ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি

মঙ্গলবার , ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৪:২৮ পূর্বাহ্ণ
43

বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানির সংখ্যা। একই সঙ্গে বাড়ছে বিক্রয়কর্মীর সংখ্যাও। বাজারে আসছে নিত্যনতুন ওষুধ। ইদানীং মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভ একটি জনপ্রিয় ও সম্মানজনক পেশায় পরিণত হয়েছে। তাছাড়া এ পেশায় উপার্জনও বেশ ভালো। বেক্সিমকো, স্কয়ার, ইবনে সিনা, অপসোনিন, নাভানা নামগুলোর সঙ্গে কম বেশি সবাই পরিচিত। এই ওষুধ কোম্পানিগুলো যাদের মাধ্যমে ওষুধ বাজারজাত করেন তারাই মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভ বা বিক্রয় প্রতিনিধি। এরা কোম্পানির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। মেডিকেল রিপ্রেজেনটেভিদের কাছে মেডিকেল সায়েন্সের লেটেস্ট ইনফরমেশন থাকে। এই ইনফরমেশন তারা ডাক্তারদের সঙ্গে শেয়ার করেন। অসংখ্য পণ্যের ভেতর পণ্যটি যে অধিকতর ভালো সেটা নিজস্ব মেধা, শ্রম ও কৌশল দিয়ে ক্রেতার সামনে তুলে ধরতে হবে। যে কোনো বিক্রয় প্রতিনিধির এটাই মূল কাজ। মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভের কাজই হচ্ছে ক্রেতা সৃষ্টি করা। এ জন্য দক্ষতাও থাকা দরকার। সকল মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভের গুণাবলী থাকা দরকার। বিক্রয়কর্মীর বাচনভঙ্গি এবং উপস্থাপন কৌশল মার্জিত হতে হবে। উপস্থাপন কৌশল দ্বারা ক্রেতাকে বোঝাতে সক্ষম হতে হবে যে পণ্যটি বাজারে অন্য পণ্যগুলোর চেয়ে মান ভালো। পণ্য ক্রেতা প্রত্যাখ্যান করতেই পারে। সেক্ষেত্রে ধৈর্য হারালে চলবে না। মনোযোগ দিয়ে শুনতে হবে পণ্য সম্পর্কে অভিযোগগুলো কি। তারপর কৌশলে সিদ্ধান্ত নিতে হবে কিভাবে উপস্থাপন করলে ক্রেতা পণ্য সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে উঠবে। ওষুধ সম্পর্কে ক্রেতার নেতিবাচক ধারণা দূর করা এবং ভালো ধারণাগুলোকে আরো ভালো করে ক্রেতার মনে বেঁধে দেওয়া। সেজন্য পণ্য সম্পর্কে জানা অতি জরুরি।সব সময় মার্জিত পোশাক-পরিধান করতে হবে যা বিক্রয় কর্মীর ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয়ভাবে ফুটিয়ে তুলবে। দেশে যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে মোবাইল, ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হবে। ক্রেতার সঙ্গে সম্পর্ক তৈরির জন্য প্রযুক্তির ব্যবহার ভালো কাজ দেবে। সব সময় নতুন ক্রেতা তৈরির দিকে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ লক্ষ্য সামনে নিয়ে কাজ করতে হবে। ক্রয় ক্ষমতা আছে এরূপ ক্রেতা বা ক্রেতা প্রতিষ্ঠানকে টার্গেট করতে হবে। মনে রাখতে হবে মানুষের মন এবং তার চাহিদা বিচিত্র। সেগুলো বুঝে পণ্যের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে হবে। নিত্যনতুনভাবে নিজেকে উপস্থাপন করার মতো সৃজনশীল ক্ষমতা অর্জন করতে হবে। ডায়েরিতে প্রতিদিনের কাজের একটি তালিকা তৈরি করতে হবে। সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা অর্জনের কৌশল আয়ত্ত করতে হবে। ক্রেতাকে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করতে হবে। ক্রেতার ব্যবহারে কখনও উত্তেজিত হওয়া উচিত নয়। কখনও অন্য প্রতিষ্ঠানের পণ্য গুণগত মান খারাপ এমন বলা ভালো নয়। ডাক্তার রোগী দেখা অবস্থায় তার সঙ্গে কথা বলা উচিত নয়। প্রয়োজনে বাসায় দেখা করতে হবে। মনে রাখতে হবে কোনো কিছুই বিক্রি হয় না। বিক্রি করতে হয়। তবেই একজন সফল মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভ।

– এম এ গফুর, বলুয়ার দীঘির দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়, কোরবানীগঞ্জ, চট্টগ্রাম।

x