ঢাকায় প্রশংসিত হয়েছে সিআইইউর শিক্ষক রোবাকার গবেষণাপত্র

সোমবার , ৭ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৮:৪৫ অপরাহ্ণ
367

ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ অ্যাকাডেমি অভ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের দুই দিনব্যাপী তৃতীয় দ্বৈত সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রশংসিত হয়েছে চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি(সিআইইউ)-এর মার্কেটিং বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহযোগী অধ্যাপক ড. রোবাকা শামসের-এর গবেষণাপত্র।

ভোক্তাদের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ক্রেতা সন্তুষ্টি নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়ে বাংলাদেশের প্রচলিত সুপার মার্কেটের ওপর চমৎকার কিছু দিকনির্দেশনা তুলে ধরেন তিনি।

গত ৫ ও ৬ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্টাডিজ ফ্যাকাল্টিতে এই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে দেশের প্রখ্যাত ব্যবসায়ী, সরকারি- বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস অনুষদের শিক্ষকবৃন্দ ও তরুণ উদ্যোক্তারা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে ড. রোবাকা শামসের-এর গবেষণাপত্রের বিষয় ছিল ‘ইনফ্লুয়েন্স অভ স্টোর ইমেজ অন স্টোর লয়েলটি ইন দি সুপার মার্কেট কনটেক্সট অভ বাংলাদেশ’।

যেখানে তিনি জানিয়েছেন, অত্যাধুনিক পরিবেশ, দ্রব্য ও সেবার সমন্বয়ে খুচরা ব্যবসায় নিয়োজিত রয়েছে চেইন সুপারগুলো। ভোক্তাদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণের পাশাপাশি তারা এখন সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে নানামুখী উদ্যোগ নিচ্ছে। এখানে ক্রেতাদের রুচি ও মনোভাবের বিষয়টি লক্ষ্য রাখা হয়।

ড. রোবাকা শামসের বলেন, ‘প্রতিনিয়ত আন্তর্জাতিকবাজার পাল্টে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে বদলে যাচ্ছে পুরো পৃথিবীর ব্যবসায়িক চিত্র। এখন ক্রেতারা যান্ত্রিক শহরের কর্মব্যস্ততার কারণে সুপারস্টোরের দিকে ঝুঁকছে। যার সঙ্গে তথ্য ও প্রযুক্তিগত উন্নয়ন, সামাজিক পরিবর্তন ও সোশ্যাল নেটওয়ার্কের সম্পর্ক রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকতে হলে সুপারস্টোরগুলোর অবশ্যই ইমেজ গড়ে তুলতে হবে যাতে ক্রেতারা ভালো পণ্য ক্রয়ের বিষয়ে আশ্বস্ত হতে পারে।’

গবেষণাপত্রে ড. রোবাকা শামসের ভোক্তা আচরণ, পণ্যের বৈশিষ্ট্য, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, সুপারস্টোরের এগিয়ে যাওয়াসহ নানা ধরনের বিষয়গুলো উপস্থাপন করে সবার হাততালি কুড়ান।

প্রসঙ্গত, চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির মার্কেটিং বিভাগের চেয়ারম্যান ড. রোবাকা শামসের ক্লাসরুমের বাইরেও শিক্ষার্থীদের কাছে ভীষণ জনপ্রিয়। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচারাল ক্লাবের প্রেসিডেন্ট হয়ে কাজ করছেন, রয়েছেন মার্কেটিং ক্লাবের উপদেষ্টা পদে। সদা-হাসিখুশি এই শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীদের ভেতর গুণগত শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে নিরলস কাজ করে যাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

x