কাতারের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে বাংলাদেশ দল

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বুধবার , ৯ অক্টোবর, ২০১৯ at ১০:১০ পূর্বাহ্ণ
12

গত এশিয়ান গেমসে কাতারকে হারিয়ে চমক উপহার দিয়েছিল বাংলাদেশ। অবশ্য সে লড়াইটা ছিল অনূর্ধ্ব-২৩ দলের। কিন্তু এবারের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। কারন এবারের লড়াইটা কাতার মূল দলের সাথে । আর এবারের মঞ্চটাও আলাদা। এবারের লড়াইটা যে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের । কাজেই এখানে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে বাংলাদেশ দলকে। তারপরও এশিয়া কাপের সেই জয় থেকে অনুপ্রেরণা খুজছে বাংলাদেশ। ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে আগামীকাল বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে কাতারের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ‘ই’ গ্রুপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। পাঁচ দিন পর খেলবে অ্যাওয়ে ম্যাচ ভারতের বিপক্ষে।
২০১৮ সালের ইন্দোনেশিয়া এশিয়ান গেমসে কাতারকে ১-০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মত গ্রুপ পর্ব পেরিয়েছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচের প্রসঙ্গ টেনে বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে মনে করিয়ে দিলেন ফুটবলে অসম্ভব বলে কিছু নেই। ওই ম্যাচের জয় থেকে আমরা ভাবতে পারি যে ফুটবলে যে কোনো কিছু সম্ভব। কিন্তু এটাও সত্যি যে এই দলটা একেবারেই আলাদা। আর এবারে চ্যালেঞ্জটাও অন্যরকম। তারপরও এই ম্যাচে আমরা জমাট থাকার চেষ্টা করব। যাতে কাতার আমাদের হারাতে না পারে। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে কাতারের চেয়ে অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ। কাতারের র‌্যাংকিং যেখানে ৬২ তম সেখানে বাংলাদেশের র‌্যাংকিং ১৮৭তম। আর এবারের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বেও শুরুটা ভাল করতে পারেনি জামাল ভুইয়ারা আফগানিস্তানের কাছে হেরে। অন্যদিকে দুই ম্যাচে একটিতে জয় তুলে নেওয়ার পাশাপাশি একটি ম্যাচে ড্র করেছে কাতার । এদিকে শক্তিশালী কাতারের বিপক্ষে নামার আগে ভালোভাবে নিজেদের শানিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশ। দুইটি প্রীতি ম্যাচে ভুটানকে হারিয়েছে যথাক্রমে ৪-১ ও ২-০ গোলের ব্যবধানে। কাতার ম্যাচেও গোলের খোঁজে থাকবে তার দল তেমনটি জানিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশ দলের কোচ। তবে ঘর সামলানোটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন দলের ফরোয়ার্ড বিপলু আহমেদ। তিনি বলেণ কাতার ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক। তাদের সবকিছুই ভাল। অনূর্ধ্ব-২৩ দলের দু-একজন খেলোয়াড় এই দলে আছে। ওদের সিনিয়র খেলোয়াড়দের বেশিরভাগই বাইরের বিভিন্ন লিগে খেলে। সবাই মানসম্পন্ন খেলোয়াড়। তবে আমরা গোল না খাওয়ার একই মানসিকতা নিয়ে খেলব এবং চেষ্টা করব প্রতিআক্রমণে যাওয়ার। বাংলাদেশ দলের এই স্ট্রাইকার বলেন আমাদের লক্ষ্য প্রথমার্ধে গোল না খাওয়া। প্রথম ২০ মিনিটে যদি আমরা গোল না খাই, তবে ওরা গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠবে। তখন অবশ্যই আমরা কিছু পাল্টা আক্রমণের সুযোগ পাব। আর সে সুযোগ যদি কাজে লাগাতে পারি তাহলেতো কথাই নেই। তিনি বলেন এটা ঠিক তাদের সাথে আমাদের লড়াইটাতে একটি ব্যবধান থাকবে। কারন তারা এশিয়ার অন্যতম সেরা শক্তি। তবে আমরা হাল ছেড়ে দিতে চাইনা। আমাদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে সেটাও আমরা বেশ ভাল ভাবেই অবগত আছি। তবে সবকিছু নির্ভর করছে আমরা মাঠে আমাদের পরিকল্পনাটা কতটা বাস্তবায়ন করতে পারছি তার উপর। তবে আমরা প্রস্তুত।

x