জীব প্রযুক্তিতে চবি শিক্ষার্থীদের সাফল্য

তিনটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন

চবি প্রতিনিধি

শনিবার , ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ at ৪:২৩ পূর্বাহ্ণ
184

জীবপ্রযুক্তি বিষয়ক উদ্ভাবনী প্রতিযোগিতায় তিনটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরষ্কার পেয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থীরা। সমপ্রতি ঢাকার বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটারে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ও ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব বায়োটেকনোলজির তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত দেশের প্রথম জাতীয় জীবপ্রযুক্তি মেলা ২০১৮ তে এই কৃতিত্ব অর্জন করেন তাঁরা। যার একটিতে চ্যাম্পিয়ন, আরেকটিতে রানার্স আপ ও অন্যটিতে হয়েছেন দেশসেরা।

প্রতিযোগিতায় জীবপ্রযুক্তি বিষয়ে ‘আইডিয়া’ দিতে অংশ নেয়া ওই বিভাগের শিক্ষার্থীদের দুটি দলের ৬ জন পেয়েছেন দুইটি জাতীয় পুরস্কার। এছাড়া বিশ্ববিখ্যাত ‘থ্রি মিনিট থিসিস’ প্রতিযোগিতায় গবেষণা উপস্থাপনে একজন শিক্ষার্থী পেয়েছেন একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার।

জানা যায়, বায়োটেকনোলজি ব্যবহার করে একটি দেশ অর্থনৈতিক উপার্জনের পাশাপাশি চাকরীর ক্ষেত্রেও তৈরী করতে পারে সক্ষমতা। যদিও বাংলাদেশে ইতোপূর্বে বায়োটেকনোলজির ব্যবহারে তেমন সুযোগ তৈরি হয়নি। তাই সে সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে এবারই সারাদেশের প্রায় ২০ হাজার বিজ্ঞানী, উদ্যোক্তা, শিক্ষকশিক্ষার্থী, গবেষক ও সংগঠকদের অংশগ্রহণে আয়োজিত হয় জীবপ্রযুক্তি বিষয়ক এই অনুষ্ঠান। যার উদ্দেশ্য ছিল জীবপ্রযুক্তিবিদদের একমঞ্চে এনে যাবতীয় সমস্যা ও বিভিন্ন আইডিয়া গ্রহণ করা।

অনুষ্ঠানটিতে জেনেটিঙ, বায়োইনফরমেটিঙ এন্ড কম্পিউটেশনাল বায়োলজি ভিত্তিক আইডিয়ার জাতীয় পোস্টার প্রদর্শনিতে চ্যাম্পিয়ন হয় জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী মুজাহিদুল আহমেদ এজাজ, আবদুর রহমান অপু ও মিসবাহ মুশফিক তানিম। এ প্রতিযোগিতায় ৩৭ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০০ জন গবেষকের ২০২টি পোস্টার উপস্থাপিত হয়। তারমধ্যে ব্যাকটেরিয়ার অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ক্ষমতার বিরুদ্ধে মলিকুলার মডেল উপস্থাপন করে সাফল্য পান তারা।

এদিকে অনুষ্ঠানে জাতীয় বায়োটেকনোলজি ভিত্তিক বিজনেস আইডিয়া উপস্থাপনের উপর একটি প্রতিযোগিতায় রানার্স আপ হয়েছে একই বিভাগের আরেকটি দল। এতে ২৫ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০০ টি আইডিয়ার মধ্যে তিন ধাপ প্রতিযোগিতা শেষে রানার্স আপ হয় চবির জেনেটিক এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী তওসিফ রাজা, সুমাইয়া হাফিজ ও আবদুর রহমান অপুর আইডিয়াটি।

তারা কচুরিপানাকে জৈবপ্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যবহার করে বাণিজ্যিক ধারনা উপস্থাপনের জন্য পুরস্কৃত হয়। এতে তারা কচুরিপানা কিভাবে বিকল্প জ্বালানির সোর্স হতে পারে, কারা কারা এর প্রতিদ্বন্‌দ্বী, মার্কেটিং কিভাবে করলে চলবে, বাংলাদেশের কোথায় এটি ব্যবসার জন্য উপযুক্ত তার উপর সম্পূর্ন ব্যবসায়িক পরিকল্পনার উদ্ভাবন করেন।

অন্যদিকে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ার দি ইউনিভার্সিটি অফ কুইন্সল্যান্ডের সহযোগিতায় আয়োজিত হয় বিশ্বনন্দিত থ্রি মিনিট থিসিস প্রতিযোগিতা। তিন মিনিটে গবেষণা উপস্থাপনের জন্য জনপ্রিয় এই আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ পর্বে বিজয়ী হয়েছেন চবির জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষার্থী মৌসুমি ভৌমিক। এছাড়া এ পর্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদমান সাকিব নামের আরেক শিক্ষার্থীও বিজয়ী হয়।

থ্রি মিনিট থিসিস প্রতিযোগিতায় দেশের ৩২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। তার মধ্যে বাংলাদেশের ডায়বেটিস রোগীদের জিনগত পরিবর্তন ও অতিরিক্ত ওজনের সাথে সম্পর্ক নির্ণয় নিয়ে গবেষণা উপস্থাপনের জন্য এই পুরস্কার অর্জন করেন মৌসুমী ভৌমিক। আর তার এ গবেষণার তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. এস.এম রফিকুল ইসলাম।

এর আগে প্রতিযোগিতাটি বিশ্বের ৯০টি দেশে অনুষ্ঠিত হত। বাংলাদেশে এবারই প্রথম অনুষ্ঠিত হয়। মূলত মাস্টার্স, পিএইচডি ও এমফিলে যে শিক্ষার্থীরা গবেষণা করে তাদের অন্যই এটি। এখানে গবেষনাটিকে সায়েন্টিফিক ও টেকনিক্যাল টার্ম ব্যবহার করা ছাড়াই অত্যন্ত সহজেই উপস্থাপন করতে হয়।

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে বিভাগের সহযোগিতার বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী অধ্যাপক আদনান মান্নান আজাদীকে বলেন, বিভাগ থেকে তাদের জন্য প্রশিক্ষণ সহ সার্বিক সহযোগিতার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এর আগে প্রাথমিক বাছাইয়ের মাধ্যমে সেরা ২০ জনকে সিলেক্ট করা হয়। যার ফলেই আমরা সফলতা পেয়েছি।

বিভাগের সভাপতি, সহযোগী অধ্যাপক ড. এস.এম রফিকুল ইসলাম আজাদীকে বলেন, খুবই মেধাবী শিক্ষার্থীরা আমাদের বিভাগে ভর্তি হয়। তারা পাশ করে দেশবিদেশে ছড়িয়ে পড়ছে এবং সকলের সঙ্গে কাজ করছে। তাদের সকল অর্জনে আমাদের জিইডি পরিবার গর্বিত।

এদিকে এ অর্জন ছড়িয়ে পড়েছে ক্যাম্পাস জুড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা তাদেরকে অভিনন্দনে সিক্ত করছেন।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতাটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদ থেকে মোট ১২টি দল অংশ নেয়। যার মধ্যে শুধুমাত্র জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগ থেকেই তিনটি পুরষ্কার অর্জন করেছে।

x