টানা পঞ্চম দিনের মতো ক্লাস পরীক্ষা বর্জন নার্সিং কলেজ শিক্ষার্থীদের

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১১ জুলাই, ২০১৯ at ১১:০২ পূর্বাহ্ণ
10

চার দফা দাবিতে ৫ম দিনের মতো গতকালও ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন ও ক্লিনিক্যাল প্র্যাকটিস বন্ধ রেখে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে চট্টগ্রাম নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থীরা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচি পালন করছেন। তাদের চার দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- পুরাতন পাঠদান পদ্ধতি বহাল, পেশাগত বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগ ও কর্মপদ্ধতি নির্ধারণ, ইন্টার্নভাতা ৬ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকায় উন্নীত করা এবং নার্সিং কলেজসমূহকে পূর্ণাঙ্গ করা। এসব দাবিতে গত ৬ জুলাই থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ করে আসছে বাংলাদেশ বেসিক গ্র্যাজুয়েট স্টুডেন্ট নার্সেস এসোসিয়েশন (বিবিজিএসএনএ)।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ধরনের সাড়া না পাওয়ায় ক্লাস-পরীক্ষা ও একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ রেখে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার কথা বলছেন সংগঠনের সভাপতি সাব্বির আহমেদ খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. মামুনুর রশীদ। দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন তারা।
আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলছেন- নার্সিং কলেজগুলো শুধু নামেই কলেজ। এখানে নেই কোন দারোয়ান, ল্যাব টেকনিশিয়ান, লাইব্রেরিয়ান বা পর্যাপ্ত জনবল। এমনকি এখানে শিক্ষকদের জন্যও কোন (অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক, লেকচারার) পদ সৃজন হয়নি। সিনিয়র স্টাফ নার্সগণই কলেজের শিক্ষক। এভাবে জোড়াতালি দিয়ে একটি কলেজ চলতে পারে না। তাই প্রয়োজন অনুসারে পদ সৃজন, তাতে পর্যাপ্ত দক্ষ জনবল নিয়োগ প্রদান করে এবং ভৌত অবকাঠামো পরিপূর্ণ করে কলেজসমূহকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার দাবি শিক্ষার্থীদের।
বিবিজিএসএনএ’র সভাপতি সাব্বির আহমেদ খান বলেন, বেসিক বিএসসি ইন নার্সিং এ কোর্স শেষে ৬ মাস ইন্টার্ন চালু রয়েছে। ইন্টার্ন করা অবস্থায় একজন ইন্টার্নী ফুলটাইম ৩ শিফটে যে দায়িত্ব পালন করে তা একজন সিনিয়র স্টাফ নার্সের চেয়ে কোন অংশেই কম নয়। এছাড়া নার্সিং কলেজগুলোতে ইন্টার্ন করার জন্য আলাদা কোন আবাসনের ব্যবস্থা নেই। ২০১৪ সালে আন্দোলনের ফলশ্রুতিতে বেসিক বিএসসি ইন নার্সিং-এ ৬ মাস ইন্টার্ন যুক্ত হয়। আর ইন্টার্ন ভাতা ৬ হাজার টাকা নির্ধারিত হয়। যা ৫ বছরে আর বৃদ্ধি করা হয়নি। উচ্চমূল্যের এই বাজারে এই টাকায় একজনের জীবিকা নির্বাহও তো প্রায় অসম্ভব। এমন পরিস্থিতিতে ইন্টার্ন ভাতা ৬ হাজার টাকা থেকে ২০ হাজার টাকায় উন্নীত করা এখন সময়ের দাবি। একইভাবে, বেসিক বিএসসি ইন নার্সিং এ পড়তে আসা শিক্ষার্থীদের মাসিক স্টাইপেন্ড ১৬০০ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ৫ হাজার টাকায় উন্নীত করার দাবিও জানান তিনি। নার্সিং পেশায় স্বতন্ত্র পেশাগত ক্যাডার সার্ভিস বিসিএস (সেবা) চালু করে বিরাজমান বৈষম্য দূর করার দাবি সাধারণ সম্পাদক মো. মামুনুর রশীদের। আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলেও জানান সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

x