কিমের সঙ্গে বৈঠক বাতিল ট্রাম্পের

শুক্রবার , ২৫ মে, ২০১৮ at ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ
67

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে পরিকল্পিত বৈঠক বাতিল করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। উত্তর কোরিয়ার নেতার সাম্প্রতিক বিবৃতিতে তীব্র ক্ষোভ ও প্রকাশ্য শত্রুতা প্রকাশিত হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

আগামী ১২ জানুয়ারি সিঙ্গাপুরে কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকে বসার দিনক্ষণ ঠিক হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার এক চিঠিতে তিনি বলেছেন, সেখানে আপনার সঙ্গে মিলিত হতে আমি খুব উদগ্রীব ছিলাম। তবে দুঃখজনক, আপনার সাম্প্রতিক বিবৃতিতে তীব্র ক্ষোভ ও প্রকাশ্য শত্রুতা প্রকাশিত হওয়ায় আমি মনে করছি, এই সময়ে দীর্ঘ পরিকল্পিত এই বৈঠক সঠিক হবে না। কয়েক দশক ধরে মুখোমুখি অবস্থানে থাকা দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জেইনের সঙ্গে কিম জং উনের বৈঠকের পর কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি ফেরার আশা করা হচ্ছিল। দুই নেতা বৈরিতার অবসান ঘটিয়ে কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। খবর বিডিনিউজের।

এরপর উত্তর কোরিয়া সফর করেন দক্ষিণ কোরিয়ার দীর্ঘ দিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। এরপরে উত্তর কোরিয়ার নেতার সঙ্গে বৈঠকের তারিখ ও স্থান নির্ধারিত হওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন ট্রাম্প। তবে তারপরেও দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ সামরিক মহড়া নিয়ে আপত্তি করছিল পিয়ংইয়ং। হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম। তাকে জবাব দিয়ে চিঠিতে ট্রাম্প লিখেছেন, আপনি আপনাদের পরমাণু সক্ষমতার কথা বলেছেন। তবে আমাদেরটা এত বিপুল ও শক্তিশালী যে, আমি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি যেন সেগুলো কখনও ব্যবহার করতে না হয়। ট্রাম্প এই চিঠি পাঠানোর আগে বৃহস্পতিবারই যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের এক হুঁশিয়ারি উড়িয়ে দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার কর্মকর্তা কোয়ে সনহুই। তিনি বলেছেন, উত্তর কোরিয়া আলোচনার জন্য ভিক্ষা চাইবে না। কূটনীতি ব্যর্থ হলে পরমাণু অস্ত্র প্রদর্শনের হুমকি দেন তিনি।

পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্রের সুড়ঙ্গ ধ্বংস করলেন কিম :

এদিকে উত্তর কোরিয়া আঞ্চলিক উত্তেজনা প্রশমনের জন্য পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্রের সুড়ঙ্গ ধ্বংস করে তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার গণমাধ্যম। বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়া তাদের পুংগিয়েরি পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষাকেন্দ্রে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সুড়ঙ্গ ধ্বংস করেছে। কেন্দ্রটি পরিদর্শনে যাওয়া বিদেশি সাংবাদিকরাও বড় ধরনের বিস্ফোরণ দেখতে পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। উত্তর কোরিয়া তাদের এ পরীক্ষাকেন্দ্রেই সব মিলে ছয়টি পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছিল। দেশের উত্তরপূর্বাঞ্চলের মাউন্ট মানটাপ পর্বতের নিচে খোঁড়া কয়েকটি সুড়ঙ্গ নিয়েই এ কেন্দ্রটি গড়ে তোলা হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের যুগপৎ কূটনৈতিক তৎপরতার অংশ হিসাবে উত্তর কোরিয়া এবছর শুরুর দিকে পরীক্ষাকেন্দ্রটি ভেঙে ফেলার প্রস্তাব দেয়। তবে বিজ্ঞানীদের ধারণা, ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে পরীক্ষাকেন্দ্রটিতে সর্বশেষ পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার সময় এটি আংশিক ধসে পড়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কেন্দ্রটি ধ্বংস করে ফেলা দেখতে বাছাই করা ২০ জন মত বিদেশি সাংবাদিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। তাদের সামনেই পরপর কয়েকটি বিস্ফোরণে প্রকম্পিত হয়ে সুড়ঙ্গগুলো ধসে পড়ে। সকালের দিকে দুটো বিস্ফোরণ এবং বিকালে ৪ টি বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। সুড়ঙ্গ ধ্বংসের কাজ শুরু হয় সকাল ১১ টার দিকে। বিস্ফোরণ ঘটিয়ে উড়িয়ে দেওয়া হয় একটি সুড়ঙ্গ এবং একটি পর্যবেক্ষণ স্থাপনা। এর কিছুক্ষণ পর আরেকটি সুড়ঙ্গ এবং আরো একটি স্থাপনা ধ্বংসের পর তৃতীয় আরেকটি সুড়ঙ্গ এবং পর্যবেক্ষণ স্থপনা ধ্বংস করা হয়।

x