একাধিক টুর্নামেন্টকে ঘিরে সরব এখন চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গন

শেখ কামাল ক্লাব কাপ, জাতীয় সাঁতার এবং মেয়র আন্তঃ ওয়ার্ড কাপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১০ অক্টোবর, ২০১৯ at ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ
26

বছরের একেবারে শেষ প্রান্তে এসে পৌঁচেছে চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গন। সে সাথে নির্বাচনী হাওয়াও বইতে শুরু করেছে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থায়। তবে বছরের শেষ দিকে এসে এখন দারুন জমজমাট চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গন। কারণ এ মাসে এবং আগামী মাসে একাধিক জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চট্টগ্রামে। সে সাথে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার নিজেদের খেলাধুলাতো রয়েছেই। সব মিলিয়ে দারুন জমজমাট এখন এম এ আজিজ স্টেডিয়াম এলাকা। স্টেডিয়াম জুড়ে চলছে নানা সংস্কার কাজ। গ্যালারীতে নতুন রং করা হয়েছে। এখন চলছে স্টেডিয়ামের মূল প্যাভেলিয়ন ভবনের সংস্কার কাজ। সংস্কার করা হচ্ছে স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইটও। আর এ সবের লক্ষ্য হচ্ছে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। এটি একটি আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট। যেখানে নানা দেশের ৮টি দল অংশ নেবে। আগামী ১৯ অক্টোবর থেকে এই টুর্নামেন্ট মাঠে গড়ানোর কথা রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে র্নিধারিত সময়েই এই টুর্নামেন্ট মাঠে গড়াবে তেমন আশা আয়োজকদের। আর সে টুর্নামেন্টকে ঘিরেই মুলক এই সংস্কার কাজ চলছে স্টেডিয়াম জুড়ে।
অবশ্য শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের আগে বসতে যাচ্ছে আরেকটি জাতীয় প্রতিযোগিতা। আর তা হচ্ছে শেখ রাসেল বয়সভিত্তিক সাঁতার প্রতিযোগিতা। চট্টগ্রামে অনেক ইভেন্টের জাতীয় আসর বসলেও এই প্রথম সাঁতারের কোন ইভেন্টের জাতীয় আসর বসতে যাচ্ছে। আগামী ১১ এবং ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে এই জাতীয় বয়স ভিত্তিক সাঁতার প্রতিযোগিতা। যেহেতু চট্টগ্রামে এর আগে কোন সুইমিং পুল ছিলনা সেহেতু সাঁতারের কোন বড় ইভেন্ট আয়োজন করা যায়নি। এখন যেহেতু নিজেদের সুইমিং পুল রয়েছে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সেহেতু তাদের এখন জাতীয় কোন প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে কোন সমস্যা নাই। প্রথমবারের মত আয়োজিত এই জাতীয় বয়স ভিত্তিক সাঁতার প্রতিযোগিতায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে প্রায় আড়াইশ প্রতিযোগী অংশ গ্রহণ করবে। আর সে সাঁতার প্রতিযোগিতাকে ঘিরে চট্টগ্রামের সুইমিং পুল এলাকায়ও চলছে প্রস্তুতি।
শেখ রাসেল জাতীয় বয়স ভিত্তিক সাঁতার প্রতিযোগিতা এবং শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের পর মাঠে গড়াবে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার নিজস্ব একটি কর্মসুচি। আর সেটি হচ্ছে মেয়র কাপ আন্তঃ ওয়ার্ড ফুটবল টুর্নামেন্ট। চট্টগ্রামের বৃহৎ এই ফুটবল টুর্নামেন্টকে ঘিরেও চলছে চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থায় দারুন প্রস্তুতি। কারন এই টুর্নামেন্টে অংশ নেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৪০টিরও বেশি ওয়ার্ড দল। এই প্রতিযোগিতাকে ঘিরে এরই মধ্যে শেষ হয়েছে খেলোয়াড় বাছাই। প্রতিটি দল তাদের দল গঠনও নিশ্চিত করে ফেলেছে। জেলা ক্রীড়া সংস্থার খেলোয়াড় বাছাই কমিটি বাছাই করে প্রতিটি দলকে তাদের খেলোয়াড়দের নির্ধারিত করে দিয়েছে। এই টুর্নামেন্টকে ঘিরে তাই উচ্ছাসটা একটু বেশি। কারন স্ব স্ব এলাকার দল নিয়ে যেহেতু খেলা সেহেতু দর্শকদের মাঝেও সাড়াটা বেশি পড়বে বলে মনে করছে আয়োজকরা।
এছাড়া্‌ও এই মাসে জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় ক্রিকেট লিগের একাধিক ম্যাচ। আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় ক্রিকেট লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডের একটি ম্যাচ। এরপর আরো একটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এই মাঠে এ মাসেই। এরই মধ্যে কিংবা পরে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে একাধিক আন্তর্জাতিক ম্যাচও। যেহেতু জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়াম বিশেষায়িত একটি ক্রিকেট স্টেডিয়াম সেহেতু এই মাঠে ম্যাচ আয়োজনে তেমন কোন সংস্কার করতে হয়না। কারন এ মাঠে সবকিছু একেবারেই সেট করা। আর সে সব কিছু একেবারেই ক্রিকেটের জণ্য। কাজেই তাদের কোন ধরনের বেগ পেতে হয়না।
এদিকে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ এবং মেয়র কাপ আন্তঃ ওয়ার্ড ফুটবল টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে এম এ আজিজ স্টেডিামে সবচাইতে বড় সংস্কার কাজটি হচ্ছে ফ্লাড লাইটে। গত কয়দিন ধরে শুরু হয়েছে এই ফ্লাড লাইট সংষ্কারের কাজ। এরই মধ্যে স্টেডিয়ামের লাইট গুলো সংস্কার করা হয়েছে। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের এক প্রকৌশলী জানান এরই মধ্যে ১৪৫ টি লাইট বদলানো হয়েছে। যার মধ্যে ৪৫টি লাইট আনা হয়েছে রাজশাহী থেকে আর ১০০টি বাতি লাগানো হয়েছে নতুন করে। আগের ৩২০টি লাইটের মধ্যে ১৭৫টি লাইট ভাল আছে। বাকি ১৪৫টি লাইট প্রতিস্থাপন করতে হয়েছে। এছাড়া স্টেডিয়ামের দক্ষিণ-পূর্ব পাশের টাউওয়ারের ক্যাবলও বদলাতে হয়েছে। সে টাওয়ারের ক্যাবল গুলো প্রায় অকেজো হয়ে পড়ায় লাইট জ্বলছিলনা। এই কাজ গুলো করে দিচ্ছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। যার জণ্য প্রায় এক কোটি ২৫ লক্ষ টাকা ব্যয় হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এই প্রকৌশলী। তবে এসব কোন স্থায়ী সমাধান নয়। এই লাইট প্রতিস্থাপনের কাজটি করা হচ্ছে কেবল শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের জন্য। এই টুর্নামেন্টটি শেষ হলে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইটের আরো বড় কাজ করতে হবে । আর সে জন্য একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে। চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম.নাছির উদ্দিনের অনুরোধে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইটের জন্য একটি প্রকল্পের কথা চিন্তা করা হচ্ছে। সে প্রকল্পে ব্যয় হবে প্রায় ১৫ কোটি টাকা। যেহেতু এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইট গুলো অনেক পুরানো সেহেতু এই লাইটের টাওয়ারের ক্যাবল গুলো বদলানো সবচাইতে বেশি প্রয়োজন। আর ক্যাবল বদলাতে খরচটা সবচাইতে বেশি। যদিও সে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয় তাহলে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইট আবারো নতুনের মত হয়ে যাবে। চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গন বলতে গেলে এখন দারুন ব্যস্ত। বিশেষ করে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টকে ঘিরে প্রস্তুতির পরিধিটা বেশ বড়। সে টুর্নামেন্টকে ঘিরে যা প্রস্তুতি হচ্ছে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে সে সব পরে কাজে লাগবে মেয়র কাপ কিংবা অন্য সব টুর্নামেন্টে। এখন দেখার অপেক্ষা এই সব আয়োজন কতটা সফল হয়।

x