কটেজ থেকে চবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

চবি প্রতিনিধি

শুক্রবার , ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৩:৩৩ পূর্বাহ্ণ
177

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী একটি কটেজ থেকে জাহাঙ্গীর ইসলাম রাজু নামের এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অং সান খীসার উপস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মুক্তিযোদ্ধা এতিম আলী খান কটেজ থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
রাজু অর্থনীতি বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ির হোসাইনপুর গ্রামে। তিনি লেবানন প্রবাসী সিরাজুল ইসলামের বড় সন্তান। লাশ উদ্ধারকালে তার একাধিক সহপাঠী জানান, চাকরি ও পড়াশোনা নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ছিলেন রাজু। সামপ্রতিক সময়ে দেশজুড়ে ঘটা আত্মহত্যার ঘটনাগুলো ভাবিয়ে তুলেছিল তাকে। সহপাঠী ও রুমমেটদের সাথে তিনি এসব নিয়ে আলোচনাও করতেন। রাজুর সাথে একই কটেজে ১১ মাস রুমমেট ছিলেন মোহাম্মদ আজিম। ইংরেজি বিভাগের এই শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের বলেন,
রাজু ভাই ছিলেন অন্তর্মুখী স্বভাবের। কারো সাথে যেচে কথা বলতেন না। তৃতীয় বর্ষের বেশ কয়েকটি কোর্সে রেজাল্ট খারাপ হয়েছিল। এছাড়া চাকরি নিয়ে ভাবতেন। থাকতেন দুশ্চিন্তাগ্রস্থ। এছাড়া দেশে আত্মহত্যার ঘটনাগুলো আলোচনা করতেন, যা তাকে ভাবিয়ে তুলেছিল। ওনার সাথে সর্বশেষ আমার ৩০ নভেম্বর কথা হয়েছিল। সেদিনই আমি কটেজ ছেড়ে দিয়েছি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্থনীতি বিভাগের এক শিক্ষার্থী জানান, বিভাগে অনিয়মিত ছিলেন রাজু। নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত থাকতেন। পড়াশোনায় আগ্রহ কম ছিল। বাড়ি থেকে পাঠানো টাকা দিয়ে খরচ চালাতেন।
এদিকে প্রাথমিকভাবে এটিকে আত্মহত্যা হিসেবে দেখছে পুলিশ। এ বিষয়ে হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলেন, লাশের আলামত দেখে প্রাথমিকভাবে এটি আত্মহত্যা বলে আমরা ধারণা করছি। তবে ময়নাতদন্তে মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।
জানতে চাইলে চবি প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী আজাদীকে বলেন, এমন ঘটনা অনাকাঙ্খিত ও খুবই দুঃখজনক। আমরা পুলিশের সহযোগিতায় ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করেছি। পরে সেটি ময়নাতদন্তের জন্য চমেকে পাঠানো হয়।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আলাউদ্দিন আজাদীকে বলেন, লাশ এখনো মর্গে রয়েছে। কাল (আজ) ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তরের কথা রয়েছে।

x