জ্যামাইকায় আজ মান বাঁচানোর টেস্ট শুরু

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১২ জুলাই, ২০১৮ at ৬:২৮ পূর্বাহ্ণ
60

নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে সবচাইতে লজ্জার এক পরাজয় বরণ করল বাংলাদেশ। মাত্র দু’দিন ও এক সেশনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ইনিংস ও ২১৯ রানের বড় ব্যবধানে এন্টিগা টেস্ট হেরেছে সফরকারী বাংলাদেশ দল। ইনিংস ব্যবধানে আগেও অনেকবার হেরেছে বাংলাদেশ। তবে এবারের টেস্ট ম্যাচটির সবচাইতে লজ্জাস্কর দিকটি হচ্ছে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে রেকর্ড সর্বনিম্ন ৪৩ রানে গুটিয়ে যাওয়া। এন্টিগা ম্যাচের স্মৃতি ভুলে আজ থেকে শুরু হওয়া কিংস্টন টেস্টে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ভালো করতে চায় টাইগাররা। বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে দুই ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টটি।

গত জুনের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচের দায়িত্ব নেওয়ার পর ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার স্টিভেন রোডসের অধীনে নতুন স্বপ্ন নিয়ে ক্যারিবীয় সফর শুরু করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু নতুন কোচের অধীনে নিজেদের প্রথম টেস্ট ম্যাচেই লজ্জার রেকর্ড গড়ে টাইগাররা। আগেই জানা ছিল ক্যারিবীয় সফরে স্বাগতিক পেস বোলারদের তোপের মুখে পড়তে হবে। তবে বিষয়টা এমন নয় যে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের একেবারে খেলা যাবেনা। কিন্তু এন্টিগা টেস্টের প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পেসার কেমার রোচের মারাত্মক বোলিং এর মুখে পড়ে ৪৩ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে এটিই সর্বনিম্ন দলীয় রান। দীর্ঘ ১৮ বছরের টেস্ট ইতিহাসে প্রথম ইনিংসে ব্যর্থতার রেকর্ড অনেক রয়েছে। তবে পরের ইনিংসে ঘুরে দাড়িয়েছে টাইগাররা। কিন্তু এবারে সেটাও করতে পারলনা সাকিবতামিমরা। প্রথম ইনিংসের ভুলগুলো দ্বিতীয় ইনিংসেও শুধরিয়ে নিতে পারেনি। তবে প্রথম ইনিংসের চাইতে কিছুটা হলেও মুখ রক্ষা হয়েছে টাইগারদের। দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪৪ রান করতে সক্ষম হয় টাইগার ব্যাটসম্যানরা। অবশ্য দ্বিতীয় ইনিংসেও বড় ধরনের বিপর্যয়ে পড়েছিলো বাংলাদেশ। উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান নিজের দ্বিতীয় টেস্টে ৬৪ রানের ইনিংস না খেললে এই ইনিংসটিও একশ’র নিচে গুটিয়ে যেতে পারতো।

অতি প্রয়োজনীয় এক হাফসেঞ্চুরি করে দলকে লজ্জার হার থেকে রক্ষা করেছেন। তার উপর হারের ব্যবধানও কমিয়েছেন সোহান। ব্যাটিং এর দুর্দশাটা বোলিং এর বেলায়ও পরিলক্ষিত হয়েছে। স্বাগতিক পেসাররা বল হাতে আগুন ঝরালেও পারেনি বাংলাদেশের বোলাররা। তাই প্রথম ইনিংসে ৪০৬ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করাতে সক্ষম হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সব মিলিয়ে পুরো টেস্টের অভিজ্ঞতাটা একেবারে লজ্জার এবং হতাশার। ম্যাচ শেষে তা অকপটে স্বীকারও করেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি বলেন, প্রথম টেস্টে আমরা ব্যাটিংবোলিংফিল্ডিং তিন বিভাগেই পিছিয়ে ছিলাম। ফলে ম্যাচে লড়াই করাটা আমাদের জন্য কঠিনই ছিলো। আসলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে তিন বিভাগেই হেরে গেছি আমরা। এই কন্ডিশনের মানিয়ে নেয়া কঠিন হবে জানতাম। কিন্তু এতটা খারাপ হবে সেটা আমাদের ভাবনাতেই ছিলনা। পরের টেস্টের জন্য নিজেদের ভালোভাবে প্রস্তুত করতে হবে বলে জানালেন সাকিব। আর সে প্রস্তুতি নিয়েই আজ মাঠে নামছে টাইগাররা। নিজেদের প্রস্তুতির পাশাপাশি ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামতে চান সাকিব বাহিনী।

প্রথম টেস্ট বাজেভাবে হারার পর ওপেনার তামিম ইকবাল বললেন এমন হারের কোন প্রকার অজুহাত দেখাতে চান না তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় তামিম বলেন, সিরিজের প্রথম টেস্টে আমরা যেভাবে খেলেছি আমরা তার চাইতে ভাল দল। যে ধরনের পারফরমেন্স করেছি, তা অবশ্যই গ্রহণযোগ্য নয়। এখন দলের ভেতর যে আবহ আছে, আমরা কোনভাবেই অজুহাত খোঁজার চেষ্টা করছি না। আমরা আশা করছি, পরের টেস্টে ভালো কিছু করবো।’ এন্টিগা টেস্ট হারলেও সেখান থেকে আত্মবিশ্বাস খোঁজার চেষ্টা করলেন তামিম। তিনি বলেন আমাদের দলের সবার জন্য সবচেয়ে জরুরি হলো বিশ্বাসটা ধরে রাখা। মনের মধ্যে এটা পোষণ করা যে আমরা ভালো খেলতে পারি। বিশ্বাস করতে হবে যে, আমরা বড় স্কোর গড়তে পারি। শেষ টেস্ট ম্যাচে সোহান যেভাবে ব্যাট করেছে, লোয়ারঅর্ডার যেভাবে করেছে সেটি ভালো ছিলো। আর এটাই প্রমাণ করে যে, উইকেটে সময় কাটাতে পারলে উইকেট যতই কঠিন হোক না কেন রান করা যায়। আশা করি, জ্যামাইকায় ভালো ম্যাচ উপহার দেয়ার চেষ্টা করবো।

x