দল বদলের রাজনীতি এবং আত্মস্বার্থ প্রসংগে

বুধবার , ২৮ নভেম্বর, ২০১৮ at ৬:৫১ পূর্বাহ্ণ
65

এবার একদাশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দল বা জোট বদলের যে সব ঘটনা ঘটেছে এবং ঘটছে, এমনটি আগে কখনো ঘটেনি। কতিপয় রাজনৈতিক নেতা যেন লজ্জা-শরমের মাথা খেয়েই পক্ষ বদল করেছেন। কেউ কেউ আজীবন যে নীতি আদর্শের অনুসারী ছিলেন এবং সে আদর্শের বাণী প্রচার করতেন তিনি এবার গিয়ে অবস্থান নিয়েছেন সে আদর্শের একেবারে বিপরীত মেরুতে। এসব দল বদলে যে আত্মস্বার্থ প্রধান কারণ হিসেবে কাজ করে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। অবশ্য দল বদলকারী নেতারা বলে থাকেন যে, মতের মিল না হওয়ায় এবং দেশ, জাতি ও গণতন্ত্রের স্বার্থে তিনি বা তারা পূর্বতন দল ত্যাগ করে নতুন দলে যোগ দিয়েছেন। দল ত্যাগের সাথে সাথে তাদের আদর্শ ও পরিবর্তিত হয়ে যায়। আগে ছিলেন বাঙালি জাতীয়তাবাদের পূজারি, তিনি বনে যান বাঙালি জাতীয়তাবাদের প্রবক্তা। আর বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের তত্ত্ব প্রচার করতে করতে যিনি এতোদিনে অনেক ঘাম শরীর থেকে ঝরিয়ে ফেলেছেন তিনি হয়ে যান বাঙালি জাতীয়তাবাদের কট্টর সমর্থক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে যিনি পিতা জ্ঞানে শ্রদ্ধা করতেন, তিনি তখন জিয়াউর রহমানকে তার আদর্শিক নেতা হিসাবে মাথায় তুলে নাচতে শুরু করেন। উল্টো পিঠে যিনি জিয়াউর রহমানকে তার জীবনের একমাত্র আদর্শ বলে উচ্চ কন্ঠে প্রচার করতেন তিনি চোখের পলকে হয়ে যান বঙ্গবন্ধুর একনিষ্ঠ ভক্ত। এ যেন ভোজবাজীর খেলা। চোখের পলকে নীতি আদর্শ সব পাল্টে যায়, বদলে যায় রাজনৈতিক গন্তব্য। শ্রদ্ধা নিবেদনের স্থানও যায় বদলে! ফুলের তোড়া হাতে এতদিন যিনি ক্রিসেন্ট লেকের উত্তর পাড়ে, তিনি ছুটতে থাকেন গোপালগঞ্জের টু্‌ঙ্গী পাড়ার দিকে। এ ধরনের দল বদল একেবারে অভিনব নয়। নানা কারণে একেক জন দল বদল করে থাকেন। তবে, সে কারণগুলোর মধ্যে আত্মস্বার্থই মুখ্য। দেশ ও জাতির স্বার্থ গৌণ। রাজনীতিকদের অবস্থান বা দলবদল সম্পর্কে দেশের বিশিষ্টজনেরা যে সব মন্তব্য করেছেন তা প্রণিধানযোগ্য। তারা মনে করেন, দেশের রাজনীতি থেকে নীতি আদর্শ বিতাড়িত হয়েছে, এটা তারই প্রতিফলন। যে কোনো মূল্যে ক্ষমতায় যেতে হবে, সংসদ সদস্য হতে হবে। এটাই আসল কথা। তাদের মতে রাজনীতিবিদদের নিজের পায়ে দাঁড়ানোর শক্তি নেই। নেই নিজের ওপর আস্থা। বিশিষ্ট জনদের অভিমত থেকে রাজনৈতিক নেতাদের সাম্প্রতিক দল বা জোট বদলের অন্তর্নিহিত কারণটি আর অস্পষ্ট থাকার কথা নয়।

এম. এ. গফুর, বলুয়ার দীঘির দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়, কোরবাণীগঞ্জ, চট্টগ্রাম।

x