ধানের দাম নেই, শ্রমিক সংকটে মাঠে নারী-শিশু

শুক্রবার , ১৭ মে, ২০১৯ at ৭:২৬ পূর্বাহ্ণ
35

কখনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ, কখনো বা ফসল রোগাক্রান্ত আর ফলন মন্দা। এদিকে শ্রমিকের অধিক মজুরি দেওয়ার পর বাজারে মেলে না ধানের ন্যায্যমূল্য। সুদিনের আশায় কৃষকেরা বারবার স্বপ্ন দেখে ফসল বুনে। কিন্তু সুদিনের আর দেখা হয় না, উল্টো তারা হন ক্ষতিগ্রস্ত। চলতি মৌসুমে ধানের ফলন ভালো হলেও বাজারে দাম কম। অপরদিকে, অতিরিক্ত পারিশ্রমিক দাবিতে সৃষ্টি হয়েছে শ্রমিক সংকট। এ অবস্থায় কোনো উপায় না পেয়ে ঘরে ফসল তুলতে শ্রমিকের কাজ করতে মাঠে নেমে পড়েছে ঘরের নারী-শিশুরা। খবর বাংলানিউজের।
ষষ্ঠ এবং পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আলিম ও নাজিম উদ্দিন। তারা নেত্রকোণা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার বাকলজোড়া ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামের রহিম উদ্দিনের ছেলে। বাবার সঙ্গে ধান কেটে ঠেলাগাড়িতে তুলে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছিল। দুই ভাই জানায়, বাবাকে বলতে শুনেছি বাজারে প্রতিমণ ধানের দাম মাত্র ৪০০ টাকা। আর আড়াই মণ ধানের দাম (১ হাজার টাকা) দিয়ে একজন শ্রমিক নেওয়া সম্ভব নয়। তাই মা-বাবা আর আমরা নিজেরাই মাঠে নেমেছি।
একই গ্রামের কৃষক ইলিয়াস মিয়া বলেন, মাত্রাতিরিক্ত পারিশ্রমিক দাবিতে শ্রমিক সংকট ও বাজারে ধানের ন্যায্যমূল্য না থাকায় লোকসানে পড়ে দিকভ্রান্ত হয়ে পড়েছে কৃষকেরা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পূর্বধলা উপজেলার ধলামূলগাঁও গ্রামের এক গৃহবধূ বলেন, শ্বশুরবাড়িতে এসে রাস্তা দিয়ে কোনোদিন ঠেলাগাড়িতে ধান টেনে নিতে হয়নি। পরিস্থিতি আজ এখানে নিয়ে এসেছে। যে পরিমাণ পারিশ্রমিক শ্রমিকদের দাবি আর বাজারে ধানের যে দাম তাতে শ্রমিক দিয়ে ধান কাটালে কৃষক বাঁচবে না।
আরেক কৃষক শের আলম বলেন, এ বছরই শেষ চাষাবাদ, আর করব না। তবে মনে রাখা জরুরি কৃষক না বাঁচলে খাদ্যাভাবে দেশ চরম হুমকির মুখে পড়বে।

x