দলকে আরো শক্তিশালী করতে সম্মেলনসহ নানা পরিকল্পনা

বৃহত্তর চট্টগ্রামের চার মন্ত্রীকে সংবর্ধনা ২৫ জানুয়ারি।। নগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা

আজাদী প্রতিবেদন

শনিবার , ১২ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৩৫ পূর্বাহ্ণ
474

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় আগামী ২৫ জানুয়ারি লালদীঘি মাঠে বৃহত্তর চট্টগ্রামের চার মন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভায় নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, কাউন্সিল করে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এবং থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করব। একেবারে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সম্মেলন করে নেতৃত্ব নির্বাচন করব। ইউনিট পর্যায় থেকে সম্মেলন শুরু হবে।
গতকাল শুক্রবার বিকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনি এ কথা বলেন। মেয়র বলেন, অনেকে পদ-পদবী নিয়ে বছরের পর বছর বহাল তবিয়তে থেকেও বিনা কারণে, বিনা নোটিশে সভায় আসেন না। এখন থেকে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নিয়মিত কার্যকরী কমিটির সভা করতে হবে। বিনা কারণে, বিনা নোটিশে কমিটির কেউ পরপর তিনবার অনুপস্থিত থাকলে তার পরিবর্তে অন্য আরেকজনকে কো-অপ্ট করেন। তাহলে দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে। কেউ আর পদ-পদবী নিয়ে সভায় অনুপস্থিত থাকবে না।
নাছির বলেন, আওয়ামী লীগের পাশাপাশি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোকেও শক্তিশালী করতে হবে। নতুন কমিটির ব্যাপারে কেন্দ্রের সাথে আলোচনা করা হবে। সাংগঠনিক ভিত্তি, শৃঙ্খলা ও ঐক্য রক্ষায় তৃণমূল স্তর থেকে দলকে সংগঠিত করার প্রচেষ্টায় নিবেদিত নেতাকর্মীদের সক্রিয় উদ্যোগ ও অবদান থাকতে হবে। ৩০ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক বিজয়ে যে সাফল্য অর্জিত হয়েছে তা দলীয় ঐক্যের তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম নগরীতে জলাবদ্ধতা, যানজট নিরসনসহ কিছু নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে সেবাদানকারী সরকারি ও স্থানীয় সরকার এবং স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।
বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি বলেন, সমন্বয় এবং ঐক্য দল, দেশ ও জাতির জন্য কল্যাণ বয়ে আনতে পারে। এ সমন্বয় হবে স্থানীয়ভিত্তিক মতামতের ভিত্তিতে। এ মতামত নিয়েই আমি স্থানীয় সমস্যাগুলোর সমাধানে সংসদে কথা বলব। সম্প্রতি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আপনারা তৃণমূল থেকে সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্তরা দলকে ক্ষমতাসীন করায় আপনাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।
সভাপতির বক্তব্যে মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ী শক্তি। এ শক্তির বিনাশ নাই। তবে আমাদের কিছু সাংগঠনিক দুর্বলতা আছে। এগুলো কাটিয়ে উঠতে হবে।
সভায় মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. আফছারুল আমীন বলেন, নির্বাচনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক নেতৃত্ব যে দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে, তা দলের জন্য মঙ্গল বার্তা বয়ে এনেছে। এ বার্তা ধারণ করে সংগঠনকে তৃণমূল স্তর থেকে শক্তিশালী করার জন্য যেকোনো উদ্যোগে আমি সহযোগিতা করে যাব।
মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেন বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আলম, পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আসলাম হোসেন, মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি বখতিয়ার উদ্দিন খান, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এইচ এম জিয়াউদ্দিন, উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের ইকবাল চৌধুরী, ফরিদ আহমদ চৌধুরী, শামসুল আলম, মো. গিয়াস উদ্দিন, শেখ সরওয়ার্দী, আবদুল মান্নান, মহানগর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী, বদিউল আলম, শফর আলী, শেখ মাহমুদ ইছহাক, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আবদুচ ছালাম, নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, হাসান মাহমুদ শমসের, অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আহমেদুর রহমান ছিদ্দিকী, হাজী জহুর আহমদ, হাজী মো. হোসেন, আবদুল আহাদ, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, দিদারুল আলম চৌধুরী, আবু তাহের, শহিদুল আলম, জহরলাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য আবুল মনসুর, কামরুল হাসান ভুলু, হাজী মো. ইয়াকুব, শেখ শহিদুল আনোয়ার, নুরুল আবছার মিয়া, সৈয়দ আমিনুল হক, ইঞ্জিনিয়ার বিজয় কিষাণ চৌধুরী, জাফর আলম চৌধুরী, মহব্বত আলী খান, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, আহমদ ইলিয়াছ, অমল মিত্র, আবদুল লতিফ টিপু, ড. নেছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, থানা আওয়ামী লীগের হাজী শফিকুল ইসলাম, হাজী ছিদ্দিক আলম, হাজী মো. ইছহাক, মোমিনুল হক, কাজী আলতাফ হোসেন, আনছারুল হক, শফিউল আলম ছগির, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কে বি এম শাহজাহান, মহানগর যুবলীগের দেলোয়ার হোসেন খোকা, মাহবুবুল হক সুমন, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু। সভায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়।

x