদন্ত করে নির্ধারণ করা হবে।
বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকান্ত চক্রবর্তী আজাদীকে বলেন, গ্যাস সিলিন্ডার থেকেই আগুন লেগেছে বলা হচ্ছে। আগুনে ২০/২২টি বস্তিঘর পুড়ে গেছে।
দুই মোটর সাইকেল আরোহী নিহত
নগরীর আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারে দাঁড়িয়ে থাকা একটি কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে সংঘর্ষে দুই মোটর সাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো দুজন। গতকাল রাত ১০টার দিকে ফ্লাইওভারের দুই নম্বর গেট ও মুরাদপুরের মাঝামাঝি অংশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হচ্ছেন আব্বাস আলী (১৮) ও মুন্না (২২)। আহতরা হচ্ছেন রাব্বী (২০) ও রিফাত (২৫)। মুন্না নগরীর খতিবের হাটের হাজী মাঝির বাড়ির নেজামের ছেলে। আব্বাস রাঙ্গুনিয়া উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নের হারুনের ছেলে। তাদের বাসা বহদ্দারহাট। রাব্বী হামজারবাগের আবদুস সোবহানের ছেলে এবং রিফাত বিবিরহাট ভাণ্ডার গলির নাছেরের ছেলে।
পাঁচলাইশ থানার এসআই নুরুল আলম মিয়া দৈনিক আজাদীকে বলেন, ফ্লাইওভারের উপর একটি কাভার্ডভ্যান মেরামত করা হচ্ছিল। দাঁড়িয়ে থাকা কাভার্ডভ্যানটিকে পেছন থেকে মেরে দেয় দুই মোটর সাইকেলের চালক। এতে দুই মোটর সাইকেলের চারজন আরোহী গুরুতর আহত হন। তাদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম দৈনিক আজাদীকে বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার পর কতর্ব্যরত চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকি দুজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।
এদিকে, গত রাত পৌনে ১২টায় চমেক হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, হাসপাতালের মর্গের সামনে ভিড় করেছেন নিহত দুজনের স্বজনরা। তাদের কান্না আর আহাজারি আশপাশের বাতাস ভারী হয়ে ওঠে।

x