গ্র্যাজুয়েটদের হাতে সোনালী টিকেট

পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

অপু ইব্রাহিম

শনিবার , ৬ এপ্রিল, ২০১৯ at ১১:১২ পূর্বাহ্ণ
604

স্কুল আর কলেজ পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষার সোফানে পা রাখা শিক্ষার্থীদের আত্ন প্রতিষ্ঠা অর্জনের পরম ঠিকানা হয়ে উঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের আঙ্গিনা। অধ্যায়ন আর জ্ঞান আহরণ শেষে সমাপ্তি ঘটে মধুর এ জীবনের। বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায় সনদ প্রাপ্তির এ আয়োজন সমাবর্তন। আর এই প্রথম সমাবর্তনে বাজিমাত করলো পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। উচ্ছ্বাস আর আনন্দের বাঁধ ভেঙ্গেছিল ২০৮৮ গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে। প্রথম সমাবর্তনকে ঘিরে বর্ণিল সাজে সেজেছিল নগরীর পাচলাইশস্থ দি কিং অব চিটাগাং কনভেনশন সেন্টার।
৩১ মার্চ সকাল ৮টা থেকে গ্র্যাজুয়েটদের আসা শুরু হয় সমাবর্তনস্থলে। কালো গাউন আর মাথায় ক্যাপ পরে আসা গ্র্যাজুয়েটরা উঁচু নিচু আর পাহাড়ের কোল ঘেঁষে উঠা দি কিং অব চিটাগাং এর মূল ফটকে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সেলফি আর নিজেদের ক্যামেরা বন্দি করতে। আনন্দ-উচ্ছ্বাসে রঙিন একটি দিন কাটল গ্র্যাজুয়েটদের। প্রিয় ক্যাম্পাসে স্মৃতির রোমন্থনে পুরো একটি দিন আনন্দের ভেলায় ভাসলেন পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (পিসিআইইউ) শিক্ষার্থীরা। শিক্ষক-সহপাঠী ও দেশ বরেণ্যদের সঙ্গে মাতলেন ক্ষাণিকটা সময়। প্রাণের বন্ধনে একে অন্যের সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে প্রত্যেকেই যেন কয়েক মুহূতের্র জন্য ফিরে গিয়েছিলেন সেই সব হারানো দিনে। আজ যে তাদের হারিয়ে যেতে নেই মানা। আজ যে তাদের স্বপ্ন পূরণের দিন। আহ! কি আনন্দ আকাশে বাতাসে। আজ তাদের সোনালী টিকেট হাতে পাওয়ার দিন। সমাবর্তনে অংশ নেওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েটদের চোখেমুখে উচ্ছ্বাসে ছাপিয়ে উঠে। বর্ণাঢ্য ও আনন্দ-উচ্ছ্বাস মুখর পরিবেশে পিসিআইইউর প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবর্তনে ৭ জন শিক্ষার্থীকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক ও ১২ জন শিক্ষার্থীকে প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়।
ইলেকটিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মো. কামরুল হাসান বলেন, আজকের দিনটি বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সবচেয়ে আনন্দঘন দিন। বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে চলে যাওয়ার বেদনার পাশাপাশি গ্র্যাজুয়েট স্বীকৃতির আনন্দ রয়েছে এতে। সাংবাদিকতা বিভাগের স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ইয়াসির সিলমি বলেন, আজ গাউন পড়ে ঘুড়তে ভালো লাগছিল। কিন্তু যখন মনে হচ্ছে আজ থেকে প্রাক্তন হয়ে গেলাম তখন মনটা একটু খারাপ হয়ে যাচ্ছে। ক্যাম্পাসের সেই দিনগুলোর কথা আজ খুব মনে পড়ছে। স্বর্ণ পদক প্রাপ্তি শিক্ষাজীবনের সর্বোচ্চ অর্জন। এই অর্জনকে ব্যক্ত করার ভাষা আমার জানা নেই। এখন দায়িত্ব আরও বেড়ে গেছে দেশের জন্য, মানুষের জন্য কিছু করার।
৩১ মার্চ রবিবার সকাল ১০টায় জাতীয় সঙ্গীত ও সমাবর্তনের থিম সং এর মধ্য দিয়ে শুরু হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নুরুল আনোয়ারের স্বাগত বক্তব্যে অনুষ্ঠানটি মূল পর্বে প্রবেশ করে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও মহামান্য রাষ্ট্রপতির পক্ষে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি।
গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আধুনিক বিশ্বে নিজেদের আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে হলে বিজ্ঞানভিত্তিক জ্ঞান চর্চা বাড়াতে হবে। রূপপুরে পারমাণবিক প্রকল্প হচ্ছে, চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেল হচ্ছে, নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু হচ্ছে, আমাদের নিজস্ব স্যাটেলাইট আছে এত উন্নয়ন একসাথে হচ্ছে এটা বিশাল ব্যাপার। সব দিক দিয়ে আমরা কিভাবে এগিয়ে যাচ্ছি তা সহজেই বুঝা যায়। তবে আমাদের এখনই আত্মতুষ্টিতে ভোগার সুযোগ নেই। এই অর্জনকে আরো এগিয়ে নিতে হবে। এজন্য তোমাদের স্বপ্ন দেখতে শিখতে হবে।
পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অর্জনের কথা তুলে ধরে পিসিআইইউ্থর ট্রাস্টি বোডের্র চেয়ারম্যান ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম বলেন, সারাদেশে শিক্ষার আধুনিকায়নের উপর জোর দেয়া হচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তিনিভর্র শিক্ষার প্রসার হচ্ছে। এসবের সাথে তাল মিলিয়ে আমরা পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিকে একটা বিশ্বমানের প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখি। সে স্বপ্ন নিয়েই আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মাত্র ৬ বছরের পথ চলায় আজ আমরা ২০৮৮ জন শিক্ষার্থীর হাতে উচ্চশিক্ষার স্বীকৃতি তুলে দিতে পেরেছি। এই মুহুর্তে ছয় হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী এ প্রতিষ্ঠান থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করছে। এই পথ চলা গৌরবের আর তৃপ্তির। আমি আনন্দের সাথে বলতে চাই এই ছয় বছরে আমরা সকল নিয়ম মেনেই পথ চলেছি। কখনো কোন নিয়মের ব্যতিক্রম হয়নি।
গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে শামীম আরও বলেন, আপনাদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটলো। কর্মজীবনে আপনারা সফল হবেন এই কামনা করি। এসময় তিনি কর্মজীবনে, সততা, নৈতিকতা ও দেশাত্মবোধের চর্চা করার পরামর্শ দেন শিক্ষার্থীদের। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আমাদের সবার মধ্যে একটা বোধ খুব কাজ করে, তা হচ্ছে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন হলে আমরা চাকরি করবো। চাকরি ছাড়া আর কিছু করার কথা আমরা ভাবতেও পারি না। এটা ভুল ধারণা। আমাদের এই চিন্তা ভাবনা থেকে বের হয়ে ব্যবহারিক শিক্ষার প্রতি যত্নবান হতে হবে। মনে রাখতে হবে উৎপাদনের সাথে যখন উচ্চশিক্ষা যোগ হয় তখন একটা বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান তৈরি হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়।
এছাড়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ইমিরেটাস ড.একে আজাদ চৌধুরী। হাজারো মানুষের এই আয়োজনে গ্র্যাজুয়েট ও তাদের অভিভাবকসহ অতিথিদের আপ্যায়নে কার্পণ করেনি পিসিআইইউ কর্তৃপক্ষ। সকালে ক্যাম্পাসে প্রবেশের পর নাশতা এবং মধ্যাহ্ন বিরতিতে দুপুরের খাবার দেয়া হয় সবাইকেই। পিসিআইইউর কালচারাল ফোরাম আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গানের তালে তালে আনন্দে ভাসতে থাকে সবাই। রাত সাড়ে আটটার দিকে সুন্দর এই আয়োজনের পরিসমাপ্তি ঘটে।

x