ডা. সাজিয়া আফরিন (মন কী যে চায়!)

রবিবার , ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৫৯ পূর্বাহ্ণ
67

মুগ্ধতা একটা মারাত্মক সুন্দর অনুভূতি, তবে এটা ধরে রাখাটা কঠিন। বাচ্চাদের ক্ষেত্রেই ধরা যাক – কোন একটা খেলনা দেখে সে মুগ্ধ। মা,বাবা আহ্লাদ করে তৎক্ষণাৎ কিনে দিল। বাচ্চা তার চেয়েও দ্রুতগতিতে খেলনাটার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলে; যেহেতু এটা এখন তার হাতের মুঠোয়, একে ভেঙ্গে ফেলা যায়, গুঁড়িয়ে দেয়া যায়, আবার সযতনে তুলেও রাখা যায়। কিন্তু সেই না পাওয়াকালীন মুগ্ধতাটা আর থাকে না। এটা আসলে যে শুধু ছোট বাচ্চাদের ক্ষেত্রেই হয় তা কিন্তু না, সবার বেলাতেই তাই! যাকে একসময় দেখলে হৃদপিণ্ডের নড়নচড়ন বাহির থেকে শোনা যেত, তাকে যদি পেয়ে যায় সেই মুগ্ধতা আর থাকে না। যার মুখের প্রতিটা বাক্য শুনলে মনে হত- আহা মুক্তো ঝরে, সেই মানুষটা যদি সাথে থাকতে শুরু করে কিছুদিনের মাথায়ই মুক্তোর দেখা তো মিলেই না বরং এটা ঠিক যে ঐ মানুষটার ঘ্যানঘ্যানানিতে মাথা ধরে।
হায় রে মুগ্ধতা! বেশিদিন একই মাঠে টিকে থাকতে পারেনা। ও তো আছেই — এই ভাবনাটাই সব গুবলেট করে দেয়।
এজন্যই কারো প্রতি মুগ্ধ হলে তাকে পাওয়ার চেষ্টা বা ইচ্ছা না করাটাই ভাল। অধরা যেকোন কিছুর প্রতিই আগ্রহ থাকে চরমে। যা সব সময় ছোঁয়া যায়, প্রতিনিয়ত দেখা যায় সেখানে মুগ্ধতা টিকে থাকে না। মানুষের মন আসলেই বিচিত্র, বেশ অদ্ভুত! কিছু না পেলে সেটার প্রতি আগ্রহ, কিছু পেয়ে গেলে সেটাকে হেলাফেলা করা। আসলে যে চাওয়া কি মন নিজেই তা বুঝে পায় না।

x