ওয়ানডে সিরিজে বড় ভূমিকা রাখতে পারে পেসাররা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৬:২৮ পূর্বাহ্ণ
32

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজে বাজিমাত করেছে স্পিনাররা। বলা যায় স্পিন দিয়েই ক্যারিবীয়দের কাবু করেছে বাংলাদেশ। সাকিব, তাইজুল, নাঈম, মিরাজদের ঘূর্ণিতে কুপোকাত হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। তাই বলতে গেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ‘বেকারই’ ছিলেন পেস বোলাররা। পুরো সিরিজে বাংলাদেশের ৪০টির উইকেটের একটিও পাননি কোনো পেসার। টেস্ট ইতিহাসেই যে কীর্তি বলতে গেলে নেই। উইকেট পাওয়া দূরে থাক, দুই টেস্ট মিলে পেসাররা বলই করতে পেরেছেন মাত্র ৪ ওভার। চট্টগ্রামে সেই সৌভাগ্য মোস্তাফিজুর রহমানের হলেও মিরপুরে তাও হয়নি কারও। কারন মিরপুর টেস্টে কোন পেসারকেই একাদশে রাখেনি স্বাগতিক শিবির। তবে রুবেল হোসেন মনে করছেন, ওয়ানডেতে বড় অবদান রাখতে পারবেন পেসাররা। টেস্ট সিরিজে তারা বেকার থাকলেও ওয়ানডে সিরিজের পেসারদের ভাল ভূমিকা রাখার সুযোগ দেখছেন টাইগারদের অভিজ্ঞ এই পেসার।
দেশের মাটিতে স্পিনাররা টেস্ট জেতালেও ওয়ানডেতে পেসাররা বরাবরই বড় ভূমিকা রেখেছেন। রুবেল হোসেন তাই জোর দিয়েই বললেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও সেই ক্ষমতা আছে পেসারদের। অবশ্যই পেসাররা ক্ষমতা রাখে এবং ওয়ানডে জিতিয়েছেও পেস বোলাররা। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেই প্রমাণ দিয়েছে। এই কন্ডিশনেও অবশ্যই জেতাতে পারবে। ওয়ানডেতে উইকেট স্পিন সহায়ক থাকবে না বলেও মনে করছেন রুবেল। আর আমাদের যেই পেস বোলাররা আছে, এই কন্ডিশনে সবসময় ম্যাচ জেতাতে পারবো। কাজেই ওয়ানডে সিরিজে পেসারদের রউপর আস্থা রাখাই যায়। রুবেল মনে করছেন, ফরম্যাট বদলে যাওয়ায় পেসারদের ভূমিকাও বদলে যাবে। আসলে আমাদের টেস্ট ক্রিকেটে সবসময় স্পিনাররাই রাজত্ব করে আসছে। আর পেস বোলাররা আমরা সবসময় ওইরকম সাফল্য পাচ্ছি না। আর ওয়ানডে ফরম্যাটটা সম্পূর্ণ আলাদা একটা ফরম্যাট। একদিনের খেলা। যারা যেদিন যত ভুল কম করবে তারা তত ভালো করবে। এটা বদলানোর কিছু নাই। অবশ্যই স্পিনাররা যখন ভালো করে তখন পেস বোলাররা খেলার সুযোগ পায় না। তবে এটা একটু দুঃখজনক। তারপরও আমার কাছে মনে হয় ওয়ানডেতে এমন হবে না। ওয়ানডেতে একটু আলাদা হবে। উইকেটে ওইভাবে স্পিন থাকবে না। আমার কাছে মনে হয় না ওরকম হবে।
তারপরও দেশের মাটিতে পেসারদের এভাবে বসে থাকতে দেখে কি খারাপ লাগে না একটুও? রুবেল স্বীকার করলেন, একটু তো দুঃখজনক। একটা পেস বোলার না নিয়ে আমরা টেস্ট খেলছি। আমাদের কন্ডিশন, উইকেট ওইরকম ছিল। আমাদের দেশের মাটিতে সফল হয়েছি। টিম প্ল্যানিং হয়তো ওইভাবেই ছিল। তাই পেস বোলারদের জন্য একটু তো খারাপ লাগেই। টেস্ট সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পাত্তাই পায়নি বাংলাদেশের কাছে। তবে টেস্ট শেষের পর সাকিব আল হাসান বলেছিলেন, ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আরও ভালো দল। গত মঙ্গলবার ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও একই কথা বলেছেন। রুবেল অবশ্য সেরকম কিছু বলছেন না। তিনি বলেন আসলে এটা তো বলা যাচ্ছে না। আমরা অবশ্যই সিরিজ জেতার জন্য মাঠে নামবো। ৩-০ বা ২-০ এ ধরনের কোনো কিছুই বলা যাচ্ছে না। আমাদের প্রতিটা প্লেয়ার খুব কনফিডেন্ট আছে। ভালো একটা টেস্ট সিরিজ আমরা জিতেছি। এটা আমাদের প্লেয়ারদের অনেক আত্মবিশ্বাস দেবে। যেটা আমরা কাজে লাগাতে পারবো ওয়ানডে সিরিজে।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের তরুণ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান শিমরন হেটমেয়ারকেই বড় হুমকি মনে করা হচ্ছে ওয়ানডেতে। রুবেল অবশ্য আলাদা করে কারও কথা বললেন না। তিনি বলেন আসলে আলাদা করে কোনো কিছু করি নাই। কারণ প্রত্যেকটা ব্যাটসম্যানকে নিয়েই আমাদের ভাবতে হয়। আমাদের ভিডিও অ্যানালিস্ট আছেন, তিনি সবার ভিডিও দিয়ে দেন। ওইরকম আলাদা ভাবে কাউকে দেখা হয় নাই। ওদের টিমে সবাই তো মেইনলি স্ট্রোক খেলতে পছন্দ করে। আমাদের এটাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে হবে। তবে আশা করছি এই চ্যালেঞ্জে আমরা জিততে পারবো। কারণ আমাদের ক্রিকেটাররা এখন বেশ আত্মবিশ্বাসী। তাছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের কন্ডিশনে গিয়ে আমরা ওয়ানডে সিরিজ জিতে এসেছি। কাজেই আমাদের জয়েল সম্ভাবনা বেশ ভাল। তাছাড়া আমরা ওয়ানডে ফরমেটে বেশ ভাল খেলি। কাজেই ওয়ানডে সিরিজও জিততে চাই আমরা। আর এই মিশনে অবশ্যই ভাল করতে মুখিয়ে আছে দলের পেস বোলাররা।

x