তাপস চক্রবর্তীর কবিতা

শুক্রবার , ২২ মার্চ, ২০১৯ at ৭:১৭ পূর্বাহ্ণ
78

শব্দ চাই যুদ্ধ নয়
কবি চাইলেন শব্দ আমি দিলেম নোনাঝরা সমুদ্র
তারপর সন্ধ্যে ঘনিয়ে এলো–আবিরে মত্ত সন্ধ্যা।

সমুদ্রের ঝড় শব্দের কলতানে মুগ্ধ কবি
কে একজন বললেন চল ফিরে যাই–মহাভারতে।
আদিম আলোরা জেগে উঠলো-
জেগে উঠলো কুরু পাণ্ডব কুরুক্ষেত্র।
তারপর…
মহামতি ভীষ্ম শরশয্যায় ক্লান্ত–শ্রান্ত পাণ্ডব।

কবি চিৎকার করে শুধু বললেন–
শব্দ চাই যুদ্ধ নয়।
মনোটোনাস

মনোটোনাস হতে হতে কবি খুঁজলেন
মৃতগর্ভের লালিত মেয়ে
জলের পোকা
এবং রজস্বলার রক্ত সিনান।

অথচ জটিল সমীকরণ বৃক্ষ ও মানুষ
মানুষ ও বৃক্ষ
কতিপয় পাতা ঝরার গান।

তবুও বললেন কবি
পৃথিবীর চেয়ে মতৃগর্ভ নিরাপদ।

অথচ কবি ভুলে গেলেন–
শিশুর উর্বরতায় ছুঁয়ে আসা মাতৃগর্ভ
শুধু ভেসে উঠলো বালুকাবেলা সমুদ্রস্নান
কতিপয় সূত্রে জানান দেয় মধ্যবয়স শুধু কান্না
এবং প্রহসন।

ঈশ্বর সমীপে
ঈশ্বর ঘুমোচ্ছেন-ঘুমোচ্ছে ঈশ্বর
তৈলাক্ত বাঁশ-বাঁশের ফাঁদে স্বয়ং ঈশ্বর
সিরিয়ায় বিভৎস সঙ্গম
বোসনিয়া বার্মা তালেবান হয়ে ভাসে শিশুর ক্রন্দন
শিশু নাকি দেবতা-দেবতাও নাকি শিশু

মর্মর ক্রন্দন শুধু ঝরাপাতায়
নন্দনতত্ত্বে বিনিয়োগ করেন বুর্জোয়া ঈশ্বর-
তাই ঈশ্বর ঘুমোচ্ছেন-ঘুমোচ্ছে ঈশ্বর
তোষকে তৈজসপত্তরে ঘুমোচ্ছে ছারপোকা
তবুও নাকে সরিষার তৈল
তৈলাক্ত ঈশ্বর

রক্তটা আবির হচ্ছে
আবিরটা রক্ত
সন্ধ্যাটা রক্তের
দুপুরটাও রক্তে
রক্তে পিচ্ছিল ব্যস্ত উঠান

কমলা রোদে রক্ত
কমলার কোঁয়ায় রক্ত
রক্তাক্ত হচ্ছে পৃথিবীর সংসার
আপেলের গল্পটা ধ্বংসের
ধ্বংসটা মত্ত এখন উল্লাসে
উল্লাস

যদিও তুমিই লতা বল সংসার সমরাঙ্গণ

তবুও এসো লদাঁহে গাহি সবুজের গান
অবুজ মন-মেনেছি
তবুও এসো যুদ্ধটা থামাই।

x