কেইপিজেডে চীনা প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে ৬ কোটি টাকা প্রদানের নির্দেশ

বন্ড সুবিধায় আনা পণ্য খোলা বাজারে বিক্রি

জাহেদুল কবির

মঙ্গলবার , ২ জুলাই, ২০১৯ at ৫:৩৫ পূর্বাহ্ণ
432

বন্ড সুবিধায় প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকার ফেব্রিক্সের নয়টি চালান আমদানি করে পতেঙ্গা কেইপিজেডের চীনা মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান মেসার্স অফমা কেম্প লিমিটেড। বেপজা কর্তৃপক্ষ থেকে বৈধ অনলাইন আইপি নিয়েই গত ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে এসব চালান আমদানি করা হয়। তবে আমদানিকৃত এসব ফেব্রিক্সের চালান কেইপিজেডে প্রবেশ না করিয়ে সরাসরি খোলাবাজারে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর রাজস্ব ফাঁকির মামলা হয়। সম্প্রতি মামলার শুনানি ও পর্যালোচনা শেষে খোলাবাজারে আমদানিকৃত এসব পণ্য বিক্রির প্রমাণ পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিকে জরিমানাসহ ৬ কোটি ৪৯ লাখ ১৫ হাজার ৪৮১ টাকা পরিশোধের আদেশ দেয় কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট চট্টগ্রাম।
বন্ড কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, আমদানিকারক মেসার্স অফমা কেম্প লিমিটেডের বিগত সময়ের আমদানি রপ্তানি যাছাই করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি আমদানি রপ্তানি তথ্য যাচাইকালে ১০টি বিল অব এন্ট্রির মধ্যে অনিয়ম খুঁজে পায়। পরে তারা এ সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, অফমা কেম্প লিমিটেড ভুয়া ও জাল দলিল দাখিল করে বেপজা কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে অনলাইন আইপি গ্রহণ করে। এ ঘটনায় গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর একটি রাজস্ব ফাঁকির মামলা দায়ের করে কাস্টমস বন্ড কর্তৃপক্ষ। পরে একই বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর কারণ দর্শানোর দেয়া হলে প্রতিষ্ঠানটির মালিক লিখিত জবাবে বলেন, আইপিগুলো বৈধভাবে গ্রহণ করা হয়েছে। তবে চালানগুলো প্রতিষ্ঠান আমদানি করেনি। বাণিজ্যিক কর্মকর্তা জালিয়াতির মাধ্যমে এই কাজ করেছে। এছাড়া মামলায় উল্লেখিত ১০টি বিল অব এন্ট্রির মধ্যে একটি (সি-নম্বর ৫১০৭৬, তারিখ: ১৩.০৩.১৭) তাদের অন্তর্ভূক্ত নয়, যা ভুলে নোটিশে দেখানো হয়েছে। পরে বন্ড কাস্টমসের কর্মকর্তারা যাচাই বাছাই করে সেই বিল অব এন্ট্রির পণ্যের শুল্কমূল্য বাদ দেন। দেখা গেছে, বাকি নয় চালানে শুল্ক কর আসে ৪ কোটি ৪৯ লাখ ১৫ হাজার ৪৮১ টাকা।
অন্যদিকে বন্ড কাস্টমসের কর্মকর্তারা অফমা কেম্পের চিঠির জবাবে বলেন, যেহেতু প্রতিষ্ঠানের বন্ড লাইসেন্স ব্যবহার করে পণ্য আমদানি হয়েছে তাই আইন ও বিধি মোতাবেক বাণিজ্যিক কর্মকর্তা জালিয়াতির করে এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে এই ধরনের অভিমত গ্রহণ করার সুযোগ নেই। কারণ প্রতিষ্ঠান বৈধ আইপি নিয়েই মালামালগুলো শুল্কায়ন ও খালাস প্রদান করা হয়েছে। শুধু তাই নয় মেসার্স অফমা কেম্প লিমিটেড বন্ড সুবিধায় ৯টি চালানের পণ্য খোলাবাজারে বিক্রি করার অভিযোগ সন্দেহতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটিকে দুই কোটি জরিমানাসহ মোট ৬ কোটি ৪৯ লাখ ১৫ হাজার ৪৮১ টাকা পরিশোধের নির্দেশ দেন কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট চট্টগ্রামের কমিশনার।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট চট্টগ্রামের কমিশনার মো. আজিজুর রহমান দৈনিক আজাদীকে বলেন, বন্ড সুবিধায় আমদানিকৃত নয়টি চালান আমদানি করে খোলা বাজারে বিক্রি করে দেয়ায় অফমা কেম্পকে জরিমানাসহ প্রায় সাড়ে ৬ কোটি টাকা পরিশোধের আদেশ দেয়া হয়েছে। বন্ড সুবিধার অপব্যবহারের এ ঘটনায় আমরা প্রতিষ্ঠান মালিক বিইয়ং জিওনের শুনানি গ্রহণ করেছি। অবশ্য তিনি লিখিত জবাবে আমাদের জানিয়েছেন, তার প্রতিষ্ঠানের একজন বাণিজ্যিক কর্মকর্তা জালিয়াতি করে এই ঘটনা ঘটিয়েছেন। এ বিষয়ে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি রিট পিটিশনও দায়ের করেছে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। এছাড়া ২০১৮ সালের ২০ সেপ্টেম্বর বন্দর থানায় একটি মামলাও করা হয়। তবে শুনানিতে বলেছেন, বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের প্রতি ওনার শ্রদ্ধা রয়েছে। তার প্রতিষ্ঠান ২০১৮ সালেই আড়াই মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেছে। আমরা তাকে পরিস্কার বলেছি-যেহেতু তার প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সে পণ্য আমদানি হয়েছে তাই সম্পূর্ণ দায় দায়িত্ব তার।

x