দক্ষিণ কাট্টলী গ্রামের রানী রাসমনি ঘাটের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করা হোক

মঙ্গলবার , ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ
26

চট্টগ্রাম জেলার পাহাড়তলী থানার অর্ন্তগত ১১ নং ওয়ার্ড সিটি কর্পোরেশন অর্ন্তভুক্ত দক্ষিণ কাট্টলী গ্রাম। এই গ্রামের পশ্চিম দিক বঙ্গোপসাগর দ্বারা বেস্টন করে আছে। যা পরম করুণাময় থেকে পাওয়া। এই সাগরের পাশ ঘেষে চার লেইন বিশিষ্ট এক রাস্তা তৈরি হচ্ছে। যা বিএনপি আমলে দিয়ারা জরিপ নামে একটি জরিপ চালিয়েছিল। যা অতীতে তারেক জিয়া নিজস্ব বন্দর তৈরি করতে চেয়েছিল। কিন্তু উনি সেটি তৈরি করতে পারেন নি। বঙ্গোপসাগরের পূর্বদিক এত সুন্দর যে না দেখলে তা নয় বরং সৌন্দর্য্যের দিক দিয়ে পরম করুণাময় ঢেলে দিয়েছেন।
আমরা বাঙালি জাতি সৌন্দর্য্য বলতে কিছুই চিনি না। ডাবের খোসা যদি নালায় পড়ে পানি চলাচলের পথে বিঘ্ন ঘটায়। আমরা যদি সাথে সাথে ডাবের খোসা তুলতে পারতাম তাহলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হতো না। এজন্য সৌন্দর্য্যটা নজরে পড়তেছে না। বঙ্গোপসাগরের পূর্ব পাশটা যদি পর্যটন করে বিদেশীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করি তাহলে আমাদের আয়ের উৎসটা বেড়ে যাবে। দেশ হবে স্বচ্ছল। উন্নয়নের অগ্রদূত।
রানী রাসমনি ঘাটে অতীত থেকে বারুণী হয়ে আসতেছে। অর্থাৎ বারুনীর স্নান। যেখানে দূর-দূরান্ত থেকে আসা লক্ষ লক্ষ মানুষ বঙ্গোপসাগরে পুণ্যার্থী হয়ে স্নান করে। সেখানে আমরা সৌন্দর্য্যের স্থান বৃদ্ধি করতে পারি না। পরিশেষে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাব রানী রাসমনি ঘাট হোক পর্যটনের সৌন্দর্য্যের মূল চাবিকাঠি। উন্নয়ন হোক দেশ।
-রাজীব হোড় (রাজু), যুধিষ্ঠির মহাজন বাড়ি, দক্ষিণ কাট্টলী, চট্টগ্রাম।

x