তারুণ্যের প্রথম ভোট

রতন বড়ুয়া

সোমবার , ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৬:১৪ পূর্বাহ্ণ
386

রোববার (৩০ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো দেশের বহুল আলোচিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সাধারণ মানুষের পাশপাশি এ নির্বাচনে ভোট দিতে অধীর অপেক্ষায় ছিলেন দেশের তরুণ প্রজন্ম। তবে প্রথমবারের মতো ভোটার হওয়া তরুণদের মাঝেই ভোট নিয়ে উচ্ছ্বাসটা ছিল বেশি। উৎসবের আমেজে ভোটদানের অপেক্ষায় ছিলেন তারা। ভোট গ্রহন শুরুর পর গতকাল সকাল থেকেই চট্টগ্রামের বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে তরুণ প্রজন্মের উপস্থিতি দেখা গেছে। যদিও কিছু কিছু কেন্দ্রে তরুণ ভোটারের উপস্থিতি ছিল হাতে গোনা। জীবনে প্রথমবার ভোট দিয়ে অনেকেই নিজের অনুভূতি প্রকাশ করেছেন। সন্ধ্যায় মোবাইল ইন্টারনেট সেবা পুনরায় চালু হওয়ার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেসবুকেও সরব হয়ে ওঠেন তাঁরা। ‘তারুণ্যের প্রথম ভোট’ লিখে কালির দাগ অঙ্কিত আঙ্গুলের ছবি পোস্ট করতে দেখা গেছে অনেককেই। অনেককে আবার কেন্দ্রে গিয়ে প্রথম ভোট দিতে না পারার আক্ষেপও প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী- এ নির্বাচনে সারাদেশে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ১০ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার ৪৮০ জন। এর মধ্যে ১৮ থেকে ২৮ বছর বয়সী ভোটারের সংখ্যা মোট ভোটারের প্রায় ২২ শতাংশ। যারা তরুণ ভোটার হিসেবেই পরিচিত। আর এসব তরুণ ভোটারের মধ্যে প্রায় ১ কোটি ২৩ জন ভোটার এবারই প্রথমবার ভোট ্রদানের সুযোগ পেয়েছে।
নেহলীন হক, প্রথমবার ভোট দিয়েছেন এবার। নগরীর একটি কলেজে অনার্স ৪র্থ বর্ষের এই শিক্ষার্থী চট্টগ্রাম-১০ আসনের ভোটার। বাবার সাথে গতকাল সকাল ৯টার দিকেই লালখান বাজার কেন্দ্রে ভোট দিতে যান তিনি। প্রথমবার ভোট দিয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত এই শিক্ষার্থী। অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে নেহলীন আজাদীকে বলেন- প্রথমবার ভোট দেওয়া। একটু অন্যরকম ফিলিংস কাজ করেছে। ভোট ভালোভাবেই দিতে পেরেছি। কোন সমস্যা হয়নি। উন্নয়নের পাশাপাশি সামপ্রদায়িকতা ও দুর্নীতিমূক্ত বাংলাদেশ দেখতে চান বলেও জানালেন তারুণ্যের এই প্রতিনিধি।
নেহলীন হকের মতো প্রথমবার ভোট দিয়েছেন শ্রাবনী বড়ুয়া (বিথী)। অনার্স পড়ুয়া এই শিক্ষার্থীর গ্রামের বাড়ি বাশঁখালী। ভোট দিয়ে সারাদিন অনুভূতি প্রকাশ করতে না পারলেও মোবাইল ইন্টারনেট চালু হওয়ার পরপরই ফেসবুকে ছবি পোস্ট করেন বিথী। ভোটের কালি অঙ্কিত আঙ্গুলের ছবি দিয়ে ফেসবুকে তিনি লিখেছেন ‘তারুণ্যের প্রথম ভোট।’
প্রথমবার ভোট দিয়ে সাদ্দাম হোসেন নামের অপর এক তরুণ ফেসবুকে লিখেছেন- ‘নিজের ভোট দিতে পারবো কিনা একটু সংশয়ে ছিলাম। তবে প্রথমবার নিজে ভোট দিতে পেরে খুশি লাগছে।
তবে কেন্দ্রে গিয়েও নিজের ভোট দিতে না পারায় হতাশা ও আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন নাজিম উদ্দিন নামের এক তরুণ। তিনি বলেন- বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রে যাই। গিয়ে শুনি, আমার ভোট নাকি দেওয়া হয়ে গেছে। তাই ভোট না দিয়েই চলে আসতে হয়েছে। অনেক আশা করে জীবনে প্রথমবার ভোট দিতে কেন্দ্রে যান জানিয়ে এই তরুণ বলেন- প্রথম ভোটটি দিতে পারলে ভালো লাগতো। কিন্তু দিতে পারিনি। তাঁর মতো আরো অনেকেই নিজের ভোট দিতে পারেনি বলেও জানায় নাজিম।

x