চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক গার্মেন্টেক মেলা উদ্বোধন

আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতায় আমরা দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছি : মেয়র

আজাদী প্রতিবেদন

শুক্রবার , ১০ আগস্ট, ২০১৮ at ৩:৪৭ পূর্বাহ্ণ
324

কাপড়ের উপর রঙবেরঙের সুঁই ও সুতা দিয়ে ফুল, লতাপাতা কিংবা বিভিন্ন নক্‌শা তোলা হবে। একটি সফটওয়ারের কমান্ডের মাধ্যমে সে কাজটি অত্যন্ত নিখুঁতভাবে কয়েক মিনিটের মধ্যেই করে দিচ্ছে একটি যন্ত্র। সফটওয়্যারটিতে কমান্ড করা নক্‌শাটির হুবহু সেই কাপড়টির একাধিক জায়গায় মিলবে। যন্ত্রটির প্রতিটি সুঁচ প্রতি মিনিটে এক হাজার বার সেলাই কাজ করে, কয়েক মিনিটের মধ্যেই থ্রিপিচ, শাড়িসহ এমব্রয়ডারি করা অন্যান্য পোশাক তৈরি করে দিচ্ছে।

নগরীর জিইসি কনভেনশন সেন্টারে গতকাল বৃহস্পতিবার উদ্বোধন হওয়া তিনদিনব্যাপী ‘আন্তর্জাতিক গার্মেন্টেক মেলা২০১৮’ তে জার্মানির এই এমব্রয়ডারিং মেশিনটি প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছিল। এভাবে মানুষের বদলে পোশাক কারখানার শ্রমস্থান এখন প্রযুক্তির নিয়ন্ত্রণে। সীমিত সংখ্যক জনবল ব্যবহার করে সর্বশেষ প্রযুক্তির সহায়তায় যাতে একটি ভালো মানের পোশাক কারখানা তৈরি করা যায় তার সবকিছুরই উপস্থিতি আছে এ মেলায়।

জানা গেছে, প্রাচীনকাল থেকেই সুঁই আর সুতার সম্মিলনে হাতে করে যে শিল্প গড়ে উঠেছে বর্তমানে তারই রূপ এমব্রয়ডারিং শিল্প। পোশাক বাজারে এ শিল্পের কদর এখনো প্রথম ভাগেই অবস্থিত। আগে হাতের কাজে এ শিল্প চলে আসলেও বর্তমানে প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ফলে এ শিল্পটির প্রসার ও গুরুত্ব দু’টিই বেড়েছে। এদিকে মেলার প্রদর্শনী শুধু এমব্রয়ডারিং শিল্প প্রযুক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না, মেলায় স্থান পেয়েছে সুইং মেশিন, কাটিং মেশিন, গার্মেন্ট টেম্পলেট ডিজাইন সফটওয়ার, ভার্টিকাল ইংক জেট প্লটার, কাটিং প্লটার, ইলেকট্রনিক লকস্টিজ বাটনহলিংসহ গার্মেন্ট এঙেসরিজের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ। সর্বশেষ প্রযুক্তির পোশাক, কারিগরী, সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি, ইয়েন এবং কাপড়, সাপোর্ট সার্ভিসেস এবং ক্যাড ও ক্যাম সেবা এ মেলার মূল আকর্ষণ ছিল। মেলায় চীন, মালয়েশিয়া, জাপানসহ ১০টি দেশের একশ’র অধিক স্টল স্থান পেয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত এ প্রদর্শনী চলবে আগামী ১১ আগস্ট পর্যন্ত। আয়োজকরা দর্শনার্থীদের জন্য বিনামূল্যে প্রবেশের সুযোগ রেখেছেন।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, একটি স্টলে প্রদর্শনীর জন্য রাখা একটি সুইং মেশিন দুই মিনিটের মধ্যেই চারটি ডিজাইনের জ্যাকেট অত্যন্ত নিখুঁতভাবে সেলাই করছে। ওখানকার সেলস এন্ড সার্ভিস ইঞ্জিনিয়ার হারিস হাওলাদার আজাদীকে বলেন, মেশিনটি দশজন অপারেটরের কাজ একাই করে থাকে। এর দাম ৭ হাজার ডলার হলেও মেলা উপলক্ষে ৫০০ ডলার ডিসকাউন্ট দেয়া হয়েছে। পৃথক আরেকটি মেশিনে একজন অপারেটর দিয়েই জিন্স প্যান্টসহ বিভিন্ন পোশাক তৈরির মূল কাজটি হচ্ছে। বোতাম লাগানোসহ বিভিন্ন পোশাকে নানা কিছুর সংযোজনও হচ্ছে সব প্রযুক্তির মাধ্যমে।

জেক মেশিনারী ইমপোর্ট এন্ড এঙপোর্টের চেয়ারম্যান লায়ন এম ফজলে করিম লিটন আজাদীকে বলেন, ঢাকায় নিয়মিত এ ধরণের প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়ে থাকে। কিন্তু চট্টগ্রামে হয় না। এ প্রদর্শনী থেকে চট্টগ্রামে পোশাক শিল্প মালিকেরা তাদের শিল্পে প্রযুক্তি ব্যবহার করে আর্থিকভাবে লাভবানের পাশাপাশি ব্যবসায় গতি পাবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এদিকে মেলায় দর্শনার্থীদের উপস্থিতিও উল্লেখযোগ্য হারে দেখা যায়। পোশাক শিল্পের সাথে জড়িত বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান মেলায় স্থান পাওয়া বিভিন্ন যন্ত্রাংশ ঘুরে দেখার পাশাপাশি যন্ত্রের সুবিধাদিসহ খুঁটিনাটি বিষয়গুলো জেনে নিচ্ছেন।

এর আগে গতকাল সকাল ১০টা থেকে দ্বিতীয়বারের মতো এ মেলা শুরু হয়। তবে সন্ধ্যা নাগাদ এ মেলা আনুষ্ঠানিকভাবে ফিতা কেটে উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, তৈরি পোশাক শিল্পে বিশ্বের ২য় বৃহত্তম রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে বাংলাদেশ পরিচিতি লাভ করেছে। ঢাকার পরে কিন্তু চট্টগ্রামের মার্কেট। এটি একটি সম্ভাবনাময় সেক্টর। বাংলাদেশে যে কয়েকটি সেক্টর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে, তারমধ্যে পোশাক শিল্প অন্যতম। আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমরা দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছি বলে জানিয়েছেন মেয়র। প্রতিযোগিতামূলক বাজারে পোশাক রপ্তানিতে ৫ হাজার কোটি মার্কিন ডলারের লক্ষ্যে উৎপাদনশীলতা, কমপ্লায়েন্স, নিরাপত্তা নিশ্চিতের বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা কাজ করে যাচ্ছেন। এ বিষয়গুলো নিশ্চিত করা গেলে এ শিল্প সামনে আরও এগিয়ে যাবে। গার্মেন্টস শিল্পের প্রসারে সরকারের নানামুখী প্রণোদনা উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন সিটি মেয়র।

মেলা আয়োজক কমিটির পরিচালক টিপু সুলতান ভুঁইয়া বলেন, যেসব উদ্যোক্তা নতুন কারখানা স্থাপনে এবং সম্প্রসারণের চিন্তা করছেন তাদের প্রয়োজনীয় সব ধরণের পণ্য একই ছাদের নিচে পাওয়া যাচ্ছে এ মেলার মাধ্যমে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিজিএমইএ’র প্রেসিডেন্ট মঈনউদ্দিন আহমেদ মিন্টু, বিজিএমইএ’র পরিচালক রাজীব দাশ, সাধারণ সম্পাদক আলতাফ মাহমুদ, এএসকে ট্রেড এন্ড এঙিবিউশন প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক নন্দগোপাল কে, পরিচালক সেলিম বাশার প্রমুখ।

x