টেকনাফ মহেশখালীতে ৪ শিশুর মৃত্যু, আহত ১২

টানা বর্ষণে পাহাড় ধস

টেকনাফ ও মহেশখালী প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩১ পূর্বাহ্ণ
436

টানা বর্ষণে পাহাড় ও দেয়াল ধসে টেকনাফ মহেশখালীতে তিন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া পানির স্রোতে ভেসে গেছে আরো একজন। নিহতরা হল টেকনাফ উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন পুরাতন পল্লান পাড়ার রবিউল আলমের ছেলে মেহেদী হাসান (১০), মো. আলমের মেয়ে আলিফা (৫) ও নতুন পল্লান পাড়ার আব্দুল গফুরের ছেলে আবু হারেস (১০) এবং মহেশখালীর কালারমার ছড়া ইউনিয়নের আঁধার ঘোনা গ্রামের সুমাইয়া আক্তার (১১)। এছাড়া আহত হয়েছেন আরো ১২ জন।
টেকনাফ রেড ক্রিসেন্ট অফিসের কর্মকর্তা আব্দুল মতিন জানান, গত মঙ্গলবার সকালে পাহাড় ধসের খবর পেয়ে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) সদস্যরা উদ্ধার তৎপরতা চালায়। এসময় পুরাতন পল্লান পাড়ার আব্দুস সালামের স্ত্রী হালিমা (৪০), মেয়ে ইসমত আরা (১৮) কলিমা (১৭), আবু শামার ছেলে ফজলু (২৯), জাফর আলমের স্ত্রী রহিমা খাতুন (২৫), মেয়ে শারমিন (৭), নাছিমা আকতার, এলেম বাহার (২৩), সাইফুল (৬), মোহাম্মদ হাসান, মো. আলমের মেয়ে আলিফা (৫) ও মেহেদী হাসানকে (১০) উদ্ধার করা হয়। পরে এদের টেকনাফ হাসপাতালে প্রেরণ করলে চিকিৎসক আলিফা ও মেহেদী হাসানকে মৃত ঘোষণা এবং বাকিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
অন্যদিকে বাবার হাত ধরে রাস্তায় পার হওয়ার সময় স্রোতে ভেসে যায় আবু হারেস নামে এক শিশু। পরে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান বলেন, উপজেলা পরিষদের পেছনের পাহাড় ধসে দুই শিশু এবং পাহাড়ি ঢলে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তিনি পাহাড়ি এলাকায় বসবাসরতদের সরে যেতে মাইকিং করা হয়েছে বলে জানান।
এদিকে টেকনাফের নয়াপাড়া শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধসে তিনটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি। টেকনাফ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গুরা মিয়া ও হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ মাহামুদ আলী বলেন, কয়েকদিন ধরে টেকনাফে টানা বৃষ্টিতে পানির ঢল নামে। এতে টেকনাফ সরকারি ডিগ্রি কলেজ ও নতুন পল্লান পাড়া মানারুল ফোরকান মাদ্রাসাসহ অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং আশপাশের এলাকা তলিয়ে যায়। ফলে এখানকার হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।
দেয়াল চাপায় শিশুর মৃত্যু : আমাদের মহেশখালী প্রতিনিধি জানান, ভারি বর্ষণে ঘরের দেয়াল চাপা পড়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় তার মা ও ছোট ভাই আহত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় উপজেলার কালারমার ছড়া ইউনিয়নের আঁধার ঘোনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুমাইয়া স্থানীয় আবদুল গফুরের মেয়ে।
কালারমার ছড়া ইউপি চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ জানান, প্রবল বর্ষণে আব্দুল গফুরের মাটির ঘরের চারদিকে পানি জমে যায়। এতে দেয়াল ধসের ঘটনা ঘটে। এ সময় নিহত সুমাইয়ার ছোট ভাই রিয়াদ (১০) ও মা পারভীন আক্তার আহত হন। আহতদের চকরিয়া জমজম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
খবর পেয়ে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জামিরুল ইসলাম ও কালারমারছড়া ইউপি চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরিফ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় ইউপি চেয়ারম্যান নিহতের দাফন ও আহতদের চিকিৎসার জন্য তাৎক্ষণিক আর্থিক সহায়তা দেন এবং ইউএনও শিশুর পরিবারকে ত্রাণসমগ্রী প্রদান করে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এসময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাহাড়ে বসবাসরতদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করা হয়।

x