চকবাজার শাখা ব্যবস্থাপকসহ তিনজনের জামিন নাকচ

পূবালী ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ : মামলা দুদকে

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ১৬ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৫৮ পূর্বাহ্ণ
231

পূবালী ব্যাংক চকবাজার শাখায় ১২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেপ্তার শাখা ব্যবস্থাপকসহ তিনজনের জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালতের বিচারক। গতকাল মঙ্গলবার মহানগর হাকিম খায়রুল আমিনের আদালতে আসামিদের জামিনের আবেদন জানান তাদের আইনজীবীরা। এ নিয়ে শুনানি শেষে বিচারক তাদের জামিনের আবেদন ফিরিয়ে দেন।
এদিকে, আত্মসাতের এ ঘটনায় চকবাজার থানায় দায়ের করা মামলাটি দুদকের চট্টগ্রাম কার্যালয়ে পৌঁছেছে বলে জানা গেছে। এরপর তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগের মাধ্যমে মামলার তদন্ত করা হবে। এ বিষয়ে দুদক চট্টগ্রামের উপ-পরিচালক মাহবুবুল আলম বলেন, মামলা আমরা হাতে পেয়েছি। তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এরপর শুরু হবে তদন্ত। অন্যদিকে, এ ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংক কিংবা পূবালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষের তরফে কোনো তদন্ত কমিটি গঠনের খবর পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে মামলার বাদী মনজুরুল ইসলাম মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি কোনো তথ্য দিতে চাননি। পূবালী ব্যাংকে এ ধরনের আত্মসাতের ঘটনা ব্যাংকিং সেক্টরে গতকাল আলোচনার বিষয় ছিল। অনেকে প্রশ্ন রেখে বলেছেন, স্বচ্ছতা ও আস্থার খাতিরে এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার। এ লক্ষ্যে অন্যান্য আসামিদেরকে আইনের আওতায় আনা দরকার বলে মনে করেন তারা। গত সোমবার টাকা আত্মসাতের এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হন পূবালী ব্যাংকের চকবাজার শাখার ব্যবস্থাপক এনামুল করিম চৌধুরী, জুনিয়র অফিসার ইকরামুল রেজা রিজভী ও কম্পিউটার অপারেটন চন্দন দে। এজাহারে থাকা অন্য আসামিরা হলেন, নাসিরাবাদ হাউজিং এস্টেট এলাকার মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ, নাসিরাবাদ ড্রিম ভ্যালী আবাসিক এলাকার মোহাম্মদ ইলিয়াছ, ৬ নং পূর্ব ষোলশহর এলাকার আবু সৈয়দ ও ঢাকার মৌলভীবাজার এলাকার শেখ মোহাম্মদ ওবায়েদ উল্লাহ। এর আগে রোববার ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক এবং চট্টগ্রামের আঞ্চলিক মহাব্যবস্থাক মনজুরুল ইসলাম মজুমদারের দায়ের করা ওই মামলায় তিন ব্যাংক কর্মকর্তা এবং একজন গ্রাহকসহ সাতজনকে আসামি করা হয়। ব্যাংকের ১২ কোটি ৮৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। পরস্পর যোগসাজসে এ ধরনের ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে জানান মনজুরুল ইসলাম মজুমদার।

x