গ্রামীণ জনপদ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বাঁশ ঝাড়

মীর আসলাম : রাউজান

সোমবার , ১৫ জুলাই, ২০১৯ at ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ
51

বাঁশ আমাদের সমাজ সংস্কৃতিতে একটি অপরিহার্য উপরকরণ। বাঁশ নিয়ে আছে সমাজে বহু মুখোরোচক প্রবাদ। আছে কবিতা, গান। আমাদের ইতিহাস ঐতিহ্য আর জীবন মরণের সাথে সম্পর্কিত বাঁশ নামক এই উদ্ভিদ। প্রবীণদের মতে বাঁশ ঝাড় ছাড়া গ্রাম কল্পনা করা যায় না। প্রতিটি বাড়ির সামনে পিছনে বাঁশ ঝাড়ে সন্ধ্যাকালীন কাক পক্ষির কুঞ্জনে প্রকাশ পায় স্বর্গীয় অনুভূতি। বাঁশের কারুকার্য্যে তৈরি করা দৃষ্টিনন্দন গ্রামীণ বাড়িঘর বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য। এই বাঁশ মানুষের সাথে সম্পর্কিত জীবন মরণের। প্রবীণদের মতে আদিকালে জন্মকালীন সময় ধাত্রিরা শিশুর নাড় কাটতো বাঁশের পাতলা ধারালো ছিটা দিয়ে। মৃত ব্যক্তিকে সৎকার ও কবর দেয়ার সময় এখনো ব্যবহার করা হয়ে থাকে বাঁশ। মানব সভ্যতার সাথে সম্পর্কিত এই উদ্ভিদটি এখন অনেকটা বিলুপ্তির পথে। গ্রামে এখন বাঁশ ঝাড় নেই। বাঁশের তৈরি বাড়ি ঘর তেমন দেখা যায় না। পাহাড় জঙ্গলে প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট যেসব বাঁশ এখন ঠিকে আছে এখন সেগুলো কেটে ফেলার মহোৎসব চলছে। নতুন করে কোথাও সৃষ্টি হচ্ছে না বাঁশ বাগান। অনেকেই মনে করছেন বাঁশ ঝাড় যেভাবে উজাড় হয়ে যাচ্ছে তা থেকে ধারণা করা যাচ্ছে যুগে যুগে অবজ্ঞা অবহেলার শিকার এই উপকারী উদ্ভিদটি আগামী প্রজন্মের কাছে শুধু ঠিকে থাকবে গান কবিতা আর বিভিন্ন উপমার উদাহরণ হিসাবে। বলা যায়, গ্রামীণ জনপদের বাঁশ বাগান উদ্ধৃতি করে লেখা সেই শিশুতোষ ছড়া কবিতাটি এখনো শিশুদের ঘুম পারানোর মন্ত্র। ‘বাঁশ বাগানের মাথার উপর চাঁদ উঠেছে ওই, মাগো আমার শোলোক বলা কাজলা দিদি কই…” এই ছড়া কবিতায় শিশুর মাথায় হাত বুলিয়ে এখনো অনেক মা অবুঝ শিশুটিকে ঘুম পারায়। এই যুগের মানুষ প্রতিপক্ষকে শাসাতেও ব্যবহার করে বাঁশ শব্দটিকে। হুমকি দিতে গিয়ে বলে বেশি বাড়াবাড়ি করলে দেব বাঁশ”। গ্রামীণ জনপদের মানুষ মরেছে? সৎকার আর দাফনেও দরকার এই বাঁশ। আধুনিক এ যুগেও ব্যতিক্রমী ফ্যাশনের আসবাবপত্র তৈরিতেও জুড়ি নেই বাঁশের। সব কথার শেষ কথা হচ্ছে ইতিহাস ও ঐতিহ্যে- বাঙালির অতীত, বর্তমান আর ভবিষৎ জীবনধারার সাথে বাঁশ এক অপরিহার্য অনুসঙ্গ। আবার সামপ্রতিককালে কিছু কিছু অসাধু ঠিকাদার সরকারি উন্নয়ন প্রকল্পে লোহার পরিবর্তে বাঁশ দেয়ার অভিযোগ উঠলে এই নিয়েও শুনা যায় রসালো সব মন্তব্য করেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। জানা যায় ইন্দোনেশিয়ার গ্রিন ভিলেজ নামের একটি গ্রামের মানুষ পরিবেশবান্ধব এই বাঁশকে ব্যবহার করে তাদের বাড়িঘর ও আসবাবপত্র নির্মাণ করেন। এছাড়া উন্নত দেশে বাঁশকে আধুনিক আসবাবপত্র তৈরির উপকরণ হিসাবে ব্যবহার করে আসছে।

x