. . . ধিক্কার জানাই!

শনিবার , ১৩ জুলাই, ২০১৯ at ৫:৫৬ পূর্বাহ্ণ
102

“মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি” এটি জনপ্রিয় একটি দেশাত্মবোধক গানের লাইন! ঠিকই ইতিহাস পড়লে তাই দেখি! একটি ফুলকে বাঁচানোর জন্যেও যুদ্ধ করা হয়েছে! আমরা পেয়েছি স্বাধীনতা, স্বাধীন বাংলাদেশ। ২১ ফেব্রুয়ারি, ২৬ মার্চ, ১৬ ডিসেম্বর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তাদের স্মরণ করা হয়! কত রক্ত দিয়েছে তারা! বিনিময়ে দেশ স্বাধীন! আমাদের গৌরব! অথচ সেই স্বাধীন বাংলাদেশে আজ শিশু, কিশোরী, যে কোন বয়সের নারীদের চলাফেরা করা কঠিন হয়ে পড়েছে! কি একটা বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে! ৯ মাসের শিশুও আজ নিরাপদে নেই! সারা দেশে মানবতার কথা! খবর আর খবর! প্রতিবাদও হচ্ছে! ফেসবুকে দেখা যায় বিচার নিয়ে হাজারো মন্তব্য! নিজ দেশেই ভয়ংকর পরিস্থিতি! হত্যা, ধর্ষণ, খুন! অপরাধীকে ধরা হলেও কোন দৃষ্টান্তমূলক বিচার দেখা যায় না! একের পর এক বীভৎস ঘটনা ঘটছে! গত কয়দিন আগে আমাদের ঝএইঠ টিম লিড তাহরিমা আকতার আপু এই নিয়ে একটা পোস্ট শেয়ার দিয়েছে। বুঝতে পারলাম ভারাক্রান্ত মনে দিয়েছে এ পোস্ট! এ বিষয়ে ব্র্যাক, এইচসিএমপি, প্রোটেকশন টিম লিড তাহমিনা ইয়াসমিন আপু বলেন- “স্বল্প সময়ের মধ্যে প্রতিটি ঘটনার দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত না করতে পারলে এই মহামারি থামবে না। দলীয় পক্ষপাত, প্রভাবশালীদের হস্তক্ষেপ, দুর্নীতিবাজ প্রশাসনের কারণে দোষীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। তৈরি হয়েছে বিচারহীনতার সংস্কৃতি। আমি ক্ষমা চাই প্রতিটি নির্যাতিত নারী, কিশোরী এবং শিশুদের কাছে।আমরা তাদের নিরাপত্তা দিতে পারিনি। ঘরের ভেতরে, কর্মক্ষেত্রে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে ওঁৎ পেতে থাকা হায়েনাদের হাত থেকে আমরা বাঁচাতে পারিনি আমাদের শিশুদেরকেও। আমি সত্যিই হতাশ! কথা বলার ভাষা নেই। ধিক্কার জানাই এই সমাজকে, রাষ্ট্রকে”। ঠিকই বলেছেন তাহমীনা আপু। কথা বলার ভাষা নেই! আমরাও অবাক হই,যখন দেখি অপরাধীদের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে! আরো অবাক লাগে যখন দেখি বা শুনতে হয় অপরাধীদের জন্যও সুপারিশ থাকে! ছি! ছি! এই সুপারিশ কারা করে? তাদেরকে খুঁজে তাদের ব্যাপারেও কঠোর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি! সে যেই হোক!
– মুনিয়া মুন, ব্র্যাক, কক্সবাজার

x