ডেটার ওপর নিয়ন্ত্রণ বাড়ছে গ্রাহকের

শুক্রবার , ২৩ আগস্ট, ২০১৯ at ৪:৫০ পূর্বাহ্ণ
42

গ্রাহকের ডেটা সংগ্রহ নিয়ে মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানের নীতিমালায় পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছে ফেইসবুক। অন্যান্য ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ থেকে গ্রাহকের ব্রাউজিংয়ের ধরন বিষয়ে সামাজিক মাধ্যমটি যে ডেটা সংগ্রহ করে, তা দেখতে এবং নিয়ন্ত্রণের সুযোগ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। এই ডেটাগুলোকে বলা হচ্ছে ‘অফ-ফেইসবুক অ্যাক্টিভিটি’। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, যখন কোনো পোশাকের ওয়েবসাইট গ্রাহকের ব্রাউজিং অ্যাক্টিভিটি ফেইসবুকের সঙ্গে শেয়ার করে এগুলোকে বলা হয় ‘অফ-ফেইসবুক অ্যাক্টিভিটি’। খবর বিডিনিউজের।
ফেইসবুকের এক ব্লগ পোস্টে বলা হয়, ইতোমধ্যে আয়ারল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া এবং স্পেনে নতুন টুল উন্মুক্ত করা হয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যে পুরো বিশ্বে এটি উন্মুক্ত করা হবে। এতে প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায় কিছুটা প্রভাব পড়বে বলেও জানানো হয়েছে।
আটলান্টিক ইকুইটিস বিশ্লেষক জেমস কর্ডওয়েল বলেন, আমাদের বিশ্বাস এই অফ-ফেইসবুক অ্যাক্টিভিটি ডেটা ফেইসবুকের কাছে খুব মূল্যবান। এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপনদাতারা ভোক্তার কাছে বিজ্ঞাপন পৌঁছাতে পারে, যে পণ্য বা সেবায় ইতোমধ্যে গ্রাহক আগ্রহ দেখিয়েছেন।
সামপ্রতিক সময়ে প্রতিষ্ঠানের গোপনীয়তা নীতিমালা নিয়ে আইনপ্রণেতা এবং নীতিনির্ধারকদের কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছে ফেইসবুক। এরপরই নতুন এই টুল আনার উদ্যোগ নিল তারা। আগের মাসেই গোপনীয়তা বিষয়ক মামলা মীমাংসায় মার্কিন ফেডারেল কমিশনকে রেকর্ড ৫০০ কোটি ডলার জরিমানা দিতে রাজি হয়েছে ফেইসবুক।
বিজ্ঞাপন থেকে আয় করে থাকে সামাজিক মাধ্যমটি এবং সম্ভাব্য গ্রাহকদের টার্গেট করতে বিজ্ঞাপনদাতাদেরকে টুল দিয়ে থাকে। তাই টার্গেটেড বিজ্ঞাপনের কার্যকরিতায় কোনো পরিবর্তন আনা হলে তা ফেইসবুকের আয়ে প্রভাব ফেলবে। ৩০ জুন শেষ হওয়া প্রান্তিকে বিজ্ঞাপন বিক্রি থেকে প্রতিষ্ঠানটির আয় হয়েছে প্রায় ১৭০০ কোটি মার্কিন ডলার। ফেইসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়, গ্রাহক যদি অফ-ফেইসবুক অ্যাক্টিভিটি মুছে ফেলেন তাহলে অ্যাপ এবং ওয়েবসাইটগুলো গ্রাহকের যে ডেটা ফেইসবুকের কাছে পাঠাবে তা মুছে ফেলা হবে।
কর্ডওয়েল বলেন, এখানে প্রশ্ন থেকেই যায়, কত সংখ্যক গ্রাহক এই ফিচার ব্যবহারের বিষয়ে আগ্রহী হবে। বিশেষ করে যখন এই কাজের জন্য অ্যাপের সেটিংসে ন্যাভিগেট করে যেতে হবে। আমার মনে হয় এই ফিচারের কারণে ব্যবসায়ের ওপর যে প্রভাব পড়বে তা-ও কাটিয়ে ওঠা যাবে।

x