চট্টগ্রাম নগরীতে আবার বেড়ে গেছে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য

শনিবার , ২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৩৪ পূর্বাহ্ণ
175

চট্টগ্রাম নগরীতে আবার বেড়ে গেছে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য। নগরীর নিউ মার্কেট মোড়ে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য আপাতত কমে আসলেও মুরাদপুর, ষোলশহর ২নং গেইট, জিইসি মোড়, দেওয়ানহাট মোড়সহ বেশ কয়েকটি এলাকায় আবার ছিনতাইকারীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। সার্কেট ক্যামেরা এবং প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে ছিনতাইকারীরা তাদের এ অপকর্ম কিভাবে চালিয়ে যাচ্ছে সাধারণ জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। সাধারণত অন্ধকার নেমে আসলেই ছিনতাইকারীরা পথযাত্রীদের হাতে থাকা জিনিসপত্র ছিনতাই করার জন্য বিভিন্ন স্পটে চলে যায়। তারা চলাচল পথ যাত্রীদের থেকে যখন যাহা পায় যেমন: মোবাইল, মানিব্যাগ, ক্যামেরা, গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ইত্যাদি নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। তাদের কারণে অনেক পথযাত্রীকে নিঃস্ব হয়ে রাস্তায় বসে কাঁদতে হয়। পথযাত্রীরা টাকা, মোবাইল হারিয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার উপায়ন্তরও খুঁজে পায় না। তেমনি এক পথযাত্রী ইফতেখারুল করিম চৌধুরী গত ২৭ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় বহদ্দারহাট থেকে মুরাদপুর আসলে বাস থেকে নেমে বাস হেলপারকে ভাড়া দেওয়ার জন্য তার কাঁধে ঝুলানো থাকা ব্যাগটি হাতে নিতেই এক ছিনতাইকারী এসে ব্যাগটি নিয়ে দৌড় দেয়। জানা যায় ভুক্তভোগী ইফতেখারুল করিম চৌধুরী ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকার চট্টগ্রাম প্রতিনিধি। মুহূর্তের মধ্যে সে পথের ফকিরের মত হাউমাউ করে দৌড়ে ছিনতাইকারীর পিছু নিয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন। তার ব্যাগে থাকা মোবাইল, ক্যামেরা ও পাঁচ হাজার টাকা আর ফিরে পায়নি। এ রকম অহরহ ঘটনা বিভিন্ন স্থানে ছিনতাইকারী দ্বারা ঘটছে। তা দু’একটি ঘটনায় অনুমান করা যায়। ভুক্তভোগী ইফতেখারুল করিম চৌধুরী ২৮ জানুয়ারি চট্টগ্রাম পাঁচলাইশ থানায় এ ঘটনার একটি সাধারণ ডায়েরি করেছে, যার নং-১৯৭৭ তাং ২৮/০১/২০১৯ইং। এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনের নিকট আবেদন জানাচ্ছি।
– ইফতেকারুল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম।

x