ঘোল

সত্যব্রত বড়ুয়া

শুক্রবার , ২ আগস্ট, ২০১৯ at ৫:০০ পূর্বাহ্ণ
27

ঘোল নিঃসন্দেহে একটি পুষ্টিকর খাদ্য। এটাকে অনেকে মাঠাও বলে থাকে। এর গুণের সীমা নেই। এক সময় বাঙালির ঘোল খাওয়ার অভ্যেস ছিলো। কিন্তু পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবে ঘোল খাওয়া আর কাকেও ‘ঘোল খাওয়ানো’ কথাটির মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। এখন ঘোল খাওয়ার মানুষ কমে গেলেও ‘ঘোল খাওয়ানো’র মতো মানুষের কমতি নেই। এদের পাল্লায় পড়লে এরা আপনাকে নাকাল করেই তবে ছাড়বে। সেকালে সব চেয়ে অপমানকর শাস্তি ছিলো, অপরাধীর মাথা মুড়িয়ে সে মাথায় ঘোল ঢেলে তাকে গাধার পিঠে চড়িয়ে পথে পথে ঘুরানো। পথচারীরা এ দৃশ্য দেখে আমোদিত হওয়ার সাথে সাথে ভয়ও পেতো, কারণ অপরাধ করলে কাকেও রেহাই দেওয়া হতোনা। ‘ঘোল শাস্তি’ তাকে পেতেই হতো। এ শাস্তিটার এখন বিলোপ ঘটেছে। এটা আবার চালু করা প্রয়োজন, তবে সমস্যা সৃষ্টি হবে গাধা জোগাড় করা নিয়ে। এ ক্ষেত্রে গাধার বদলে বলদ বা পাঁঠার পিঠে চড়ানো যেতে পারে। ঘোলের দোকানও এখন সহজে খুঁজে পাওয়া যায়না। ঘোল এখন দুষ্প্রাপ্য ও মহার্ঘ বস্তুতে পরিণত হয়েছে। এর খোঁজ খবর কেবল পেট রোগীরাই রাখেন। তারা বলে থাকেন তাদের অশান্ত পেট শান্ত থাকে ঘোল খেয়েই। সেকালে ঘোলের বন্যা বয়ে না গেলেও ঘোলের অভাব ছিলোনা। মানুষের মাথায় ঘোল ঢালবার মতো ঘোল সহজেই পাওয়া যেতো। আমার ধারণা দেশে পেট রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। মানুষ তাই এখন ঘোল খেতে চাইবে। ঘোলের চাহিদা বাড়বে বলে ব্যবসায়ীরা ঘোলের ব্যবসা শুরু করে দেবে। ‘ঘোল শাস্তি’টা এখন জরুরি হয়ে পড়েছে। এ শাস্তিটা প্রথমেই দিতে হবে ধর্ষকদের। রেহাই পাবেনা অন্যান্য অপরাধীরাও। এটা হবে একটা সামাজিক শাস্তি। বলবৎ থাকবে আদালতের দণ্ডও। নাগরিকদের সামাজিক শাস্তি দেওয়ার অধিকার দেওয়া হবে। আমার একজন পরিচিত ভদ্রলোক প্রতিদিন ‘মর্নিংওয়াক’ করে বাসায় ফিরবার পথে ঘোলের দোকান হতে এক গ্লাস ঘোল কিনে খান। তাঁর সাথে দেখা হলেই তিনি ঘোলের মাহাত্ম্য বর্ণনা করেন। কবিরাজদের মুখেও আমি ঘোলের অনেক গুণের কথা শুনেছি। ঘোলের গুণকে তাই অস্বীকার করবার কোনো উপায় নেই। মাদকে যাদের আসক্তি রয়েছে তারা ঘোল খেলে তা ঘোল আসক্তিতে পরিণত হবে। ঘোল খেয়ে ঋণ খেলাপিরা যথা সময়ে ঋণ পরিশোধ করে দেবে। ঘুষ খোররা হয়ে যাবে ঘোল খোর। রাজনীতিবিদগণ ঘোল খেয়ে প্রতিপক্ষকে গালাগালি করা ছেড়ে দেবে। আমরা সবাই সাদা মনের মানুষ হয়ে যাবো। দেশে থাকবেনা কোনো কালো টাকা। আমাদের তরুণরা নববর্ষে পান্তা ভাতে ইলিশ খাওয়া ছেড়ে দিয়ে খাবে পান্তা ভাতে ঘোল। আসুন ঘোল খেয়ে চাঙ্গা হই এবং দেশ ও দশের সেবা করি।

x