ডাকসু নির্বাচন : কলঙ্কজনিত ও বিস্ময়কর!

বৃহস্পতিবার , ১৪ মার্চ, ২০১৯ at ৬:৪২ পূর্বাহ্ণ
49

ডাকসু নির্বাচন শুধু কলঙ্কজনিত নির্বাচন নয়, এটি একটি বিস্ময়কর নির্বাচনও বটে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থেকেও বৃহৎ ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ডাকসুর ভিপি পদে হেরে যাওয়া যেমন বিস্ময়কর, তেমনি নতুন প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। সাধারণ ছাত্রছাত্রী ভিপি পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে ভোট না দিলেও জিএস প্রার্থীকে ভোট দিয়েছে। এর কারণ কি হতে পারে?
ছাত্রলীগ ডাকসু নির্বাচনে সবচেয়ে বড় পদটি হারিয়েছে, তাই তারা স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়। এমতাবস্থায় তারা কোটা আন্দোলনের নেতা নির্বাচিত ভিপিকে আত্তীকরণ করতে চাইবে। ইতোমধ্যে যার আভাস পাওয়া গেছে। এটি হবে নব ভিপির জন্য একটি মরণ ফাঁদ৷ নির্বাচিত ভিপি যদি এই ফাঁদে পা রাখে, তবে সে নামমাত্র ভিপি হয়ে ঢাবিতে কিছুকাল বেঁচে থাকতে পারবে। কিন্তু তার দিকে চেয়ে থাকা হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী তাকে যেমন ঘৃণা করবে, তেমনি বিগত সংশ্লিষ্ট নানাবিধ পদ থেকে অব্যাহতি দিবে। এতে ডাকসু ভিপি কার্যত পঙ্গু হয়ে যাবে। তাই নির্বাচিত ভিপির উচিত সকল ছাত্র সংগঠনের গৃহীত সিদ্ধান্তের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী কার্যক্রমে যাওয়া।
ছাত্রলীগ ব্যতিত নির্বাচিত ভিপিসহ অন্যান্য সংগঠনগুলো পুনরায় ডাকসু নির্বাচন চাচ্ছে, এ নিয়ে আন্দোলন, অনশন চলছে। এ দাবিতে কর্তৃপক্ষ কখনই সাড়া দিবে না। কারণ এটি একটি দীর্ঘ ও জটিল প্রক্রিয়া। তাছাড়া আমরা জানি, বাংলাদেশে এর চেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতির নির্বাচন হলেও কখনও পুনরায় নির্বাচন দেওয়া হয় নাই।
অস্বচ্ছ ডাকসু নির্বাচন আমাদের গণতন্ত্রের পরাধীনতাকে পুনরুজ্জীবিত করেছে। এ থেকে পরিত্রাণ দরকার। ছাত্র রাজনীতি যদি কলঙ্কজনক হয়, তাহলে ভবিষ্যত রাজনীতি কেমন হবে, প্রশ্ন রয়ে যায়। যে কোনো নির্বাচনে স্বচ্ছতা, বৈধতা দরকার। সকলের অংশগ্রহণ দরকার এবং এটিই গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার মূল লক্ষ্য৷’
মোহাম্মদ অংকন
উত্তরা, ঢাকা।

x