(চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় বর্ষাকাল)

মর্জিনা আখতার

বুধবার , ১৭ জুলাই, ২০১৯ at ৬:১৮ পূর্বাহ্ণ
94

গরমহালে ছটফটানি শীতর হালে ঠান্ডা, বারিষা হালে মেঘ রাণী মাথাত মারে ডান্ডা। মেঘর রাজার মেজাজ কড়া খাইল্যা বিড়বিড়ায়/ ঠাডা মারি ফাডাই ফেলায় চোখের ইশারায়। ব্যাক কিছু বেকোয়াইশ্যা হিসাব গড়ি চাইলে/ ফেরেশানি বাড়ি যায় বারিষা হাল আইলে। মেঘ কইন্যা ও যেত্তে এত্তে নাছি নাছি আইয়ে, চুলের বাহার দেহাইয়েনে বহুত মাথা হাইয়ে। কেইয়ের দিল বহুত দর কেইয়ে খার ধরা, বোয়াইয়েনে লেহার হত (কত) কবিতা আর ছড়া। হান্দি-হাডি ভাসাই ফেলার নদী ও হরে গোস্বা, দইজ্যা ও ফুলি উডে মানুষ ন ফায় ভর্সা। শহর গেরাম মিলি মিশি হয় আর এক দরিয়া, ফোয়া মাইয়া ভুলি যায় সরে অ (অ) সরে আ (আ) রাস্তা ঘাডর চিহ্নও নাই আছে পানির স্রোত, হত(কত) মানুষ বেকুব বনি থিয়াই থাহে মোড়ত। হালত (খালত) গেলে ফরান যাইব নালাত গেইলে ঠ্যাঙ/ ফানির তলাত লুয়াই এনে তওশা চাইবো ব্যাঙ।

x