ডাক্তারদের চেম্বারে রি-প্রেজেনটিভদের নির্ধারিত সময় দেওয়া হউক

মঙ্গলবার , ৯ জুলাই, ২০১৯ at ১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ
32

বাংলাদেশের চিকিৎসকদের ভিজিট খুবই বেশি। প্রথমে দেখাতে হলে ১২০০ টাকা ভিজিট দিতে হবে। ভিজিট নেওয়ার পরও অমুক পরীক্ষা, সমুক পরীক্ষা, এ পরীক্ষা এভাবে পয়সা কামানো এক পর্যায়ে স্থির হয়ে যায়। কিন্তু রোগ ধরতে পারে না।
কারণ ডায়গোনিস্টদের কোন প্রশিক্ষণ নেই। শুধু নড়াচড়া করতে করতে প্রশিক্ষণ হয়ে যায়। শেষ মেশ দেখা যায় বিদেশে যেতে হয়। অর্থাৎ ভারতে যেতে হয়। ভারত গিয়ে দেখা যায় বাংলাদেশের ডাক্তারের প্রেসক্রিপশানগুলো কোন স্থান পায় না। কি সুন্দর ব্যবহার? ব্যবহারে অর্ধেক রোগ সেরে যায়। বাংলাদেশের ডাক্তারগুলো কোন সুন্দর ব্যবহার রোগীদের কাছে করে না। একজন রোগী যদি পায়, তাহলে সেরেছে ৩০ হাজার থেকে ৭০ হাজার পর্যন্ত হাতিয়ে নিবে। ডাক্তারী পেশা হচ্ছে সেবা। যে যত বেশি সেবা দিবে রোগী তাড়াতাড়ি সুস্থ হবে। বাংলাদেশের ডাক্তার তা চায় না। রোগী সুস্থ হয়ে গেলে টাকা কামানোর মেশিনটা অচল হয়ে যাবে। প্রতি ৬ মাস অন্তর অন্তর যদি বিদেশি ডাক্তার এদেশে আনা যেতো তাহলে ১২০০ টাকা ভিজিটটা কমে গিয়ে ৪০০ টাকায় নেমে আসতো। গরিব দেশে ১২০০ টাকা ভিজিট এটা কোন ধরনের নীতি!
আবার দেখা যায় রোগীদের বসিয়ে রি-প্রেজেনটিভদের ভিতরে ঢুকিয়ে নেয়। তখন হতাশা ছাড়া আর কিছু করার থাকে না। এটা বন্ধ করতে হবে।
– রাজীব হোড়, দক্ষিণ কাট্টলী, চট্টগ্রাম-৪২১৯

x