দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুত রাঙামাটি প্রশাসন

রাঙামাটি প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১৪ জুন, ২০১৮ at ৫:১৯ পূর্বাহ্ণ
13

লাগাতার বৃষ্টিতে রাঙামাটিতে পাহাড় ধস ও সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবেলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছে প্রশাসন। বৈরী আবহাওয়ায় পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসরত বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করার পাশাপাশি গভীর রাত পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে সরেজমিনে অবস্থান করে জনসাধারণকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে অনুরোধ করেছেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। এবার সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবেলায় সরেজমিন নেমেছে প্রশাসনের যৌথটিম। প্রস্তুত রাখা হয়েছে আশ্রয় কেন্দ্র। অধিক ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় তাঁবু গেড়ে বসানো হচ্ছে জরুরি আশ্রয়কেন্দ্র। এরই মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ ভিটা ছাড়তে শুরু করেছে লোকজন। গিয়ে উঠছে যার যার নিরাপদ জায়গায়। তাছাড়া ঝুঁকিতে থাকা লোকজনকে নিরাপদে সরাতে তৎপরতা জোরদার করেছে স্থানীয় প্রশাসন। জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে জরুরি সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছে। প্রস্তুত রয়েছে ফায়ার সার্ভিস, রোটার‌্যাক্ট ও রেডক্রিসেন্ট স্বেচ্ছাসেবক দল।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক একে এম মামুনুর রশিদ জানান, সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রশাসনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি রয়েছে। শহরে ২১টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণও মজুদ রয়েছে। পাশাপাশি ২০০ তাঁবু বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১৩ জুন ভয়াল পাহাড় ধসের দুর্যোগে রাঙামাটিতে ৫ সেনা সদস্যসহ ১২০ জনের প্রাণহানি ঘটে। আহত হয়েছে প্রায় দেড় শতাধিক। রাস্তাঘাট, সেতু, স্থাপনাসহ তি হয়েছে ব্যাপক।

নানিয়ারচরে নিহত পরিবারগুলোকে জেলা পরিষদ ও প্রশাসন থেকে সহায়তা প্রদান : নানিয়ারচর উপজেলায় পাহাড় ধসে নিহত ১১ জনের প্রত্যেকের পরিবারে রাঙামাটি জেলা পরিষদ থেকে ১০ হাজার টাকা এবং রাঙামাটি জেলা প্রশাসন থেকে ২০ হাজার টাকা ও ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে। রাঙামাটি জেলা পরিষদ সদস্য ত্রিদিব কান্তি দাশ ও নানিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন নিহতের পরিবারের হাতে টাকাগুলো তুলে দেন। এদিকে, নানিয়ারচর উপজেলায় পাহাড় ধসে মাটি চাপায় নিহত ১১জনের সৎকার মঙ্গলবার রাতে সম্পন্ন করা হয়েছে। রাঙামাটিতে তিনদিন পর বৃষ্টি বন্ধ হওয়ায় জনজীবন স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। রাঙামাটিচট্টগ্রাম সড়কে যান চলাচল শুরু হলেও রাঙামাটিখাগড়াছড়ি সড়কে এখনো যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

পাহাড়ি ঢলে বাঘাইছড়ির ১৪ গ্রাম প্লাবিত ও কাপ্তাইয়ে ১৪ স্থানে পাহাড় ধস ঃ টানা বৃষ্টিপাত ও সীমান্ত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে কাচালং নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার ১৪টি গ্রাম সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে। গ্রামগুলো হলো করেঙ্গাতলী, বাঘাইহাট, বঙ্গলতলী, রূপকারী, কদমতলী, তুলাবান, গুচ্ছগ্রাম, মুসলিম ব্লক, ইমাম পাড়া, মাস্টার পাড়া, গুনিয়া পাড়া, সরকার পাড়া, কলেজ পাড়া ও পুরাতন মারিশ্যা। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৬০ হাজার মানুষ। পানিতে তলিয়ে গেছে অনেক কৃষি জমি। পানিবন্দি মানুষ আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়াও বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মার্কেটসহ বিভিন্ন পাকা ভবনে অবস্থান নিয়েছে। এ ব্যাপারে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ জানান, বাঘাইছড়িতে পাহাড়ি ঢলে বেশ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের খোলা আশ্রয় কেন্দ্রে মানুষ আশ্রয় গ্রহণ করেছে। প্রাথমিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ১০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এদিকে, টানা বৃষ্টিপাতে কাপ্তাই উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কমপক্ষে ১৪ জায়গায় পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। তবে কেউ হতাহত হয়নি। কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মাদ রুহুল আমিন বলেন, ভারি বৃষ্টিতে পাহাড় ধসের ফলে কাপ্তাই উপজেলায় কোন প্রাণহানির ঘটনা যাতে না ঘটে সে জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবরকম প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

টানা বর্ষণে জুরাছড়ি প্লাবিত: দুইদিনের প্রবল বৃষ্টিতে জুরাছড়ির সাধারণ জনগণের মনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বৃষ্টির পানিতে জুরাছড়ির রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। ফলে চলাফেরায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা জানান, বিদ্যুৎ না থাকায় তাদের ব্যবসায়িক কাজে অসুবিধা হচ্ছে। অতি বৃষ্টির কারণে মানুষ বাজারে যেতে পারছে না। জুরাছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বুধবার দুদিনের টানা বর্ষণে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেন এবং পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বসবাসরতদের নিরাপদ স্থানে সরে যাবার নির্দেশ প্রদান করেন।

x