দোহাজারীতে আগুনে পুড়ল ৮ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

চন্দনাইশ প্রতিনিধি

শনিবার , ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ at ৪:১৩ পূর্বাহ্ণ
17

চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী পৌরসদরের চট্টগ্রামকক্সবাজার মহাসড়কস্থ বাসস্টেশন এলাকায় গতকাল ১৪ সেপ্টেম্বর সকালে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে কমপক্ষে দেড় থেকে দুই কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্থরা। অগ্নিকাণ্ডের সময় যানজটের কারণে চট্টগ্রামকক্সবাজার মহাসড়কে প্রায় দেড় ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কোন একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পেছন দিক থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়ে আগুন ছড়িয়ে পড়লে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সাতকানিয়া ও চন্দনাইশ ফায়ার স্টেশনের তিনটি ইউনিট দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো হলোমোহাম্মদ ইসলামের লেপতোষকের দোকান, মোহাম্মদ পলাশের মিষ্টির দোকান, মোহাম্মদ আলা উদ্দীনের কুলিং কর্ণার, সিরাজুল ইসলামের রেস্টুরেন্ট, মোহাম্মদ জাকারিয়ার মুদি দোকান, নাজিম উদ্দীনের ফুলের দোকান, প্রবীর চক্রবর্ত্তীর ঘড়ির দোকান ও একটি সঞ্চয় প্রতিষ্ঠানের অফিস। এ সময় পাশ্ববর্তী আরো ৭টি দোকানেরও ব্যাপক ক্ষতি হয় বলে জানা গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ দোকানগুলো হলো কাশেম সওদাগরের চা দোকান, আবদুল নবীর কুলিং কর্ণার, মোহাম্মদুল হকের মুদি দোকান, মোহাম্মদ রাশেদের গ্যাস সিলিন্ডারের দোকান, মোহাম্মদ সুজন ও মোরশেদুল আলমের সার বীজ ও কীটনাশকের দোকান, দিলীপ দেবের পানের দোকান। কুলিং কর্ণার মালিক আলাউদ্দীন জানিয়েছেন, তিনি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে সমপ্রতি দোকানটি চালু করেছিলেন। আগুনে পুড়ে যাওয়ায় তিনি এখন পথে বসে গেলেন।

অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি ও চন্দনাইশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ..ম বদরুদ্দোজা ঘটনাস্থলে যান। এ সময় সাংসদ নজরুল ক্ষতিগ্রস্থ প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানের মালিককে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১০ হাজার টাকা করে প্রদানের ঘোষণা দেন এবং সরকারিভাবে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দেন। ঘটনার পর কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান এবং কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা প্রফেসর ডা. মহসিন জিল্লুর করিমও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

x