ধর্মীয় অনুষ্ঠান উৎসবে পরিণত হলে তা সর্বজনীন হয়

আলোচনা সভায় মেয়র

বুধবার , ১২ জুন, ২০১৯ at ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ
13

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, রমজান মাসে সিয়াম-সাধনা এবং ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের মধ্য দিয়ে যে মানসিক ও আত্মিক পরিশুদ্ধি অর্জিত হয় তা বছরব্যাপী ধরে রাখতে পারলে সমাজ কালিমামুক্ত হবে। তিনি বলেন, যে কোনো ধর্মের ধর্মীয় অনুষ্ঠান যখন উৎসবে পরিণত হয় তখন তা সর্বজনীন হয়ে উঠে। তাই ঈদুল ফিতর, শারদীয় দুর্গোৎসব, বৌদ্ধ পূর্ণিমা এবং খ্রিস্টমাস-ডে তে সকল ধর্মের অংশগ্রহণে উৎসব মুখরিত হয়ে উঠে। এর মধ্য দিয়ে সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতির আবহ সৃষ্টি হয়। এটাই হলো একটি লোকায়িত সমাজের মাঙ্গলিক বহিঃপ্রকাশ। তিনি গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সম্মিলিত ঈদ আনন্দ উৎসব উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও চসিকের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব প্রকৌশলী আবু মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। উদযাপন পরিষদের প্রধান সমন্বয়কারী খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রীয় কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মদ আজাদ খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন, নগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য হাজী বেলাল আহমেদ, আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ ইছা, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য আবদুল মান্নান ফেরদৌস। এর আগে টিআইসি প্রাঙ্গণে পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে আনন্দ উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। পরে আলোচনা সভা শেষে ঈদ আনন্দ উৎসবের র‌্যালি টিআইসি চত্বর থেকে নিউমার্কেট হয়ে পুনরায় টিআইসি চত্বরে এসে শেষ হয়। মঞ্চে আনন্দ-বিনোদনে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ করে চারুতা নৃত্যকলা একাডেমি, দ্য স্কুল অব ফোক ডান্স। সংগীত পরিবেশন করেন, বেতার ও টেলিভিশন শিল্পী জয়দীপ চৌধুরী আকাশ, রিমি সিনহা, অঙ্কিতা আচার্য, স্নেহা সেন, আলফী গাজী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x