কাটিয়ে উঠুন একাকীত্ব

নীলিমা তাসনিম

রবিবার , ৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:৪৭ পূর্বাহ্ণ
188

সঙ্গীর উপর মানসিকভাবে অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে পড়বেন না। আপনার সুখ বা আনন্দ অন্য কারো উপরে নির্ভর করে না, বড়জোর সে আপনার দুঃখ-সুখের অংশীদার হতে পারে। নিজেকে সময় দিন, যা করতে ভালো লাগে সেটাই করুন।
একা থেকেও অনেকের নিজেকে স্বয়ংসম্পূর্ণ মনে হতে পারে। আবার অনেকের মধ্যে থেকেও একা লাগে কারো কারো। একাকীত্ব এমনই এক মানসিক অবস্থা যা যে কোনো সময় দেখা দিতে পারে। স্বামী, সংসার, চাকরি, আত্মীয়স্বজন নিয়ে ভরা সংসার, অথচ মানসিক দিক থেকে একা বোধ করেন, এমন মেয়ে আমাদের আশপাশেই খুঁজলে অনেক পাওয়া যাবে। দীর্ঘ একাকীত্ববোধ থেকে ডিপ্রেশনসহ নানা মানসিক সমস্যা দেখা দিতে পারে, শরীর ভেঙে যাওয়াও বিচিত্র নয়। সারাক্ষণ যদি নিজেকে একা মনে হয় তবে আপনার জন্যই এই সমাধান-
সঙ্গীর উপর মানসিকভাবে অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে পড়বেন না। আপনার সুখ বা আনন্দ অন্য কারো উপরে নির্ভর করে না, বড়জোর সে আপনার দুখ-সুখের অংশীদার হতে পারে। নিজেকে সময় দিন, যা করতে ভালো লাগে সেটাই করুন।
প্রেমের সম্পর্কে জড়ানোর পর অনেক মেয়েই নিজের অন্য বন্ধুবান্ধবদের সাথে আর আগের মতো সময় কাটান না। প্রেমিকের জন্য নিজের পুরানো বন্ধুদের অবহেলা করবেন না। বরং বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটান। আপনার মানসিক একাকীত্ব কাটাতে বন্ধুরাই সাহায্য করবে।
প্রেমের প্রথম পর্যায়ে যে যে কাজগুলো আপনারা একসঙ্গে করতেন, সেসব আবার শুরু করুন। একসঙ্গে সকালে হাঁটতে যান, কফি খেতে যেতে পারেন। সম্পর্কে পুরোনো টান ফিরে আসবে।
প্রেমিক বা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া হলে নিজেকে গুটিয়ে নেবেন না। কথা বন্ধ করে দেয়াটাও কোনো কাজের কথা নয়। ইগো সরিয়ে রেখে ফের কাছাকাছি আসুন দুজনে।
সঙ্গীর সঙ্গে মানসিক যোগাযোগ না থাকলে একাকীত্ব কাটিয়ে ওঠা কঠিন। নিজের একাকীত্ববোধের কথা সঙ্গীকে জানান। দুজনে আলোচনা করে নিশ্চয়ই সমস্যা কাটিয়ে ওঠার পথ বের করতে পারবেন।

x