চীনের ২৭৯টি পণ্যে নতুন করে করারোপ যুক্তরাষ্ট্রের

দুই দশকে প্রথমবার চীনের আমদানি ছাড়াল রপ্তানিকে

বৃহস্পতিবার , ৯ আগস্ট, ২০১৮ at ৫:৩২ পূর্বাহ্ণ
21

আগামী ২৩ আগস্ট থেকে চীনের আরও ১৬০০ কোটি ডলারের পণ্যের ওপর ২৫ শতাংশ হারে করারোপ করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এজন্য মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দূতের কার্যালয় থেকে ২৭৯টি পণ্যের একটি তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে। চীনকে বাণিজ্য ছাড়ের ব্যাপারে আলোচনায় বসতে চাপ দেওয়ার কথা বলে গত মাসে ৩৪০০ কোটি ডলারের পণ্যের উপর করারোপ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তারই ধারাবাহিকতায় নতুন পণ্য তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তবে চীন এই সিদ্ধান্তের প্রতিশোধ নেওয়ার কথা জানিয়েছে।

২০১৮ সালের ৬ জুলাই ৩৪ বিলিয়ন ডলারের চীনা পণ্য আমদানিতে ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ শুরু করে ট্রাম্প প্রশাসন। পাল্টা উত্তর দেওয়ার হুমকি আসে বেইজিংএর তরফেও। চীনের অভিযোগ, ট্রাম্পের নেওয়া পদক্ষেপ বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নিয়মাবলীর লঙ্ঘন। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব অর্থনীতির ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু করেছে। যুক্তরাষ্ট্র চীনা পণ্যে আরোপিত শুল্ক কার্যকর করার পর চীনও তাৎক্ষণিকভাবে মার্কিন পণ্যের ওপর শুল্ক কার্যকর করেছে। গত এপ্রিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার দেশে ইস্পাত আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর ১০ শতাংশ কর আরোপের পরিকল্পনার কথা জানান। শিগগিরই তা কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি। আমদানি শুল্ক আরোপকে কেন্দ্র করে বিশ্বের দুই বৃহত্তর অর্থনীতির দেশ চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধের আশঙ্কায় এশিয়ার শেয়ার বাজারে পতন দেখা দেয়। সর্বশেষ ১৬০০ কোটি ডলারের তালিকায় চীনের সেমিকন্ডাক্টররা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। যদিও এসব পণ্যের মূল কাঁচামাল যুক্তরাষ্ট্র, তাইওয়ান ও দক্ষিণ কোরিয়ায় তৈরি হয়। মার্কিন বাণিজ্য দূতের কার্যালয় বলেছে, ‘মেড ইন চায়না’ শিল্প পরিকল্পনার সুবিধা নিয়ে চীন প্রতিযোগিতামূলক উচ্চপ্রযুক্তি শিল্প গড়ে তোলার চেষ্টা করছে। তাই চীনের বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক, প্লাস্টিক, রাসায়নিক ও রেলওয়ে যন্ত্রপাতির ওপর ২৫ শতাংশ কর আরোপ করা হবে।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধের মধ্যেই বছরের প্রথম অর্ধে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ ২৮ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছে চীনের কর্তৃপক্ষ। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশটি গত ২০ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম রপ্তানির চেয়ে আমদানি বেশি করল বলে প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়ার (পিটিআই) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বিদেশে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বছরের পর বছর শীর্ষ অবস্থানে থাকা চীন এবারও বাণিজ্য উদ্বৃত্তের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার যে স্বপ্ন দেখেছিল, চলতি বছরের প্রথম চারমাসেই তাতে ব্যাঘাত ঘটে। দেশটির গত ১৭ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম জানুয়ারিএপ্রিল প্রান্তিকে রপ্তানির চেয়ে আমদানি ব্যায়ের পরিমাণ বেশি হয়। অর্ধবার্ষিকে এসে প্রথম চারমাসের ঘাটতি ৩৪ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার থেকে ২৮ দশমিক ৩ বিলিয়নে নেমে এসেছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে চীনের স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব ফরেন এক্সচেইঞ্জ (এসএএফই)। এর মধ্যে সেবাখাত কেন্দ্রীক বাণিজ্যে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪৭ দশমিক ৩ বিলিয়ন, তিন মাস আগেও যা ছিল ৭৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার।

x