‘তাজউদ্দীন সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের অপূর্ব মিশেল’

জন্মবার্ষিকীতে নানা আয়োজন

বুধবার , ২৪ জুলাই, ২০১৯ at ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ
53

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাস চর্চায় ব্যক্তিপূজার অন্ধ আনুগত্য ঠেলে নির্লোভ, নিরহংকারী এবং নিষ্ঠাবান মানুষদের খুঁজে বের করা এক কঠিন কাজ। কারণ আমাদের রাজনৈতিক ইতিহাসে মেধা-প্রজ্ঞা-সততা আর সংগ্রামের মিশেলে এরকম রাজনীতিকদের সংখ্যা খুব বেশি নয়। বিপরীত স্রোতে চলা লক্ষ্যভেদী তাজউদ্দীন আহমেদ ছিলেন এই বিরলপ্রজ রাজনীতিকদের একজন। তিনি ছিলেন সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের এক অপূর্ব মিশেল। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলা আয়োজিত স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদের ৯৪তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরীর পল্টন রোডস্থ সাবেক মন্ত্রী জহুর আহমদ চৌধুরীর বাসভবনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এসময় মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী আরো বলেন, রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও কঠোর আত্মপ্রত্যয়ী মনোভাবের কারণেই তাজউদ্দীন আহমেদ পরিণত হয়েছিলন একজন আপোষহীন নেতায়। সত্তরের দশকে আওয়ামী লীগ যে এদেশের সিংহভাগ মানুষের ব্যাপক জনপ্রিয় রাজনৈতিক সংগঠনে পরিণত হয়েছিল তার পেছনে বঙ্গবন্ধুর সম্মোহ নেতৃত্বের পাশাপাশি ছিল তাজউদ্দীন আহমদের সাংগঠনিক কর্মধারা।
সভাপতির ভাষণে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি অনুপ বিশ্বাস বলেন, তাজউদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বের আর এক বড় গুণ হল অনুপস্থিত নেতা বঙ্গবন্ধুর অবিসংবাদী অবস্থান কখনো খাটো হতে না দেয়া। মুক্তিযুদ্ধের মতো পরিস্থিতিতে এককভাবে নেতৃত্বের সুযোগ পেলেও তিনি নিজের কোনো প্রবল প্রতাপান্বিত ভাবমূর্তি গড়ে উঠতে দেননি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় বঙ্গবন্ধু শারীরিকভাবে অনুপস্থিত থাকলেও তাজউদ্দীন আহমদের দূরদর্শী নেতৃত্ব সেই অভাব অনুভূত হতে দেয়নি। স্বাগত বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম বলেন, তাজউদ্দীন আহমেদ জাতির জনকের মতোই সহজ-সরল ও সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। তার ব্যক্তিগত ডায়েরি বাঙালি জাতির রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অমূল্য সম্পদ।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সাংস্কৃতিক সম্পাদক কবি সজল দাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত জন্মবার্ষিকীতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু, নগর যুবলীগের সদস্য সুমন দেবনাথ, জোটের যুগ্ম সম্পাদক মাসুদ উদ্দিন হামেদ নেওয়াজ, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. টিপুশীল জয়দেব, সংস্কৃতিকর্মী হানিফুল ইসলাম হানিফ, কিশোর হাবিবুর রহমান, চৌধুরী জসিমুল হক, আবু নাঈম মোহাম্মদ শাহেদ, সজীব দাশ, শ্রাবণী দে, আফরোজা বেগম শেলী, লাকী আক্তার, পলাশ কুমার দেব, মো. ইসমাইল, আবু তৈয়ব, ছিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।
বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চারনেতা স্মৃতি পরিষদ : স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদের জন্মদিন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চারনেতা স্মৃতি পরিষদ আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। এরই অংশ হিসেবে গতকাল মঙ্গলবার বাদ জোহর কদম মোবারক এতিমখানায় দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সহ-সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, প্রধান আলোচক ছিলেন অধ্যক্ষ ফজলুল হক। আলোচনা করেন সংগঠনের সভাপতি প্রফেসর ড. জিনবোধি ভিক্ষু, কার্যকরী সভাপতি মোহাম্মদ জহির, সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুর রহিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ নেওয়াজ, স ম জিয়াউর রহমান, রাশেদ মাহমুদ পিয়াস, জয় বিশ্বাস প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, তাজউদ্দীন আহমেদ ছিলেন একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক নেতা, যার একমাত্র গুণ ছিল সততা ও বিশ্বস্ততা। তিনি জীবন দিয়ে প্রমাণ করেছেন লোভ-প্রলোভন ও ক্ষমতা তার কাছে অতি তুচ্ছ। তাঁর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে বর্তমান ও আগামী প্রজন্মকে দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানান বক্তারা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x