গণিতের ফল নিয়েই বেশি সংশয় শিক্ষার্থীদের

এসএসসির উত্তরপত্র পুন:নিরীক্ষণ

আজাদী প্রতিবেদন

মঙ্গলবার , ১৫ মে, ২০১৮ at ৫:১০ পূর্বাহ্ণ
99

এসএসসির উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে গতবারের তুলনায় এবার আবেদনকারীর সংখ্যা বাড়লেও কমেছে মোট আবেদনের সংখ্যা। এবার উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে মোট ৫৩ হাজার ৫১০টি আবেদন পড়েছে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে। যা গতবারের তুলনায় ৪ হাজার ৩০৪টি কম। গত ৬ মে প্রকাশিত ফলাফলে সন্তুষ্ট হতে না পেরে এ আবেদনগুলো করেছে ২৩ হাজার ৩৮০ জন শিক্ষার্থী। হিসেবে আবেদনকারীর সংখ্যা গতবারের তুলনায় ১ হাজার ৪৪১ জন বেড়েছে।

গতবার (২০১৭ সালে) আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ২১ হাজার ৯৩৯ জন। আর আবেদন জমা পড়ে ৫৭ হাজার ৮১৪টি। এসব আবেদনের মধ্যে গতবার গ্রেড পরিবর্তন হয় ৬৮৭ জন শিক্ষার্থীর। এর আগের বছর (২০১৬ সালে) উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে মোট আবেদনের সংখ্যা ছিল ৪৬ হাজার ৯৪টি। আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ১৬ হাজার ৫৬২ জন। এর মধ্যে ফল পরিবর্তন হয় ২৪৩ জনের। ২০১৫ সালে আবেদন পড়ে সাড়ে ২২ হাজার। আর আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৯ হাজার ৭৮৬ জন।

তবে গত তিন বছরের ন্যায় এবারও যথারীতি গণিতের ফল নিয়েই বেশি সংশয় শিক্ষার্থীদের। কারণ, সবচেয়ে বেশি আবেদন পড়েছে গণিতের উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে। বিষয়টিতে এবার সর্বোচ্চ ৭ হাজার ৭৫৫টি আবেদন জমা পড়েছে। যা গতবারের তুলনায় ১ হাজার ৭৪৫টি বেশি। গতবার বিষয়টির উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে আবেদনের সংখ্যা ছিল ৬ হাজার ১০টি।

যদিও বিষয়টিতে ২০১৬ সালে সর্বোচ্চ ৮ হাজার ৭২৪টি আবেদন জমা পড়ে। ২০১৫ সালে আবেদনের সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ২৮৬টি। চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এবারের প্রকাশিত ফলাফলে গণিত বিষয়ে গড় পাসের হার সবচেয়ে কম হওয়ায় বিষয়টিতে শিক্ষার্থীদের সংশয় বেশি বলে স্বীকার করে শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান আজাদীকে বলেন, ‘পুনঃনিরীক্ষনের জন্য এবার সবচেয়ে বেশি আবেদন পড়েছে গণিতে। সেক্ষেত্রে বুঝা যায় যে, বিষয়টি নিয়েই শিক্ষার্থীদের বেশি সংশয়।’ গতবারও সর্বনিম্ম গড় পাসের হার ছিল গণিতে। আর পুনঃনিরীক্ষায়ও সর্বোচ্চ আবেদন ছিল বিষয়টিতে।

তবে পুনঃনিরীক্ষণ মানে পুনঃমূল্যায়ন নয় জানিয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, পুনঃনিরীক্ষায় উত্তরপত্রে কোন প্রশ্নের নম্বর বাদ গেছে কিনা, নম্বরের যোগফলে ভুল হয়েছে কিনা এসব দেখা হয়। এছাড়া অন্য কোন ধরনের ভুল আছে কিনা পরীক্ষকরা তা খতিয়ে দেখেন। কিন্তু উত্তরপত্র পুনঃমূল্যায়নের সুযোগ নেই। বিষয়টি অনেকে বুঝতে ভুল করেন।

শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা শাখার তথ্য মতে, গণিতের পর এবার সর্বোচ্চ আবেদন পড়েছে ইংরেজি ১ম পত্রে। বিষয়টিতে ৫ হাজার ৭৮২টি আবেদন পড়েছে এবার। এরপর বেশি আবেদন পড়েছে বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বিষয়ে। বিষয়টিতে ৫ হাজার ১৬৮টি আবেদন জমা পড়েছে। গতবার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আবেদন ছিল এই বিষয়ে। গতবার আবেদন পড়ে ৫ হাজার ৪৫টি। এরপর বেশি আবেদন পড়েছে রসায়নে। বিষয়টির উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে এবার ৪ হাজার ৮৬৬টি আবেদন পড়েছে।

এরপর যথাক্রমে বেশি আবেদন পড়েছে ইংরেজি ২য় পত্রে ৩ হাজার ৬৫৪, বাংলা প্রথম পত্রে ৩ হাজার ১৫৮, ইসলাম ধর্মে ২ হাজার ৮৮৫, উচ্চতর গণিতে ২ হাজার ৭০৮, পদার্থ বিজ্ঞানে ২ হাজার ৬১৮টি ও আইসিটিতে ২ হাজার ২১০টি। অন্যান্য বিষয়গুলোতে আবেদন পড়লেও তা সংখ্যায় কম। উল্লেখ্য, গত ৬ মে ফল প্রকাশের পর ৭ মে থেকে ১৩ মে পর্যন্ত টেলিটক মোবাইল এসএমএসএর মাধ্যমে এসব আবেদন করে শিক্ষার্থীরা। উত্তরপত্রগুলো পুনঃনিরীক্ষা শেষে আগামী ৩১ মে এর ফল প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ মাহবুব হাসান। এদিকে, একাদশে ভর্তিতে গত ১৩ মে থেকে শুরশু হয়েছে অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া। আবেদনের শেষ সময় আগামী ২৪ মে। পুনঃনিরীক্ষােয় আবেদনকারীদেরও এই সময়ের (২৪ মে) মধ্যে কলেজ ভর্তির আবেদন করতে হবে। তবে পুনঃনিরীক্ষায় ফল পরিবর্তন হওয়া শিক্ষার্থীরা ৫ ও ৬ জুন (দুই দিন) নতুন করে আবেদনের সুযোগ পাবে।

x