ডা. সাজিয়া শিমুল (আশায় আছি)

রবিবার , ১০ মার্চ, ২০১৯ at ১০:১১ পূর্বাহ্ণ
55

নারী দিবস ব্যাপারটাই কেমন যেনো গোলমেলে ঠেকে আমার কাছে বরাবরই। প্রথমত আমি নারী দিবস ব্যক্তিগতভাবে পালন করিনা,এর কোন থিমকে সাপোর্টও করিনা।এ দিবসের যুক্তিগুলো অদ্ভুত, পুরুষদের টেক্কা দেওয়া, সমতা তৈরি করা — এটা কোনদিক দিয়ে সম্ভব কিনা আমি জানি না। কেনোনা গঠনগত দিক দিয়েও নারী পুরুষ এক নয়, সৃষ্টিকর্তা তৈরি করেছেন সেভাবেই। শারীরিক দিকে মেয়েরা যেমন কিছুটা দুর্বল, ঠিক সেভাবেই মানসিক দিক দিয়ে এতোটাই শক্ত যে শারীরিক দুর্বলতা তার কাছে বরাবরই হার মেনে নেয়। যখনই কোন নারী মানসিক ভাবে জেগে ওঠেন,সে তখন পৃথিবীকে ধারণ করতে পারেন,মহাসমুদ্র পাড়ি দিতে পারেন,সমুদ্রের জোয়ার ভাটা তার কাছে এসে আবার ফিরে যেতে বাধ্য হয় বৈ কি! পুরুষরা কখনোই নারীর অগ্রগতির পথে বাধা নয় আর এ দিবস কোন পুরুষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার জন্যও নয়। নারীকে পেছনে টেনে রাখে যে সে কোন পুরুষ নয়, সে অবশ্যই সে নারী নিজে। নারীরা নিজেদের নারীসত্তাকে সম্পূর্ণভাবে সম্মান করে মানুষ হয়ে উঠুক, নারীরা নিজেদের কেবল নারী ভাবা বন্ধ করে চিন্তাচেতনায় এগিয়ে যাক, হয়ে উঠি আমরা পরিপূর্ণ একজন মানুষ।
“ইস আপনার টুইন! একটা ছেলে, একটা মেয়ে? ওহ হো দুইটাই মেয়ে। ইস যদি একটা ছেলে হতো, কি আর করা!” এই বলে নিজে নিজে মুখ কালো করে আজাইরা কষ্ট পাওয়া বেকুবগুলার মুখে যদি কালি ঘষে দিতে পারতাম আমি, তাহলে সত্যি নারী দিবস পালন করতাম। যদি প্রথম সন্তান কন্যা হয়েছে জেনে যেই মা ডেলিভারি টেবিলে মূর্ছা যায়, তারে ঠাটায় একটা চটকানা লাগাতে পারতাম, তাহলে আমি নারী দিবস পালন করতাম। যদি বয়ঃসন্ধিকালে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ নিয়ে মেয়েকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে যে মা দ্বিধা করেন না, কিন্তু ডাক্তারের কাছে নিতে লজ্জা পান, সংকোচ করেন, সেই নারীকে যদি মা হওয়ার অর্থটা বুঝিয়ে বলতে পারতাম এবং তাকে বিশ্বাস করাতে পারতাম,তাহলে আমি নারী দিবস পালন করতাম। যদি সত্যিই আমাদের নারীরা অন্ধকারের জগৎ থেকে নিজেদের বের করে আলোতে আসতেন, নিজেদের শিক্ষিত হওয়ার পাশাপাশি আলোকিত করে তুলতে পারতেন, সমস্বরে পুরুষদের ওপর নিজেদের ব্যর্থতার বোঝা না চাপিয়ে নিজের ভেতরের কমতিটুকুকে বুঝতে পারতেন, তাহলে সত্যিই আমি নারী দিবস পালন করতাম। আমাকে তো চলতে হয়, ফিরতে হয়, দৌড়াতে হয় পুরুষদের সাথেই তাল মিলিয়ে। নারী হয়ে ওঠার মতো বিলাসিতাকে আমি ধারণ করে পুঁজি করে রাখতে পারিনা, নারীস্বত্ত্বাকে ধারণ করে প্রতিদিন মানুষ হয়ে মাঠে নামতে হয় জীবিকার তাগিদে। তবে আশায় আছি একদিন আসবে যেদিন সবাই মানুষ হয়ে তাতেই যাপিত জীবনের স্বপ্ন দেখবো,আলাদা কোন দিবসকে বেগুনি রঙে রাঙাতে হবেনা।

x