গুড বেটার বেস্ট

রম্য রচনা

সত্যব্রত বড়ুয়া

শুক্রবার , ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৪৬ পূর্বাহ্ণ
56

আমার একজন শুভানুধ্যায়ী আমার অসুস্থার কথা শুনে দেখতে এসে, বললেন আপনি এখন কেমন আছেন। আমি বললাম ‘গুড’। তিনি বললেন, আমি দেখছি আপনি ভালো করে দাঁড়াতেই পারছেন না। আমি বললাম, এর পরেও আমি ‘গুড’ আছি। তাকে বললাম, দেখুন বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানী ষ্টিফেন ডব্লিউ হকিং তাঁর বিখ্যাত ‘কালের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস’ বইটি লিখেছেন অচল অবস্থায়। তিনি জটিল ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে বাকহীন হয়ে পড়েছিলেন। বইটি লিখেছেন চেয়ারে বসে। কিন্তু হকিং মনে করতেন তিনি ‘বেস্ট’ রয়েছেন। আমি এখন পর্যন্ত ‘গুড’ বলতে পারলেও ‘বেটার’ বলার সাহস পাচ্ছি না। হকিং এর মতো মানুষরা তা পারে। আমি দেখেছি প্রায় ক্ষেত্রেই মেয়েদের যদি আপনি তাদের হাতের রান্না ‘গুড’ হয়নি বলেন তবে তারা মন:ক্ষুন্ন হয়। তাদের ধারণা তাদের রাঙা সব সময় ‘গুড’ হয়। কেউ কেউ বলবেন তিনি একজন ‘বেস্ট’ রাঁধুনি। আমি সকাল বেলা রোদ পোহাবার সময় ছাদে কবুতর চড়তে আসে। তাদের দেখে মনে হয় এরা বেস্ট রয়েছে। চড়ুই পাখি গুলোকেও তাই মনে হয়। আমার ছাদ বাগানের ফুটন্ত জবা ফুলগুলো দেখলে মনে হয় এগুলো বেস্ট ফুল। রাস্তায় হাঁটবার সময় কুকুর যখন আমাকে দেখে লেজ নাড়ে, তখন মনে হয় কুকুরটি আমার চেয়ে বেটার রয়েছে। যে রাজনৈতিক দল যখন ক্ষমতায় থাকে তখন ক্ষমতাসীন দল মনে করে তারা গুড ভাবে দেশ চালাচ্ছে। পাকিস্তানি আমলে ক্ষমতাধর প্রেসিডেন্ট ফিল্ড মার্শাল আইউব খান ডান্ডা ঘুরিয়ে সব সময়েই বলতেন, তিনি দেশের মানুষকে বেস্ট রেখেছেন। স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় কখনও যদি পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তারা আমাকে জিজ্ঞেস করতো কেমন আছেন। আমি গুড বলতাম। এর কারণ গুড নেই এ কথা বলার উপায় ছিল না। খান সেনারা আমাদের গুড বলতে বাধ্য করেছিল। আমার একজন পরিচিত জন রয়েছেন আমি তার মুখে কখনও শুনিনি তিনি গুড রয়েছেন। মাছের বাজারে দেখা হলে বলেন মাছের দাম চড়া। যে দিন বাজার দর বেটার থাকতো সেদিনও তিনি গুড বলতেন না। কোনো কোনো সময় বাজার দর খুব কম থাকে তখনো তিনি খুশি হতেন না। প্রচণ্ড রোদে একটা পঙ্গু ভিখেরিকে মাঝে মাঝে রাস্তায় গড়িয়ে গড়িয়ে ভিক্ষে করতে দেখি। কিন্তু সে কখনও আমার পরিচিত জনটির মতো সব সময় গুড নেই কথাটি বলেনা। এমন কিছু চাকরিজীবী রয়েছেন তাঁরা বেতন বাড়িয়ে দিলেও বলবে এটা গুড বেতন না। এমনকি ৩ গুণ বাড়িয়ে দিলেও বলবে না। আমি এদের বাসায় বেড়াতে গিয়ে দেখেছি এরা সচ্ছল। বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরী ১০০ বছর পার হওয়ার পরও বেস্ট ছিলেন। তাঁকে দেখলে সব সময় তরুণ মনে হতো। তিনি বেস্ট থেকেই প্রয়াত হয়েছেন। খ্যাতিমান বিজ্ঞানী ড. জামাল নজরুল ইসলাম সব সময় হেসে কথা বলতেন। তাঁর হাসি বুঝিয়ে দিতো তিনি একজন ‘বেস্ট ম্যান’। আমার এ বিশ্বাস জন্মেছে আমার লেখা পড়ে পাঠকরা ‘গুড’ বললেও বেটার বা বেস্ট বলবেন না। আমি মনে করি আমাদের জীবনে শুধু তিনটি ‘গ্রেডেশন’ রয়েছে। এটা হলো গুড, বেটার, বেস্ট।

- Advertistment -