ঢাকা টেস্টে মান বাঁচানোর প্রস্তুতি টাইগারদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ৮ নভেম্বর, ২০১৮ at ৮:২৬ পূর্বাহ্ণ
60

ম্যাচের শিডিউল অনুযায়ী গতকাল পর্যন্ত বাংলাদেশ এবং জিম্বাবুয়ে দুদলেরই থাকার কথা ছিল সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। কারণ গতকাল ছিল সিলেট টেস্টের শেষ দিন। গতকালও দুদল ছিল সিলেটে। কিন্তু মাঠে ছিল না জিম্বাবুয়ে। কারণ একদিন আগেই যে, সিলেট টেস্ট জিতে নিয়েছে জিম্বাবুয়ে। ফলে তারা হোটেলে সময় পার করেছে বিশ্রাম নিয়ে। অপরদিকে বাংলাদেশ দল ছিল মাঠে। তবে সেটা টেস্ট ম্যাচে নয়। নিজেদের অনুশীলনে। সিলেটে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে মাত্র সাড়ে তিন দিনেই হেরে গিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তাই ম্যাচের পঞ্চম দিন তথা বুধবার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঐচ্ছিক অনুশীলনে নামবে স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটাররা। আজ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় টেস্ট খেলার উদ্দেশে ঢাকায় ফিরে আসবে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক জানিয়েছেন যেহেতু একদিন আগে টেস্ট ম্যাচ শেষ হয়ে গেছে সেহেতু দলেল সদস্যরা অনুশীলন সেরে নিয়েছে। কারণ তাদের সামনে এখন কঠিন চ্যালেঞ্জ। সিরিজ বাঁচাতে হলে ঢাকায় জয়ের কোন বিকল্প নেই।
ওয়ানডে সিরিজে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করলেও প্রথম টেস্টে একেবারে ভিন্ন চেহারার এক বাংলাদেশকে দেখল সমর্থকরা। এ কেমন বাংলাদেশ। এ কেমন টেস্ট ক্রিকেট। এ কেমন ব্যাটিং। এ রকম হাজারো প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ দলের এই হারকে ঘিরে। যে দলটি এক বছরেরও বেশি সময় টেস্ট ক্রিকেট খেলেনি, সে দলটির কাছেই কিনা এমন হার মেনে নিতে পারছেনা বাংলাদশ দলের কেউই। আর টাইগারদের ব্যাটিং এপ্রোচ দেখেও হতাশ টাইগার সমর্থকরা। জিম্বাবুয়ের মত দলের বিপক্ষে একটি ইনিংসেও দুইশ রান করতে না পারা বড় লজ্জার। তারমধ্যে আবার এক ইনিংসে দেড়শও করতে পারেনি। তাই প্রশ্ন উঠেছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা কি তাহলে ব্যাটিং ভুলে গেছে? নাকি জিম্বাবুয়ের বোলাররা এমন বোলার হয়ে গেছে যে, তাদের খেলা যায় না।
সিলেটে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টের একাদশ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে বিস্তর। এক পেসার খেলানো নিয়ে সকলের তোপের মুখে পড়েছেন নির্বাচকরা। তাছাড়া অনেকেরই প্রত্যাশা ছিল সিলেট টেস্টের একাদশে অন্তত মোহাম্মদ মিথুন জায়গা পাবেন। কিন্তু সেটা হয়নি। বারবার সুযোগ দেওয়ার পরও সেটার সঠিক ব্যবহার করতে পারছেন না নাজমুল হোসেন শান্ত। কিন্তু তাকে দলে নেওয়াটা জন্ম দিয়েছে প্রশ্নের। সঙ্গত কারণেই এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে দ্বিতীয় টেস্টের একাদশ নিয়ে নতুন করে নির্বাচকরা ভাববেন কিনা। কিংবা স্কোয়াডে দেখা যাবে কিনা নতুন কাউকে। তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানিয়েছেন, এমন কোনো আভাস আপাতত নেই। স্কোয়াডে যারা আছে তাদের নিয়েই ঢাকা টেস্টে খেলবে দল। তবে ঢাকায় এসে আবার আলোচনা করে নতুন কাউকে নেয়া হতেও পারে। তিনি জানান আমি এটুকু বলতে পারি এখনো পর্যন্ত তেমন কোনো আলোচনা হয়নি।
তবে ঢাকা টেস্টটা এখন বাংলাদেশের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঢাকা টেস্টে জিম্বাবুয়ে নামবে একেবারে চাপ মুক্ত হয়ে ফুরফুরে মেজাজে। আর বাংলাদেশকে নামতে হবে বিশাল এক চাপ নিয়ে।কারণ সিরিজে এগিয়ে থেকে যেখানে মাঠে নামবে জিম্বাবুয়ে, সেখানে বাংলাদেশকে নামতে হবে সিরিজ হারের ভয় নিয়ে। তাছাড়া এই ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে না জিতলেও চলবে। কোন রকমে ড্র করতে পারলেই সিরিজ জিতবে তারা।
অপরদিকে বাংলাদেশ দলের সামনে সে রকম কোন সুযোগ নাই। স্বাগতিকদের সিরিজ জয়ের সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেছে। এখন সিরিজ বাঁচানোর জন্য লড়াই করতে হচ্ছে স্বাগতিকদের। আর তাই পরের টেস্টে জয়ের কোন বিকল্প নেই মাহমুদুল্লাহ-মুশফিকদের। আর ঢাকায় জিততে হলে দলের ব্যাটসম্যানদের খেলতে তাদের সেরাটা। কারণ জিম্বাবুয়ে চাইবে যতবেশি সময় পার করে দিতে পারে। কারণ তাদের জন্য জয় নয় ড্র টাই এখন মুখ্য। এমন কঠিন পরিস্থিতিতে সিরিজ হার এড়াতে বাংলাদেশ কতটা ঘুরে দাঁড়াতে পারে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

x