ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যুর কোলে মা

আজাদী প্রতিবেদন

শনিবার , ৯ জুন, ২০১৮ at ৩:২০ পূর্বাহ্ণ
205

শুক্রবার সকাল। সাতকানিয়া থেকে ছেলে ইমরানকে সাথে নিয়ে চট্টগ্রাম নগরীর নতুন ব্রিজ এলাকায় নামেন হাসিনা বেগম। ভাটিয়ারী এলাকায় তাদের বাসায় যাওয়ার জন্য আরেকটা বাসে উঠতে তিনি ছেলেকে নিয়ে মোড় পার হচ্ছিলেন। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই একটি ট্রাক তার খুব কাছে চলে আসে। সন্তানকে ধাক্কা দিয়ে বাঁচাতে পারলেও নিজেকে বাঁচাতে পারলেন না হাসিনা। সন্তানকে বাঁচালেন, নিজে হার মানলেন মৃত্যুর কাছে।

এ সময় গুরুতর আহত হয় ৬ বছর বয়সী ইমরান। তাকে নেওয়া হয় চমেক হাসপাতালে। তার সাথে ছিল বাবা ও ভাইবোন। সে সাতকানিয়া উপজেলার মো. হোসেনের ছেলে। ইমরানের অবস্থা গুরুতর। বর্তমানে সে চমেক হাসপাতালে নিউরো সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন আছে।

ইমরানের পুরো শরীর রক্তাক্ত। মাথা, হাত ও নাকে প্রচণ্ড আঘাত পায় সে। মাথা জুড়ে ব্যান্ডেজ। নাক বেয়ে ঝরছে রক্ত। ডান হাত ভাঙা। বাম হাতের কনুই পর্যন্ত চামড়া ছেঁড়া। ওই হাতের তর্জনী একটু পর পর নাড়ছে।

দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চমেক হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রিদওয়ান (৩৫) নামে একজন বলেন, বেলা ১১টায় নিউমার্কেটগামী বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। আমার পাশে ছিলেন নিহত (হাসিনা) ওই নারী। তার ছোট সন্তানকে তিনি মুষ্টিবদ্ধ রেখে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। বাস এলে তিনি মোড় পার হওয়ার সময় ওই ট্রাকটি সামনে চলে আসে। এ সময় তিনি সন্তানকে ধাক্কা দিয়ে বাঁচাতে পারলেও নিজে ট্রাকের নিচে পড়ে যান।

হাসিনা আকতারের বাপের বাড়ি সাতকানিয়ার ছদাহা এলাকায়। বড় মেয়ের বিয়ের পর তিনি স্বামী, ছয় সন্তানকে নিয়ে ভাটিয়ারী এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

x