এশিয়া কাপের আগেই অপারেশন করাতে চান সাকিব

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুক্রবার , ১০ আগস্ট, ২০১৮ at ৮:০৬ পূর্বাহ্ণ
14

হাতের কনিষ্ট আঙ্গুলের ব্যাথা নিয়েই খেলেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে। শেষ ম্যাচেতো ইনজেকশন নিয়ে খেলেছেন তিনি। এখন আর সে ব্যাথা নিয়ে বসে থাকতে চাননা। বয়ে বেড়াতে চাননা সে ব্যাথা। যদিও সাকিবের আঙ্গুলের ব্যাথাটা বেশ পুরানো। চলতি বছরের জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ফিল্ডিংয়ের সময় বাঁহাতের কনিষ্ঠায় পাওয়া ব্যথা আর বোধ হয় সইতে পারছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তাই আর বইতেও চাইছেন না। যতদ্রুত সম্ভব অস্ত্রোপচার করে ব্যথামুক্ত হতে চাইছেন। এখন ব্যাথার তীব্রতা হয়তো বেশিই। ফলে সম্ভব হলে এশিয়া কাপের আগেই চাইছেন ছুরিকাঁচির নিচে যেতে। সাকিব বলেন আমার ব্যাথার এখন যা অবস্থা তাতে আমরা সবাই জানি এখন যে সার্জারি করতে হবে। ওটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে কোথায় করলে ভাল হয়। কবে করলে ভাল হয়। তবে আমি মনে করি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব করে ফেলা ভাল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে দেশে ফিরে হযরত শাহজহালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে তিনি তেমনই ইঙ্গিত দিলেন। তবে সাকিব চাইলেই ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া এশিয়া কাপের আগেই অস্ত্রোপচার করাতে পারবেন কী না সেটা নিয়ে যথেষ্টই সন্দেহ আছে। কেননা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মেডিক্যাল বিভাগে দেয়া তথ্যমতে, তিনি এই মুহূর্তে তার কনিষ্ঠায় অস্ত্রোপচার করালে নুন্যতম ২ মাস মাঠের বাইরে থাকতে হবে। ফলে অবশ্যম্ভাবী ভাবেই এশিয়া কাপ তিনি খেলতে পারছেন না। আর সেটা বোধ হয় তিনি জানেন না। তাই বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের বললেন তিনি পুরো ফিট না হয়ে এশিয়া কাপে খেলতে চান না। সাকিব বলেন আমি মনে করি পুরোপুরি ফিট না থেকে খেলতে নামা উচিত হবেনা। আর তাতে আমার ক্ষতিটা বেশি হয়ে যেতে মপারে। কাজেই সেভাবে যদি চিন্তা করি এশিয়া কাপের আগে অফারেশন করাতে হবে।

এদিকে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তার মতো একজন গুরুত্বপূর্ন খেলোয়াড়কে বাদ দিয়ে টাইগারদের এশিয়া কাপে পাঠাতে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট মনে হয় না সম্মত হবেন। আবার হতেও পারেন। তবে কি হবে না হবে সেই বিতর্কে এখনই না গিয়ে বিষয়টি বোর্ড, সাকিব ও বিসিবি মেডিক্যাল বিভাগের আসন্ন সভার দিকে তাকিয়ে থাকাই ভালো। সবচাইতে বড় কথা হচ্ছে ভ্যাথা জিইয়ে রাখতে চাননা সাকিব। ব্যাথা নিয়ে খেরেছেন তিনি শ্রীলংকায় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে। এরপর আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজেও খেলেছেন। সব শেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেললেন তিনটি সিরিজ। এভাবে আর লম্বা সময় পুষে রাখতে চাননা আঙ্গুলের ব্যাথা। কারন যতই ব্যাথাকে পুষবেন ততই তা তার ক্যারিয়ারের জন্য বড় ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়াবে। তেমন ঝুকি নিতে চাইছেননা সাকিব। তিনি বলেন আমি চাই সব সময় শতভাগ ফিট হায়ে মাঠে নামতে। তবে এশিয়া কাপের মত গুরুত্বপূর্ন আসরে তাকে ছাড়া খেলাটা বাংলাদেশের জণ্য একটু ঝুকিপূর্ন হবে বলেও মনে করেন অনেকেই। তাই সিদ্ধান্তটা নিতে হবে বেশ ভেবে চিন্তে তেমনটাই বলছেন ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। তবে যেদিকেই বিবেচনা করা হোকনা কেন সাকিব এবং বাংলাদেশ যেহেতু দুটোই একে অপরের পরিপুরক তাই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে বেশ ভাবতে হবে। নাহয় ক্ষতিটা দীর্ঘ মেয়াদে বড় হয়ে যেতে পারে।

x