তৃতীয় আন্তর্জাতিক সুফি সঙ্গীত উৎসব

ইয়াসমিন ইউসুফ

বৃহস্পতিবার , ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ at ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ
28

সুর-তাল-লয়, এসব মানুষের হৃদয়কে মথিত করে, দোলায়, আনন্দ ও প্রশান্তি দেয়। সেই সুরের সমাহার সঙ্গীতের আবেশ ছড়িয়ে সম্প্রতি চট্টগ্রামে শেষ হয়েছে তৃতীয় আন্তর্জাতিক সুফি সঙ্গীত উৎসব। জীবনের সাথে সঙ্গীত গভীরভাবে যুক্ত বলেই হয়তো উৎসবের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারণ করা হয় “জীবনের জন্য সঙ্গীত”। দু’দিন ব্যাপী আয়োজিত এ উৎসবের সুর-মূর্ছনায় উপস্থিত দর্শক এক অপার আনন্দ নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সম্প্রতি এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম মাঠে হাটখোলা ফাউন্ডেশন আয়োজিত এ উৎসবের প্রথম দিন জনসমাগম কিছুটা কম হলেও দ্বিতীয় দিনে ছিল উপচে পড়া ভিড়।
উৎসবের প্রথম দিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি, সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও উৎসব উদযাপন কমিটির সভাপতি আলহাজ্জ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন, বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারতীয় হাই কমিশন চট্টগ্রাম-এর সহকারী হাই কমিশনার অনিন্দ্য ব্যাণার্জী। শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন হাটখোলার সাধারণ সম্পাদক ও উৎসব উদযাপন কমিটির সদস্য-সচিব কবি ইউসুফ মুহম্মদ। অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন মহামান্য রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, শেখ রবিউল হক, জহিরুল আলম, মো. দাউদ আবদুল্লাহ লিটন, মো. কামাল হোসেন, মো. আনোয়ার হোসেন, মোহাম্মদ মামুন প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, সঙ্গীত মানুষকে প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ করে এবং দেশকে সংঘাত ও জঙ্গীবাদ মুক্ত রাখতে নিয়ামকের ভূমিকা পালন করে থাকে। তাছাড়া মানুষকে উদার, মানবিক, সহমর্মী ও সহানুভূতিশীল করে তোলে। নিজেদের স্পন্সরে সুফি শিল্পী প্রেরণ করায় আয়োজক প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ভারতীয় হা্‌ই কমিশন, আই সি সি আর ও ইরান কালচারাল সেন্টারকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। এ উৎসবে অকুণ্ঠ সমর্থন, সহযোগিতা ও অংশিদারিত্বের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রতি।
উৎসবের প্রথম দিন লোক সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী ইকবাল হায়দার, কলকাতার ঝুমুর সঙ্গীত শিল্পী আত্রেয়ী মজুমদার, ফারজানা করিম ও তাঁর দল, ইরানের দল খালাফ গোসি, শিল্পী সন্দীপন। নৃত্য পরিবেশন করেন মিশরের সুফি তানুরা শিল্পী মোহামেদ গারেব যা ছিল চট্টগ্রামের মানুষের জন্য অভূতপূর্ব।
দ্বিতীয় দিন সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী দীপঙ্কর দে, কুষ্টিয়ার বাউল রাজ্জাক, বাউল রেখা শবনম, সিলেটের ক্ষেপা বাউল, বাউল বিরহী কালা মিয়া, ঢাকার সুফি শিল্পী হাসান শিহাবী। অসাধারণ উপস্থাপনা নিয়ে দর্শক মাতিয়েছেন ভারতের খ্যাতিমান সুফি শিল্পী কবিতা শেঠ ও তাঁর দল।
সঙ্গীতের ফাঁকে ফাঁকে শিল্পী, কলাকুশলী, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, ওয়াসা ও সহযোগীদেরকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও সুফি সঙ্গীত উৎসব সম্পর্কে মতামত ব্যক্ত করেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সলাম ও হাটখোলা ফাউন্ডেশনের সভাপতি সৈয়দ শফিক উদ্দিন আহমেদ।

x