খাগড়াছড়িতে কেটে নেয়া হলো ৩০ বছরের রেইনট্রি

সমির মল্লিক, খাগড়াছড়ি

রবিবার , ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ at ৯:১৪ অপরাহ্ণ
108

ক’দিন আগেও ছিল ডালপালায় ভরা গাছটি। হেমন্ত শেষে প্রকৃতিতে শীতের আগমনী বার্তা । রেইনট্রি বা বিলাতি শিরীষের শাখা-প্রশাখায় সবুজ পাতার আচ্ছাদন । সবুজ পাতায় কিছুটা বিবর্ণ রঙের ছটাও এসেছিল। শীত যেতেই নতুন পাতায় আচ্ছাদিত হয়ে উঠত বৃক্ষটি কিন্তু ঘটেছে উল্টোটি।

প্রায় ২০-৩০ বছর বয়সী বৃক্ষটির ডাল-পালা কেটে নিয়েছে স্থানীয়রা। শাখা-প্রশাখা কেটে নেয়ার পার ঠাঁই দাঁড়িয়ে আছে নিঃস্ব রেইনট্রি বৃক্ষটি। লোভের করাত বা কুড়াল কেড়ে নিয়েছে বৃক্ষটির সব ডালপালা। খাগড়াছড়ি-দীঘিনালার আঁকাবাঁকা পাহাড়ি সড়কের নয় মাইল এলাকায় এমনটি ঘটেছে।

খাগড়াছড়ি জেলা সদর থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দূরে নয়মাইল এলাকায় অবস্থিত নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয় থেকে কিছুটা দূরের রেইনট্রিটি কেটে নিয়েছে স্থানীয়রা। স্থানীয়রা জানান, বৈদ্যুতিক তার(ক্যাবল) থাকায় এটির ডালপালা কেটে নেয়া হয়েছে। কিন্তু সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বৃক্ষটির  আশেপাশে বিদ্যুতের কোনো ক্যাবল নেই। মূলত জ্বালানি কাঠ হিসেবে ব্যবহারের কারণে স্থানীয়রা গাছটির ডালপালা কেটে নিয়েছে। এছাড়া পুরো গাছটি কেটে নেয়ার পাঁয়তারা চলছে।

কে গাছ কেটেছে এমন প্রশ্নের জবাবে স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, গ্রামের একজন বৃক্ষটির ডালপালা কেটেছে।

খাগড়াছড়ি পরিবেশ সুরক্ষা আন্দোলনের সভাপতি প্রদীপ চৌধুরী বলেন, ‘পাহাড়ে নির্বিচারে বৃক্ষ নিধনের কারণে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটেছে। সড়কের লাগায়ো বৃক্ষ নিধন আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।’ দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তিনি।

খাগড়াছড়ি সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সবুজ চাকমা বলেন, ‘সড়কের পাশের রেইনট্রিগুলো সওজ কৃর্তপক্ষ রোপণ করেছে। বিনা অনুমতিতে গাছ কর্তনের কোনো সুযোগ নেই। বিষয়টির খোঁজখবর নেয়া হবে।’

x