দখলকৃত খালের জায়গা ছেড়ে না দিলে জলাবদ্ধতা নিরসন হবে না

পাথরঘাটা ওয়ার্ড পরিদর্শনে সিডিএ চেয়ারম্যান

শনিবার , ১১ আগস্ট, ২০১৮ at ৪:৩২ পূর্বাহ্ণ
71

অবৈধভাবে দখল করা খাল উদ্ধার ছাড়া চট্টগ্রাম মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন ‘অসম্ভব’ বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম। তিনি বলেন, পাথারঘাটা কলাবাগিচা থেকে শুরু হয়ে কর্ণফুলীর সঙ্গে মিশে যাওয়া প্রায় এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মনোহরখালী খালের দুই পাশের জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে সেমিপাকা ও কাঁচা বাড়ি। সেখানেই ফেলা হয় গৃহস্থালির বর্জ্য ও ময়লা আবর্জনা। এ যেন নিজেরাই মনোহরখালীকে অনেকটা গলাটিপে হত্যা করেছি। দখল আর দূষণে অনেক জায়গায় খালের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। অথচ এক সময় এ খাল দিয়ে চলাচল করতো সাম্পান আর নৌকা। গতকাল শুক্রবার বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ৩৪নং পাথরঘাটা ওয়ার্ড এলাকায় মরিয়ম বিবি, কলাবাগিচা ও মনোহর খালী, সোবানিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন খাল, নালা ও ড্রেন পরিদর্শনকাল তিনি এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন।

তিনি মহানগরীকে জলাবদ্ধতা মুক্ত করতে এবং চট্টগ্রামবাসীর স্বার্থে জবরদখলকৃত খাল, নালার জায়গা ছেড়ে দেয়ার আহ্বান জানান। খালের জায়গা খালকে ছেড়ে দিলে পানির প্রবাহ গতিশীল হবে, এতে নগরীর জলাবদ্ধতা সমস্যা চিরতরে দূর হয়ে যাবে বলেন মন্তব্য করেন তিনি। সিডিএ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে খাল পুনঃ খনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন’ প্রকল্পের আওতায় জলাবদ্ধতার প্রকৃত সমস্যা চিহ্নিতকরণে পর্যায়ক্রমে নগরীর ৪১ ওয়ার্ডের বিভিন্ন খাল, নালা, ছড়া পরিদর্শন এবং জনমত সংগ্রহ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। তারই অংশ হিসেবে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের কর্মকর্তা, পরামর্শক ও সিডিএ’র প্রকল্প পরিচালকদের সঙ্গে নিয়ে তিনি পায়ে হেঁটে সরেজমিনে এসব এলাকা পরিদর্শন করেন।

এসময় ৩৩, ৩৪, ৩৫ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর লুৎফর নেসা দোভাষ বেবী, মো. লেদু মেম্বার, সমিরন বিকাশ বড়ুয়া, মিলন চক্রবর্তী, চারুনী সেন, মো. শাহজাহান, ইসমাইল আজাদ, অধির দাশ, পরিক্ষীত দাশ, সুভাষ দাশ, উত্তম দাশ, সুমন দাশ, প্রবীর দাশ, জনি দাশসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x