খাগড়াছড়িতে ব্রাশফায়ারে নিহত ৬

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

রবিবার , ১৯ আগস্ট, ২০১৮ at ৮:৩৭ পূর্বাহ্ণ
524

খাগড়াছড়িতে প্রতিপক্ষের ব্রাশফায়ারে ইউপিডিএফ( প্রসীত) সমর্থিত ৩ পিসিপি নেতাসহ ৬জন নিহত হয়েছেন। শনিবার সকাল সাড়ে ৮ টায় খাগড়াছড়ি জেলা সদরের স্বনির্ভর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসীদের গুলিতে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি তপন চাকমা, পিসিপি সহ সভাপতি এলটন চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা পলাশ চাকমা নিহত হন । এসময় তিন পথচারীও নিহত হন। পথচারী ৩ জন হলেন হলেন সরকারি চাকরিজীবী মহালছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য সহকারী ও উত্তর খবং পুড়িয়া এলাকার বাসিন্দা জীতায়ন চাকমা, একই গ্রামের কান্দারা চাকমার ছেলে রুপম চাকমা ও প্রকৌশলী ধীরাজ চাকমা। আঞ্চলিক সংগঠনের বিরোধে এমন মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না স্বজনরা। এই ঘটনার জন্য প্রতিপক্ষের আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস(এমএন লারমা) ও ইউপিডিএফ(গণতান্ত্রিক)কে দায়ী করেছে প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ। সম্প্রতি রাঙামাটির নানিয়াচরে ব্রাশফারের ৫ জন নিহত হওয়ার পর এটিকে সবচেয়ে বড় হামলার ঘটনা হিসেবে দেখছে সচেতন মহল। আশংকা করা হয়েছে আঞ্চলিক দলের বিরোধে আবারো রক্তাক্ত হবে পাহাড়। এই ঘটনায় জনমনে আতংক বিরাজ করছে। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা দপ্তর সম্পাদক সমর চাকমা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, হামলার প্রতিবাদে আগামী সোমবার (২০ আগস্ট) খাগড়াছড়িতে আধাবেলা সড়ক অবরোধ ঘোষণা করা হয়েছে। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা শাখা এ অবরোধের ডাক দেয় বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকাল সাড়ে ৮টায় জেলা সদরের স্বনির্ভর বাজার এলাকায় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় হামলাকারীরা বাজারের প্রবেশমুখে প্রথমে গুলি চালায়। পরে বাজারের ভিতর ইউপিডিএফ কার্যালয়ের দিকে যায়, এসময় ইউপিডিএফ কার্যালয়ের সামনেই পিসিপি সভাপতি তপন, এলটন ও পলাশ চাকমাকে গুলি করে হত্যা করে তারা। জানা যায়, খাগড়াছড়ির শিববাড়ি এলাকায় চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে গ্রামবাসীর পূর্বনির্ধারিত সমাবেশ ছিল। পিসিপির সভাপতি তপনসহ অন্যান্য নেতাকর্র্মীরা সমাবেশ যোগ দিতেই স্বনির্ভর বাজারের ইউপিডিএফ কার্যালয়ের সামনে একত্রিত হয়েছিল। হত্যাকান্ড নিশ্চিত করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। সন্ত্রাসীদের ছোড়া এলোপাথারি গুলিতে পথচারীরা নিহত হন। ঘটনার পরপর স্বনির্ভর এলাকার দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়।

নিহত পথচারী স্বাস্থ্য সহকারী জীতায়ন চাকমার স্ত্রী প্রভাতি চাকমা ও মেয়ে জুলি চাকমা জানান, শনিবার সরকারি বন্ধ হওয়ায় অফিসে যাননি জীতায়ন চাকমা। সকালে নাস্তা করতে বাজারে গিয়েছিলেন তিনি। এসময় সন্ত্রাসীদের এলোপাতাড়ি গুলিতে ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান। তারা অভিযোগ করেন, স্বনির্ভর বাজার এলাকায় এত নিরাপত্তা থাকার পরও প্রকাশ্যে বাজারে কীভাবে এত লোককে খুন করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়?

সন্ত্রাসীদের ব্রাশ ফায়ারে আহত হয়েছেন পিসিপি খাগড়াছড়ি সদর থানা শাখার সভাপতি সোহেল চাকমা, খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজের ছাত্র দ্বিতন চাকমা, বেলতলি পাড়ার বাসিন্দা ফেরেস্টার ত্রিপুরা(৩৫), খাগড়াছড়ি সদরের পশ্চিম নারাঙহিয়ে গ্রামের বাসিন্দা ও পদ্ম চাকমার ছেলে চিজি মনি চাকমা(২৫)

খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. নয়নময় ত্রিপুরা জানান, ঘটনাস্থলেই ছয়জন নিহত হয়েছে। এসময় আরো তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। আহতদের উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এই ঘটনায় ইউপিএিফ এর ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)-এর খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত প্রধান সংগঠক উজ্জ্বল স্মৃতি চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি অংগ্য মারমা, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি)-এর সভাপতি বিনয়ন চাকমা ও শ্রমজীবী ফ্রন্ট(ওয়ার্কার্স ফ্রন্ট)-এর সভাপতি সচিব চাকমা সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত এক যুক্ত বিবৃতিতে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তারা অবিলম্বে হামলাকারী সংস্কারনব্য মুখোশ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে এই ঘটনায় নিজেদের সংশ্লিষ্টতা অস্বাকীর করে জেএসএস (এমএন লারমা) এর কেন্দ্রীয় সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত জানান, এই হামলার ঘটনার সাথে আমরা জেএসএস (এমএন লারমা) কোনভাবেই জড়িত নই। এরা অহেতুক আমাদের দোষারোপ করে।

এই ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ জানিয়ে ইউপিডিএফ এর কেন্দ্রীয় সংগঠক মাইকেল চাকমা মুঠোফোনে জানান, স্বর্নিভরের মত একটি বাজার এলাকায় প্রকাশ্যে হামলা করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেছে। জেএসএস (এমএন লারমা ) ও ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) এই ঘটনা ঘটিয়েছে। মিঠুন চাকমাকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে ঠিক একই কায়দায় সন্ত্রাসীরা আজকের এই হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে।

এদিকে এক প্রেস বিবৃতিতে ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) এর কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার বিভাগ থেকে প্রেরিত ইমেইল বার্তায় জানানো হয়, এই হত্যাকান্ডে ইউপিডিএফ(গণতান্ত্রিক) কেনভাবেই জড়িত নয় । বরং তাদের অভ্যন্তরীণ বিরোধ থেকে এই হত্যাকান্ড হতে পারে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে খাগড়াছড়ি সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) সাহাদাত হোসেন টিটো জানান, সকাল সাড়ে ৮টায় এই ঘটনা ঘটে। এটি আঞ্চলিক সংগঠনের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই হামলার ঘটনা হতে পারে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয় । ঘটনার পর পর স্বনির্ভর এলাকায় অতিরিক্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে ।

x