এমন বিদায় প্রাপ্য ছিল জার্মানদের

স্পোর্টস ডেস্ক

শুক্রবার , ২৯ জুন, ২০১৮ at ৬:৪১ পূর্বাহ্ণ
102

গত আসরের চ্যাম্পিয়ন তারা। গত চার বছর ছিলেন দারুণু ফর্মে। দলটিতে ছিল তারকার মহা সমাবেশ। কোচ জোয়াচিম লোকে পড়তে হয়েছিল মধুর সংকটে। কাকে রেখে কাকে নেবেন তিনি দলে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মাঠের লড়াইয়ে পারলনা জার্মানি। এতটা হতশ্রী আর কখনোই দেখা যায়নি তাদের। বিশ্বকাপের ৮০ বছরের ইতিহাসে কখনোই প্রথম পর্ব থেকে বিদায় নেয়নি জার্মানি। যেটা ঘটল এবারে। আর এশিয়ার কোন দেশের কাছে প্রথমবার হারল জার্মানরা। সব মিলিয়ে এতটা হতশ্রী কখনোই দেখা যায়নি প্রতাপশালী জার্মানিকে। দলটির কোচ জোয়াচিম লো ১৪ বছর ধরে আছেন দলটির সাথে। কিন্তু তার কন্ঠে এখন হতাশার সুর। বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের বিদায়কে ‘প্রাপ্য’ হিসেবেই উল্লেখ করেছেন জার্মান ফুটবল দলের ম্যানেজার জোয়াচিম লো। একইসঙ্গে এমন ঘটনায় তাকে জার্মানদের ‘রোষানলে’ পড়তে হবে বলেও মন্তব্য করেছেন বিশ্বকাপ জয়ী এ কোচ।

গত ২৭ জুন বুধবার রাতে নিজেদের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে ২০ গোলে হারে লো’র জার্মানি। এই হারের মাধ্যমে বিশ্বকাপের ২১তম আসরের গ্রুপ থেকে বিদায় নিতে হয় তাদের। যা ১৯৩৮ সালের পর জার্মানির ভাগ্যে ঘটলো। ঘটনাটিকে ‘ঐতিহাসিক’ উল্লেখ করে জার্মান কোচ বলেন, আমরা দেখছিলাম সুইডেন এগিয়ে যাচ্ছে। তবে আমাদের উচিত ছিল চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা। যা আমরা পারিনি। তাই এই হার আমাদের প্রাপ্য। জার্মানির ফুটবল ইতিহাসে গত এক যুগের লো’সাম্রাজ্যে দক্ষিণ কোরিয়া শুধু পতনই ঘটায়নি, একইসঙ্গে তার পদত্যাগের বাঁশিও বাজিয়ে দিয়েছে। ম্যাচের পর ফুটবলপাড়ায় সে রকম ইঙ্গিতই শোনা যাচ্ছে। ২০০৬ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর তার নেতৃত্বে ধারাবাহিক সাফল্য পেয়ে আসছিল জার্মানি। ২০১৪ সালে লো’র অধীনেই বিশ্বকাপ ঘরে তোলে জার্মানরা। আর গত বছর কনফেডারেশন কাপও জেতে দলটি। সাফল্যের এমন ধারাবাহিকতায় বিশ্বকাপের দিনকয় আগে জোয়াকিম লো’র সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ ২০২২ সাল পর্যন্ত নবায়ন করে জার্মান ফুটবল ফেডারেশন।

গত চার বিশ্বকাপে অন্তত সেমিফাইনালে যাওয়া জার্মানি এর মধ্যে দু’টি ফাইনাল খেলেছে। এছাড়া জার্মানি হলো চতুর্থ ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন যারা এবার গ্রুপ পর্ব থেকেই ছিটকে গেছে। এর আগে ২০০২ সালে ফ্রান্স, ২০১০ সালে ইতালি ও ২০১৪ সালে স্পেন গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়। এদিকে ম্যাচ হারার পর এক টুইটে ‘সরি’ লিখে ক্ষমা চেয়েছেন মাট হুম্মেলস। শুধু তিনিই নন, দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে হারের পর মাঠেই কেঁদেছেন জার্মানির ভক্তসর্মথকরা। জার্মান ফুটবল দলের এমন বিপর্যয়ের কোন কারণ খুজে পাচ্ছেনা সমর্থকরা। তবে অনেকের মতে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণে এমনটি হয়েছে বলে মনে করেন। কারো কারো মতে দলের তারকা ফুটবলাররা পারেনি তাদের নামের প্রতি সুবিচার করতে। নাহয় এর চাইতেও কঠিন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এসেছে জার্মানরা। দল বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে। স্বভাবতই যেকোন দল বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলে তার খড়গটা গিয়ে পড়ে দলের কোচের ্ব উপর। জোয়াচিম লোর বেলায়ও যে, তেমনটি হতে পারে তেমনটি মনে করছেন অনেকেই। যদিও তার সাথে ২০২২ সাল পর্যন্ত চুক্তি রয়েছে জার্মান ফুটবল ফেডারেশনের। এখন কি হবে সে চুক্তির সেটা সময়ই হয়তো বলে দেবে।

x