ঐক্যফ্রন্টের ঐক্য কি সংকটের মুখে?

আসন ভাগাভাগির জটিল হিসাব

শুকলাল দাশ

শুক্রবার , ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৩:৪২ পূর্বাহ্ণ
416

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আসন ভাগাভাগি নিয়ে এখনো ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। গত ১৩ অক্টোবর সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিতে সাত দফা দাবি নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয় বিএনপি, গণফোরাম, জেএসডি, নাগরিক ঐক্য ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ মিলে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।
শুরুর পর থেকে এতদিন রাজনীতির মাঠে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করলেও নির্বাচনের আসন ভাগাভাগির শেষ সময়ে এসে ঐক্যফ্রন্টের ঐক্য যেন ততটা অটুট নেই! আসন ভাগাভাগি ছাড়াই আলাদা আলাদাভাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে ঐক্যফ্রন্ট ভুক্ত দলগুলো। আগামী ৯ ডিসেম্বর প্রার্থীদের প্রত্যাহারের শেষ দিন। কিন্তু এখন পর্যন্ত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর সাথে আসন ভাগাভাগির বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি বিএনপি। এ নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক দূরত্ব বাড়ছে বলেও দাবি সংশ্লিষ্টদের। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, এ ধরনের জটিল পরিস্থিতিতে ঐক্যফ্রন্টের ঐক্য শেষ পর্যন্ত প্রত্যাশিত পর্যায়ে নাও থাকতে পারে। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, এখানে রাজনীতির হিসেবের চেয়েও আসন ভাগাভাগির হিসাবটাই ক্রমশ মুখ্য হয়ে উঠছে। এমনিতেই মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থীদের প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে। এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতে শরিকদেরকে ছাড় দিয়ে নিজের স্বার্থ রক্ষা করা জটিল ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে দলটির জন্য। তবে শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি কোন দিকে গড়ায় তা দেখার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আগামী ৯ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন পর্যন্ত।
সূত্র জানায়, মনোনয়নপত্র জমাদানের আগে বিএনপির পক্ষ থেকে প্রথমে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের বলা হয়েছিল এখন যার যার মতো করে সবাই মনোনয়নপত্র জমা দিবে, আসন ভাগাভাগির বিষয়টি পরে চূড়ান্ত করা হবে। কথা মতো, গত ২৮ নভেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তারা। এসব বাছাই হয়েছে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত। আজ ৭ ডিসেম্বর। আগামী ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। মাঝখানে সময় আছে মাত্র একদিন। এরমধ্যে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের
সাথে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলের নেতাদের মধ্যে আসন বণ্টন নিয়ে বেশ কয়েকবার বৈঠক হলেও কাকে কত আসনে ছাড় দেয়া হবে তা এখন ঠিক করতে পারেনি তারা। এ নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের মধ্যে অনেকটা অসন্তোষ দেখা দিয়েছে, বাড়ছে দূরত্বও।
গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৮ টার পর থেকে বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করার কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় বিএনপির পক্ষ থেকে এক নেতা জানান, অনিবার্য কারণে প্রার্থীদের তালিকা ঘোষণা স্থগিত করা হয়েছে। আগামীকাল (আজ) দুপুর দুইটার পর ঘোষণা করা হবে।
এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে বৈঠকে বসেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা। ওই বেঠকে ঐক্যফ্রন্টের আসন ভাগাভাগি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বৈঠক শেষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের জানান, আসন ভাগাভাগির বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়ে দুই একদিনের মধ্যেই জানানো হবে।
বৈঠকের বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, নির্বাচনকালীন রাজনৈতিক অবস্থা ও নির্বাচন পরবর্তী সম্ভাব্য রাজনৈতিক অবস্থা নিয়ে আমাদের আলোচনা হয়েছে। এছাড়া এই মুহূর্তে যেভাবে গণগ্রেফতার ও নেতাকর্মী হয়রানি চলছে সে বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।
এছাড়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১০ ডিসেম্বর জনসভা স্থগিত করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের কারণে এই মুহূর্তে জনসভাটি স্থগিত করা হয়েছে। তবে প্রচার-প্রচারণার শেষ দিকে এই জনসভা করা হবে।
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেএসডির আ.স ম রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু, প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজা কিবরিয়া প্রমুখ।

x