দুর্ভোগে লক্ষাধিক মানুষ

সমির মল্লিক, খাগড়াছড়ি

শুক্রবার , ২২ জুন, ২০১৮ at ৯:০৩ পূর্বাহ্ণ
35

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙায় ১০ নং খামার বাড়ি সড়কের সেতু ভেঙে গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে প্রায় ৭০ গ্রামের লক্ষাধিক বাসিন্দা। ধলিয়া খালের উপর নির্মিত প্রায় ২৫০ ফুট দীর্ঘ ব্রিজটি সাম্প্রতিক পাহাড়ি ঢলে ভেঙে পড়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, গত সপ্তাহের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ধলিয়া খালের তীব্র স্রোত তৈরি হয়। এতে ব্রিজের একটি মূল পিলারের মাটি সরে গেলে ব্রিজটি নদীতে ভেঙে পড়ে। এতে একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ লাখো বাসিন্দা দুর্ভোগে পড়েছে।

অনেকে কলার ভেলায় পারাপার করছে। সূত্রে জানা যায়, ২০০১ সালে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের অর্থায়নে ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। তৎকালীন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান যতীন্দ্র লাল ত্রিপুরা ব্রিজের উদ্বোধন করেন। এতে দুই পাড়ের মানুষের দুর্ভোগ লাঘব হয়। বর্তমানে ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ায় দু’পাড়ের মানুষ আবারো দুর্ভোগে পড়েছে। স্থানীয় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, ১৫টি বিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থী প্রতিদিন হেঁটেই বিদ্যালয়ে যাতায়াত করে। কিন্তু ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ায় এখন হেঁটে এসে কলার ভেলায় করে পার হতে হবে। সেতু না থাকলে পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোতের কারণে বর্ষা মৌসুম ছাড়াও শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ রাখতে হবে। শিক্ষার্থীদের মত সত্তর গ্রামে লক্ষাধিক মানুষ কার্যত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকতে হয়।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় কয়েকজন শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসী ধলিয়া খালের উপর হাঁটু সমান পানি পার হয়ে বিদ্যালয়ে ও বাজারে যাচ্ছে। এই ব্রিজটি দিয়ে দলদলী পাড়া, কাঁঠালতলী, রবিচন্দ্র পাড়া, হেডম্যান পাড়া, কার্বারি পাড়া, তক্তমাস্টার পাড়া, হিলছড়ি, রামানন্দ পাড়া, দুলছড়ি, পাপপাড়াসহ প্রায় ৭০ গ্রামের লাখো মানুষের পরিবার যাতায়াত করে।

মাটিরাঙা ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন ইউপি সদস্য মহোনি কুমার ত্রিপুরা বলেন, ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ার পর মানুষের কষ্টের শেষ নেই। গ্রামের কোন ব্যক্তি অসুস্থ হলে কাপড় দিয়ে দোলনা বানিয়ে ভার করে নিয়ে যেতে হয়। এছাড়া পাহাড়ে উৎপাদিত কৃষি পণ্য পারাপার করাও অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

মাটিরাঙা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, সাম্প্রতিক ঢল ও টানা বৃষ্টিতে ব্রিজটি ধসে গেছে। এতে দুই পারের মানুষের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। ব্রিজ না থাকায় ইউনিয়নের দুইটি ওয়ার্ডের প্রায় ৩ মৌজার মানুষজনের চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। জনগুরুত্ব বিবেচনায় দ্রুত ব্রিজের পুনঃনির্মাণের জন্য জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

x